পদ্মা সেতু নির্মাণে বাজেটে থাকবে ৪০০০ কোটি টাকা

আশরাফ খান: পদ্মা সেতু নির্মাণে আগামী অর্থবছরে সরকার ৪ হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ রাখতে যাচ্ছে। মালয়েশিয়ার সঙ্গে চুক্তি সম্পাদনের ব্যাপারে খসড়া চুক্তির খুঁটিনাটি চূড়ান্ত করতে উচ্চ পর্যায়ের এক প্রতিনিধি দল ২৭শে মে ঢাকা আসছে। নেতৃত্ব দেবেন মালয়েশিয়া সরকারের বিশেষ দূত দাতো সেরি এস সামি ভেরু, সঙ্গে থাকবেন কনসোর্টিয়ামের সদস্যরা এবং চীনের ইঞ্জিনিয়ারিং বিশেষজ্ঞ দল। তাদের ঢাকা অবস্থানকালেই খসড়া চুক্তির খুঁটিনাটি চূড়ান্ত করে চুক্তি সম্পাদন করতে চাচ্ছে মালয়েশিয়া। ২৮শে মে তারা যোগাযোগমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হবেন। এদিকে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে সম্পাদিত ঋণ চুক্তির কার্যকারিতার বর্ধিত মেয়াদ রয়েছে জুন পর্যন্ত। এই মেয়াদ শেষেই সরকার মালয়েশিয়ার সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন করবে।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের ব্যাপারে বিশ্বব্যাংক নমনীয়তা প্রদর্শন করছে। তবে অর্থ ছাড়ে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ব্যাপারে সুস্পষ্ট করে কিছু বলছে না। সর্বশেষ তারা সেতু বিভাগকে জানিয়েছে যে, আগামী জুনে তারা জানাবে। নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে জুনেই তারা অর্থ ছাড় করবে এমন নিশ্চয়তা দিচ্ছে না। সেতু বিভাগের একজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা মানবজমিনকে বলেন, বিশ্বব্যাংক আগের কঠোর অবস্থান থেকে কিছুটা সরে এসেছে বলেই মনে হয়। তবে প্রকল্প বাস্তবায়ন পর্যায়ে তারা নতুন করে কোন শর্ত আরোপ, মাঝপথে অর্থায়ন স্থগিত রাখে কিনা সে সংশয় সরকারের মধ্যে প্রবলভাবেই রয়েছে। কোন রকম ঝুঁকিতে থাকতে চাচ্ছে না সরকার। আবার বিশ্বব্যাংক যাতে অসন্তুষ্ট না হয় তাও বিশেষ বিবেচনায় রাখা হয়েছে। সরকারি মহল আস্থাশীল, বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে পদ্মা সেতুর চুক্তি বাতিল করা হলেও তাদের অর্থায়নে চলমান প্রকল্পসমূহে এর কোন প্রভাব পড়বে না।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের চিফ ইঞ্জিনিয়ার শফিকুল ইসলাম মানবজমিনকে বলেন, মালয়েশিয়ার উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সবকিছু চূড়ান্ত করা হবে। এ পর্যায়ে চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। পদ্মা সেতু সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকার। সরকারের মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকেই এ প্রকল্প বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। দক্ষিণ ও দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের জনসাধারণের সুদীর্ঘ লালিত স্বপ্নের সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে সরকারের দিক থেকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হলেও প্রধান দাতা সংস্থা বিশ্বব্যাংক শুরু থেকেই বিষয়টি ততটা গুরুত্বের সঙ্গে নেয়নি। সরকার তার শেষ বছরে প্রকল্পটির বাস্তব নির্মাণ কাজ শুরু করতে চায় রাজনৈতিক অঙ্গীকার পূরণ করার স্বার্থে। এজন্য আগামী বাজেটে চার হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব রয়েছে।

মালয়েশিয়ার প্রস্তাব অনুযায়ী পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রায় ২৪ হাজার কোটি টাকার প্রয়োজন হবে। মালয়েশিয়া সরকার নিজস্বভাবে এবং তার দেশের ও আবুধাবির বেসরকারি উদ্যোক্তাদের নিয়ে কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমে ১৮ হাজার ৪শ’ কোটি টাকার যোগান দেবে। ৫ হাজার ৬শ’ কোটি টাকা দেবে বাংলাদেশ সরকার। মালয়েশিয়া পর্যাপ্ত অভিজ্ঞতাসম্পন্ন নয় বলে অভিজ্ঞ চীনা বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলীদের ইঞ্জিনিয়ারিং সহায়তা নেবে। নির্মিত হওয়ার পর ৫০ বছর তারা সেতুর মালিকানা, রক্ষণাবেক্ষণ ও টোল আদায়ের অধিকার চেয়েছিল। বাংলাদেশ থেকে মালিকানা, রক্ষণাবেক্ষণ ও টোল আদায়ের সময় ৩০ বছর নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়। যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের মালয়েশিয়া সফরকালে এ প্রস্তাবের পাশাপাশি আরও ২০ বছর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নিতে মালয়েশিয়া সরকারকে অনুরোধ করেন। বৃহৎ এ প্রকল্প নিয়ে সম্ভাব্য ঝুঁকি এড়াতে মালয়েশিয়া চীনের বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলীদের দিয়ে ৩০ বছর টোল আদায়ের সময়সীমার পরও ২০ বছর রক্ষণাবেক্ষণ করতে সম্মত হয়েছে। এজন্য তারা কোন খরচ নেবে না। টোলের হার নির্ধারণের বিষয়টি ঝুলে আছে। মালয়েশিয়ার প্রতিনিধিদের ঢাকা সফরকালে তা চূড়ান্ত হবে। বঙ্গবন্ধু-যমুনা সেতুর অভিন্ন হারে টোল নির্ধারণের প্রস্তাব করেছে মালয়েশিয়া। সরকার তাতে রাজি না হয়ে যানবাহন ভেদে টোল কমানোর প্রস্তাব করেছে। বছর বছর যান চলাচল বৃদ্ধির সঙ্গে টোলের পরিমাণ কমিয়ে আনার কথা বলেছে। সেতু প্রকল্পের জন্য যেসব সরঞ্জামাদি আমদানি করা হবে সেগুলো শুল্কমুক্ত করার দাবি করেছে মালয়েশিয়া। যোগাযোগ মন্ত্রণালয় তাতে রাজি হয়নি। তবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের কিছুটা সুবিধা দেয়ার কথা বলা হয়েছে।

মানবজমিন

Leave a Reply