দু’গ্রুপের দফায় দফায় সংঘর্ষে জুঁইত্যা-টেঁটাবিদ্ধসহ আহত অর্ধশতাধিক

ধলেশ্বরী নদীর বালু মহাল ও বাজারের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার বালুরচর-মোল্লাকান্দি এলাকায় শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত দু’গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে ৭ জন জুঁইত্যা-টেঁটাবিদ্ধসহ উভয় গ্রুপের অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। এ সময় উভয় গ্রুপের ১৫টি বসত ঘর ভাংচুর করা হয়েছে। বালুরচর ইউপি নির্বাচনের পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও একটি গ্রুপের প্রধান শাহবাজ সরকারের মাথা ফেটে গেলে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় তাকে সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এদিকে, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ৭ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ ও শর্টগানের ১৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। জেলা সদর থেকে এক প্লাটুন অতিরিক্ত রিজার্ভ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে সেখানে। এএসপি সার্কেল সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ দুপুর ১ টার দিকে পরিস্থিতি শান্ত করেন। আহতদের মধ্যে টেঁটাবিদ্ধ খোকন সরকার (৩০), জামাল হোসেন (৪০), মাসুম বেপারী (২০), আমির হামজাকে (২২) ঢাকা মেডিকেলে ও মহসনিকে (৩২) পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জুঁইত্যা বিদ্ধ নুর হোসেন (৩০), হারুন (২০), শাহীন (২৫), আমির হামজা (২২), রাজ (২১) ও জসিমকে (২৩) ঢাকার বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে গোপনে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আহত শরীফ সরকার (১৭), আসাদ সরকার (৩৮), শারমিন (১৮), রুবেল (২০), বাদল সরকাারকে (২৯) সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও স্থানীয় প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, ধলেশ্বরী বালু মহাল থেকে ড্রেজারের মাধ্যমে উত্তোলন করে ভলগেটে ভরাট করে সকাল ৯ টার দিকে বালুরচর-মোল্লাকান্দি গ্রামে একটি জমিতে বালু ফেলা শুরু করে সুরুজ্জামানের লোকজন। এতে পরাজিত ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহবাজ সরকারের লোকজন সেখানে গিয়ে বালু ফেলায় বাঁধা দেন। এতে উত্তেজনা দেখা দিলে সুরুজ্জামানের লোকজন প্রতিপক্ষ গ্রুপের প্রধান শাহবাজ সরকারের মাথা ফাঁটিয়ে দেয়। এ ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে উভয় গ্রুপের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের লোকজন বল্লম, জুঁইত্যা, টেঁটা ও সরকিসহ দেশীয় তৈরী অস্ত্রসস্ত্র ব্যবহার করে। পুলিশের উপস্থিতিতে সেখানে অন্তত ৪ দফায় এ সংঘর্ষ হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী দাবী করেন।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
=============

সিরাজদিখানে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে টেঁটাবিদ্ধসহ আহত অর্ধশতাধিক

এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার বালুরচর-মোল্লাকান্দি এলাকায় দু’গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে টেঁটাবিদ্ধসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে।

শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত স্থানীয় প্রভাবশালী শাহবাজ সরকার ও সুরুজ্জামানের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষর ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল ও শর্টগানের ফাঁকা গুলি ছুড়ে পুলিশ। সংঘর্ষ চলাকালে দু’পক্ষই দেশি অস্ত্র টেঁটা, জুঁইত্যা, বল্লম ও সরকি ব্যবহার করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করেছে প্রশাসন।

গুরুতর আহত শাহবাজ সরকারকে সিরাজিদখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়। অপর আহতদের মধ্যে খোকন সরকারকে ঢাকা মেডিক্যাল ও মহসিনকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে এবং অন্যান্যদের বিভিন্ন স্থানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) সাইফুল ইসলাম ঘটনাস্থল থেকে জানান, এলাকার আধিপত্য বিস্তার নিয়ে উভয় গ্রুপের মধ্যে কয়েক দিন ধরেই বিরোধ চলে আসছিল।

এরই জের ধরে শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ৩-৪ দফায় এ সংঘর্ষ চলে। এখন পরিস্থিতি অনেকটা শান্ত আছে বলে জানান তিনি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
=============

সিরাজদিখানে দ’ুগ্র“পের সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

ব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার বালুচর বাজার ও মোল্লাকান্দি গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গতকাল শনিবার দ্রুগ্র“পের ব্যাপক সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে সাত জনের অবস্থা আশংকাজনক। ঘটনার পর থেকে বালুচর বাজার এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, ওই গ্রামের শাহাবাজ সরকারের সঙ্গে একই গ্রামের সুরুজ্জামান সরকারের বিরোধ ছিল। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে চলা এ বিরোধের জের ধরে সুরুজ্জামানের ভাগ্নে মজিদ মিয়ার ছেলে আসলাম (টেনু) খাবারের হোটেলে হাসমত আলী সরকারের ছেলে খোকন সরকারকে (৩২) মারধর করে।

এ খবর জানাজানি হলে শাহাবাজ সরকারের লোকজন ঘটনাস্থলে এলে সুরুজ্জামান সরকারের লোকজন তাদের ওপর ফের হামলা চালায়। একপর্যায়ে দুগ্র“পের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মুখোমুখি সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। প্রায় পাঁচ ঘণ্টা স্থায়ী এ সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক লোক আহত হন। আহতদের মধ্যে শাহাবাজ সরকার (৫৫), খোকন সরকার (৩২),মহসিন বাউল (৩৫), জামাল হোসেন (৪০), নূর হোসেন (৩০), মাসুম বেপারী (২০), আমীর হামজা (২২) আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত আলেক চান (৩৫) , শাহীন (৩০), সোহেল সরকার (৩১) সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সুরুজ সরকার গ্র“পের শরীফ সরকার (১৭), আসাদ সরকার (৩৮), শারমিন (১৮), রুবেল (২০), বাদল সরকার (৩০), রাজু সরকার (২২) গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ অন্যান্য ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মোঃ মেহেদী হাসান জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে যান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে না আনতে পারলে ফাঁকা গুলি ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে পরে মুন্সীগঞ্জ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন মুহূর্তে আবারও নতুন করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে।

Leave a Reply