মাওয়ায় অসহনীয় জানজট ॥ যাত্রী দুর্ভোগ চরমে

শুক্রবার মাওয়ায় অসহনীয় যানজটের কারণে যাত্রী দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। একমুখী যানবাহনের দখলে মহাসড়ক চলে যাওয়ায় তীব্র যানজট আড়াই কি.মি. দূরে ছড়িয়ে পড়ে। ঘন্টার পর ঘন্টা যানজটে স্থবির হয়ে ছিল মাওয়া চৌরাস্তা এলাকা। যানজট নিরসনে প্রশাসনের তেমন কোন পদক্ষেপ চোখে পড়েনি। আড়াই কি.মি. দূর হতে পায়ে হেটে লঞ্চ ঘাট পৌঁছতে যাত্রীদের দুর্ভোগ ছিল চোখে পড়ারর মত। বিশেষ করে শিশু ও মহিলা যাত্রীদের দুর্ভোগ ছিল অবর্নণীয়।

শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দির থাকায় সকাল থেকেই অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ ছিল। সরু রাস্তার কারণে বাসগুলো নতুন লঞ্চ ঘাটে না গিয়ে চৌরাস্তায় যাত্রী নামানোর ফলে সকাল থেকেই চৌরাস্তার গোল চক্করে যানজট লেগে যায়। এ যানজট বেলা বাড়ার সাথে সাথে আড়াই কি.মি. দূরে মেদিনী মন্ডল খানবাড়ি ছাড়িয়ে যায়। সেখান থেকে দক্ষিনবঙ্গগামী যাত্রীরা পায়ে হেটে মাওয়া লঞ্চ ঘাটে গিয়ে লঞ্চে পদ্মা পারি দেয়। একইভাবে ঢাকার যাত্রীরা লঞ্চ থেকে নেমে পায়ে হেটে আড়াই কি.মি. দূরে বাসে চড়ে ঢাকায় রওনা দেয়। এত যাত্রী দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে । মহিলা যাত্রীদের দেখা গেছে দুধের শিশুদের কোলে করে তপ্ত রোদে আড়াই কি.মি. পথ পায়ে হেটে অসহনীয় কষ্টে কেঁদে ফেলেছে। আবার বৃদ্ধরাও হাটতে হাটতে পথে কয়েক দফা বসে বিশ্রাম নিয়েছেন। মাওয়া চৌরাস্তা হতে মহাসড়টি দক্ষিনবঙ্গগামী যানবাহন দখল করে রেখেছিল। মাওয়া থেকে কোন যানবাহন ঢাকার দিকে বের হতে পারছিল না। কারণ ৩-৪ টি লেনই মাওয়ামুখী যানবাহনে ঠাসা ছিল। মহাসড়কের পাশে পায়ে হাটা পথ পর্যন্ত দখল হয়ে গিয়েছিল যানবাহনে। তাই যাত্রীদের পায়ে হেটে লঞ্চ ঘাটে যেতেও হোচট খেতে দেখা গেছে।

যানবাহন নিরসনে যাদের দায়িত্ব সেই ট্রাফিক পুলিশকে মাঝে মধ্যে দেখা গেলেও তাদের ভূমিকা ছিল অনেকটা নিরব। হাইওয়ে ট্রাফিক পুলিশ সার্জেন্ট সাহাদাৎ হোসেনকে খুজে পাওয়া গেলো একটি রেন্ট-এ কারের দোকানে। যানজট সম্পর্কে তিনি জানালেন, বাসগুলো পাকিং ইযার্ডে না গিয়ে চৌরাস্তার গোল চক্করে যাত্রী নামানোর ফলে যানজট বেধে যাচ্ছে। এতে আমাদের তেমন কিছু করার নেই। স্থানীয় মেদিনী মন্ডল ইউপি আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রাসেদুল হক মুন্না বলেন, কতিপয় পরিবহন মালিক তাদের স্বার্থ হাসিল করার জন্য পরিকল্পিতভাবে মাওয়া চৌরাস্তায় যানবাহন দিয়ে কৃত্রিম যানজটের সৃষ্টি করছে।তবে ঢাকা-মাওয়া বাস মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহবায় আলী আকবর এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, যানজটের কারণে আমাদের বাসের ট্রিপ সংখ্যা কমে গেছে। আমরা ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। যাত্রী থাকা সত্ত্বেও আমরা বাস নিয়ে চলাচল করতে পারছি না। ব্যবসার ক্ষতি করে কৃত্রিম যানজট সৃষ্টি করে আমাদের লাভ কি? আমাদের বাস চললে যাত্রীও বাসে উঠবে। আমরাও পয়সা পাব।

উল্লেখ্য মাওয়া ফেরি ঘাট হতে লঞ্চ ঘাটকে স্থানান্তর করে চৌরাস্তা বরাবর পদ্মায় গত ৫ মে থেকে নতুন লঞ্চ ঘাট চালু করার পর হতে এখানে যানজটে নাকাল অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। এদিকে যানজট নিরসনে সরুরাস্তাকে আরো প্রশস্ত করার কাজ ও পাকিং ইয়ার্ডের বাকী জায়গায় ব্রিক সোলিংয়ের কাজ শুক্রবার থেকে আবারও চালু করা হয়েছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply