মুন্সীগঞ্জে টাউন ইন্সপেক্টর আকরামের কান্ড!

মোজাম্মেল হোসেন সজল: বিনে পয়সায় তরমুজ খেতে গিয়ে মুন্সীগঞ্জে টাউন হালদার সাব-ইন্সপেক্টর আকরামউজ্জামান বিক্ষুব্ধ জনতার ধাওয়া খেয়েছেন। শহরের পুরাতন বাস ষ্ট্যান্ড এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশের এ ঘটনাটি শহরে চাউর হলে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়। প্রচন্ড তাপদাহে শহরের পুরাতন বাস ষ্ট্যান্ড এলাকায় ফুটপাতে বসে মৌসুমী ফল বিক্রি করছিলেন এক বিক্রেতা। ইন্সপেক্টরের ভয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই ফল বিক্রেতা জানান, দুপুরে তাপদাহের মধ্যে পুলিশের ওই সাব-ইন্সপেক্টর ফুটপাতে একটি তরমুজ নিতে আসেন। প্রথমে তিনি তরমুজের দর জানতে চান। এ সময় দেড়শ’ টাকা দাম চাওয়াতে টাউন হালদার বিক্রেতার প্রতি তেলে-বেগুনে চটে যান। পরে টাকা না দিয়েই নিজের মোটরবাইকে তরমুজ খানি মজুদ করেন। এতে তরমুজ বিক্রেতা দাম চুকানোর কথা বললে- টাউন ইন্সপেক্টর আকরামউজ্জামান জেলের ভাত খাইয়ে ছাড়বেন বলে ভয় দেখান। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে পুলিশের টাউন ইন্সপেক্টর ফলের দোকানিকে টেনে-হেচড়ে মোটরবাইকে উঠানোর প্রচেষ্টা করেন। এ দৃশ্য পথচারিসহ আশপাশের লোকজন দেখতে পেলে প্রথমে তাকে শান্ত হতে বলেন। কথা না শুনলে পরে তারা ক্ষুব্ধ হয়ে ইন্সপেক্টরের উপর চড়াও হয়ে তাকে মারতে উদ্যত হন। অবস্থা বেগতিক দেখে মুহুর্তের মধ্যে তিনি মোটরবাইকে চড়ে ঘটনাস্থল থেকে কেটে পড়েন।

উল্লে­খ্য, এ টাউন ইন্সপেক্টর আকরামউজ্জামান শহরের সুপার মার্কেট ও পুরাতন কাচারীতে ফুটপাতে থাকা হালিম, চটপটি ও পান-সিগারেটের দোকানগুলোতে মাসোহারা ও সাপ্তাহিক চাঁদা দাবি করে বেড়াচ্ছেন বলে একাধিক দোকানি দাবি করেন। চাঁদা না দিলে দোকানিদের জেল-হাজতে প্রেরণ করার ভয়-ভিতি দেখাচ্ছেন। এ বিষয়ে দোকানিরা স্থানীয় সাংবাদিকদের শরণাপন্ন হলে মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে জেলা পুলিশ সুপার মো. শাহাবুদ্দিন খান ও সদর থানার অফিসার মো. আবুল বাশারকে টাউন ইন্সপেক্টর আকরামউজ্জামানের এ সব কৃতকর্ম সম্পর্কে অভিযোগ জানানো হয়েছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
==============

ইন্সপেক্টরকে জনতার ধাওয়া!

বিনা পয়সায় তরমুজ খেতে গিয়ে মুন্সীগঞ্জে টাউন ইন্সপেক্টর আকরামউজ্জামান বিক্ষুব্ধ জনতার ধাওয়া খেয়েছেন। শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, প্রচণ্ড তাপদাহে শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ফুটপাতে মৌসুমী ফল বিক্রি করছিলেন এক বিক্রেতা। ইন্সপেক্টরের ভয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিক্রেতা জানান, দুপুরে পুলিশের ওই ইন্সপেক্টর ফুটপাতে একটি তরমুজ নিতে আসেন। প্রথমে তিনি তরমুজের দর জানতে চান। এ সময় ১৫০ টাকা দাম চাইলে ইন্সপেক্টর বিক্রেতার প্রতি চটে যান। পরে টাকা না দিয়েই তরমুজ নিয়ে মোটরবাইকে উঠে পড়েন। এতে বিক্রেতা দাম চাইলে ইন্সপেক্টর জেলের ভাতের ভয় দেখান। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ইন্সপেক্টর বিক্রেতাকে টেনে-হিঁচড়ে মোটরবাইকে ওঠানোর চেষ্টা করেন।

পথচারীসহ আশপাশের লোকজন প্রথমে তাকে শান্ত হতে বলেন। কথা না শুনলে পরে তারা ক্ষুব্ধ হয়ে ইন্সপেক্টরের ওপর চড়াও হয়ে তাকে ধরতে উদ্যত হন। অবস্থা বেগতিক দেখে মুহুর্তের মধ্যে তিনি মোটরবাইকে চড়ে কেটে পড়েন।

উল্লে¬খ্য, ইন্সপেক্টর আকরামউজ্জামান শহরের সুপার মার্কেট ও পুরাতন কাচারিতে ফুটপাতে থাকা হালিম, চটপটি ও পান-সিগারেটের দোকানে মাসোহারা ও সাপ্তাহিক চাঁদা দাবি করে বেড়াচ্ছেন বলে একাধিক দোকানীরা দাবি করেন। চাঁদা না দিলে দোকানিদের হাজতে পাঠানোর ভয় দেখান।

দোকানীরা স্থানীয় সাংবাদিকদের শরনাপন্ন হলে মুন্সীগঞ্জ প্রেস ক্লাবের পক্ষ থেকে জেলা পুলিশ সুপার মো. শাহাবুদ্দিন খান ও সদর থানার ওসি মো. আবুল বাশারকে ইন্সপেক্টর আকরামউজ্জামানের এ কৃতকর্ম সম্পর্কে অভিযোগ করেন।

বার্তা২৪

One Response

Write a Comment»
  1. ai harami k akhoni suspend kore uchit sikhkha deya dorkar.
    jate bina poysai tarmuj khayar sadh mite jai.

Leave a Reply