পদ্মা সেতু: দুদকের তদন্ত ‘শেষ হয়নি’

পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে এখনো তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপপু। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম তিনি বলেন, “পদ্মা সেতুর পুরো প্রকল্পে দুর্নীতি হয়েছে কি না; সে বিষয়ে দুদক কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। এর একটি অংশের (মূল সেতু) বিষয়ে প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে মাত্র।”

সাহাবুদ্দিন জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পে মূল সেতু নির্মাণ, পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক নির্মাণ এবং ভূমি অধিগ্রহণ ও ক্ষতিপূরণ- এই পাঁচটি অংশে আলাদাভাবে কাজ চলার কথা।

“মূল সেতু নির্মাণ এবং পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের ক্ষেত্রে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছে বিশ্বব্যাংক। আমরা প্রথমটির ক্ষেত্রে কোনো দুর্নীতি হয়নি বলে প্রতিবেদন দিয়েছি। পরের অভিযোগটির বিষয়ে এখনো তদন্ত চলছে”, বলেন তিনি।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল সেতু নির্মাণে প্রাকযোগ্য প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে কোনো রকম দুর্নীতি হয়নি জানিয়ে গত ২ ফেব্রুয়ারি ওই বিষয়ে তদন্ত শেষের ঘোষণা দেয় দুদক।

ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জানান, দুদকের ওই তদন্ত প্রতিবেদনের অনুলিপি বিশ্বব্যাংকেও দেওয়া হয়েছে। ওই তদন্তের বিষয়ে তারা দ্বি-মত পোষন করেনি।

পরামর্শক নিয়োগের ক্ষেত্রে র্দুর্নীতির অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এসএনসি-লাভালিন নামে যে প্রতিষ্ঠানটির বিষয়ে অভিযোগ উঠেছে- সেটি কানাডা ও যুক্তরাজ্যের জয়েন্ট ভেনচার। তাদের বিষয়ে তথ্য চেয়ে গত ফেব্রুয়ারিতে অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়ের মাধ্যমে কানাডীয় পুলিশের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।”

তবে এখন পর্যন্ত দুদক কোনো জবাব পায়নি বলে জানান সাহাবুদ্দিন।

দুদকের একজন কর্মকর্তা জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পে পরামর্শক নিয়োগের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ৩ শ’ কোটি টাকা। ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি মূল্যায়ন কমিটি পরামশর্ক হিসেবে যে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের নাম সুপারিশ করেছিল, তার প্রথমটি ছিল এসএনসি-লাভালিন।

অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- যুক্তরাজ্যের হালক্রো গ্রুপ, নিউজিল্যান্ডের একম অ্যান্ড এজেডএল, জাপানের ওরিয়েন্টাল কনসালটেন্ট কোম্পানি লিমিটেড এবং যুক্তরাজ্য ও নেদারল্যান্ডসের জয়েন্ট ভেনচার হাই পয়েন্ট রেলেন্ড।

এ প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ এনে গত বছরের ১১ অক্টোবর পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন স্থগিত করে বিশ্ব ব্যাংক। তাদের চিঠি পেয়ে দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধান করতে দুজন কর্মকতাকে নিয়োগ দেয় দুদক, যদিও সরকার বরাবরই দুর্নীতির বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে।

২৯০ কোটি ডলারের পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের জন্য বিশ্বব্যাংক ১২০ কোটি ডলার, এডিবি ৬১ কোটি, জাইকা ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক ১৪ কোটি ডলার ঋণ দেওয়ার চুক্তি করলেও দুর্নীতি অভিযোগ ওঠার পর স্থগিত হয়ে যায়।

এই পরিপ্রেক্ষিতে বহু প্রতীক্ষিত এই সেতু নির্মাণে মালয়েশিয়ার সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারকে সই করে সরকার।

যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বৃহস্পতিবার বলেন, “মালয়েশিয়ার সঙ্গে আলোচনা চলছে। এ ব্যাপারে চূড়ান্ত চুক্তির জন্য চলতি মাসের শেষ দিকে তারা প্রস্তাব দিতে পারে।”

দুই দেশের সরকারি পর্যায়ে ‘বিল্ড অপারেশন অ্যান্ড ট্রান্সফার’ ভিত্তিতে এই সেতু নির্মাণ করা হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

প্রদীপ চৌধুরী
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply