পদ্মা সেতুতে বরাদ্দ রেখে এডিপি অনুমোদন

পদ্মা সেতুর জন্য ৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দসহ ২০১২-১৩ অর্থবছরের জন্য ৫৫ হাজার কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি অনুমোদন হয়েছে। শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের সভায় (এনইসি) তা অনুমোদন হয়।

পরিকল্পনা কমিশন ৫৪ হাজার ৩০০ কোটি টাকা এডিপির প্রস্তাব দিলেও চূড়ান্ত অনুমোদনে তা ৭০০ কোটি টাকা বেড়েছে।

পরিকল্পনা সচিব ভূইয়া শফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, “কিন্তু বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে চাহিদা বেশি হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তা থেকে ৭০০ কোটি টাকা বাড়িয়ে ৫৫ হাজার কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

আগামী অর্থবছরের এডিপিতে মোট ১ হাজার ৩৭টি প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এর মধ্যে পদ্মা সেতুর জন্য ৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে বলে জানান সচিব।

এডিপিতে মোট বরাদ্দ ৫৫ হাজার কোটি টাকার মধ্যে স্থানীয় উৎস থেকে আসবে ৩৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা, বিদেশি সহায়তা ধরা হয়েছে ২১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা।

নতুন এডিপি চলতি ২০১১-১২ অর্থবছরের মূল এডিপি’র চেয়ে ৯ হাজার কোটি টাকা (১৯ দশমিক ৫৬ শতাংশ) এবং সংশোধিত এডিপি’র চেয়ে ১৪ হাজার কোটি টাকা বেশি।

চলতি অর্থবছরে মূল এডিপি ছিল ৪৬ হাজার কোটি টাকা। বাস্তবায়ন সন্তোষজনক না হওয়ায় গত ১ এপ্রিল তা ৪১ হাজার কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়।

সফিকুল ইসলাম জানান, প্রস্তাবিত এডিপি’র চেয়ে যে ৭০০ কোটি টাকা বেড়েছে তা মূলত কৃষি, যোগাযোগ ও স্থানীয় সরকার খাতের উন্নয়নে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, অনুমোদিত এডিপিতে স্থানীয় সম্পদের পরিমাণ ৬১ শতাংশ। আর প্রকল্প সাহায্য হিসেবে ৩৯ শতাংশ আসবে বলে ধরা হয়েছে।

সফিকুল ইসলাম জানান, নতুন এডিপিতে মোট প্রকল্পের সংখ্যা ১ হাজার ৩৭টি। এর মধ্যে ২০১১-১২ এর সংশোধিত এডিপি থেকে স্থানান্তরিত প্রকল্পের সংখ্যা ১ হাজার ২টি এবং বরাদ্দসহ নতুন অনুমোদিত প্রকল্প ৩৫টি।

খাতওয়ারি বরাদ্দের দিকে দিয়ে চলতি এডিপির মতোই সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বিদ্যুৎ খাতে। এবার এ খাতে সাত হাজার ৯১১ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে, যা মোট বরাদ্দের ১৪ দশমিক ৫৭ শতাংশ এবং চলতি এডিপি’র থেকে ৭৩৯ কোটি টাকা বেশি।

এছাড়া বেশি বরাদ্দপ্রাপ্ত অন্য প্রকল্পগুলো হচ্ছে- পরিবহন খাতে ৭ হাজার ৭৬৮ কোটি টাকা (মোট বরাদ্দের ১৪.৩০%), শিক্ষা ও ধর্ম- ৬ হাজার ৩৩৫ কোটি (১১.৬৭%), পল্লী উন্নয়ন ও পল্ল¬ী প্রতিষ্ঠান- ৬ হাজার ১৫৩ কোটি (১১.৩৩%), ভৌত পরিকল্পনা, পানি সরবরাহ ও গৃহায়ন- ৫ হাজার ৩৩৬ কোটি (৯.৮৩%), কৃষি ও পানি সম্পদ- ৫ হাজার ১২৫ কোটি (৯.৪৪%) এবং স্বাস্থ্য ও পুষ্টি- ৪ হাজার ৬৩৬ কোটি টাকা (৮.৫৪%)।

বিদ্যুৎ খাতসহ এ সাতটি খাতে বরাদ্দের পরিমাণ এডিপির মোট বরাদ্দের ৭৬ শতাংশ।

নতুন এডিপিতে তথ্য প্রযুক্তি খাতে (আইসিটি) ২ হাজার ৩৩৫ কোটি ৭৬ লাখ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এর মধ্যে স্থানীয় মুদ্রা ৮৮৪ কোটি ৬২ লাখ টাকা এবং প্রকল্প সাহায্য ১ হাজার ৪৫১ কোটি ১৪ লাখ টাকা।

এ অর্থ বরাদ্দের পেছনে যুক্তি উপস্থাপন করে প্রস্তাবিত এডিপির সার সংক্ষেপে বলা হয়েছে, “স্বল্পতম সময়ে দেশের জনগণকে প্রত্যাশিত সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নিশ্চিত করতে সর্বোপরি ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের অভিপ্রায়ে এ অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়েছে।”

খাতওয়ারি বরাদ্দের বাইরেও স্থানীয় পর্যায়ে উন্নয়ন সহায়তা খাতে ৩ হাজার ২৫৭ কোটি ১১ লাখ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে; যার মধ্যে ১ হাজার ৮৭০ কোটি টাকা স্থানীয় মুদ্রা। আর ১ হাজার ৩৮৭ কোটি ১১ লাখ টাকা প্রকল্প সাহায্য।

স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতায় পাঁচটি উন্নয়ন সহায়তা খাতে মোট ১ হাজার ৫১৭ কোটি টাকা থোক বরাদ্দ রাখা হয়েছে। সিটি করপোরেশন, জেলা পরিষদ, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদসহ পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়নের আওতায় বিভিন্ন প্রকল্পে এই অর্থ ব্যয় করা হবে।

এর বাইরে থোক বরাদ্দ হিসেবে (বিশেষ প্রয়োজনে উন্নয়ন সহায়তা) ১ হাজার ৭৪০ কোটি টাকা রাখা হয়েছে।

শেরে বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত বৈঠকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, পরিকল্পনামন্ত্রী এ কে খন্দকার, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীসহ সরকারের অন্য মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সচিব, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply