লবণ ব্যবসাকে শিল্পে রূপান্তরের রূপকার খবির উদ্দিন মোল্লা

ইসমাঈল হুসাইন ইমু : সফল ব্যবসায়ী ও শিল্প উদ্যোক্তা খবির উদ্দিন মোল্লা। জীবনের অধিকাংশ সময় কেটেছে ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে। পারিবারিক স্বল্প পরিসরের ব্যবসা থেকে আজ তিনি একজন সফল শিল্পোদ্যোক্তা।

বিগত ৬০ বছরের অধিক সময় খবির উদ্দিন মোল্লা ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন। চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে দেশ বিভাগের আমলে আমদানি করা পণ্যের বাজারজাতের মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করেন। পরে লৌহজাত ব্যবসার জন্য কারখানা স্থাপন করেছিলেন। কিন্তু সে ব্যবসায় সফলতা না আসায় স্বাধীনতার পর সত্তর দশকে নারায়ণগঞ্জের নিতাইগঞ্জ আবারও ট্রেডিং ব্যবসা শুরু করেন। গত আশির দশকে ভোজ্য লবণের উন্নত মান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে স্থাপন করেন মোল্লা সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ, যা ইউনিসেফের সহায়তায় দেশের অন্যতম আয়োডাইজড লবণ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে। তাহার প্রতিষ্ঠিত আয়োডাইজড লবণ একটি মডেল হিসেবে বাংলাদেশের লবণ শিল্পের মধ্যে আত্মপ্রকাশ করেছে। পাশাপাশি তৎকালীন জিলবাংলা আসাম বেঙ্গল সিমেন্ট ট্রেডিং করতে গিয়ে সিমেন্ট কারখানা তৈরি করার স্বপ্ন দেখেন। এর ধারাবাহিকতায় ১৯৯৬ সালে ঢাকার পশ্চিম মুক্তারপুরে মাত্র ৬০০ মেট্রিক টন ক্ষমতাসম্পন্ন একটি সিমেন্ট কারখানা স্থাপনের উদ্যোগ নেন, যার বর্তমান দৈনিক উৎপাদনক্ষমতা ৬ হাজার মেট্রিক টন। একই সঙ্গে উন্নত আয়োডাইজড লবণ উৎপাদনের লক্ষ্যে দেশীয় কাঁচামালের ওপর ভিত্তি করে নারায়ণগঞ্জের ধর্মগঞ্জে প্রতিদিন ৩০০ টন লবণ উৎপাদনের লক্ষ্যে উন্নত প্রযুক্তিসম্পন্ন ভেক্যুয়াম ইভাপ্ররেশন পদ্ধতিতে লবণ কারখানা স্থাপন করেন। দেশের মোট ভোজ্য লবণের চাহিদার বিপরীতে ১০ শতাংশ মোল্লা সল্ট সরবারহ করে থাকে। এ ছাড়া সিমেন্ট ও লবণ উৎপাদন করার জন্য আরও বেশ কয়েকটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন তিনি।

তার প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো এমআই সিমেন্ট ফ্যাক্টরি লিমিটেড (ক্রাউন সিমেন্ট), ক্রাউন পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড, ক্রাউন পলিমার ব্যাগিং লিমিটেড, ক্রাউন মেরিনারস্ লিমিটেড, ক্রাউন রেডিমিক্স, মোল্লাা সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ (মোলা সল্ট), মোল্লা অ্যান্ড ব্রাদার্স কোম্পানি, মোলা সল্ট (ট্রিপল রিফাইন্ড) ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড (সুপার সল্ট) ও মোল্লা টাওয়ার শপিং কমপ্লেক্স।

এ শিল্পোদ্যোক্তার কারখানায় প্রত্যক্ষভাবে আড়াই হাজার লোক এবং পরোক্ষভাবে ১০ হাজার লোক জড়িত। সিমেন্ট শিল্পের ক্ষেত্রে দেশের চাহিদা পূরণ করে বিদেশেও রপ্তানি করায় একাধিকবার পেয়েছেন রপ্তানি ট্রফি (স্বর্ণ)।

একজন সফল শিল্পোদ্যোক্তা হিসেবে ক্রাউন সিমেন্ট পাবলিক শেয়ারে পরিণত হয়। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে তার ব্যাপক অবদান রয়েছে। প্রতি বছর তার বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ১০০ কোটি টাকারও বেশি রাজস্ব সরকারি কোষাগারে জমা করা হয়।

খবির উদ্দিন মোল্লা ব্যবসা ও শিল্পপ্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ একাধিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। একই সঙ্গে মেধাবী ছাত্রদের বৃত্তি প্রদান করেন তিনি। এ ছাড়া প্রতি বছর চ্যানেল আই-এর ক্ষুদে গানরাজদেরও পৃষ্ঠপোষকতা করে থাকেন। তার আর্থিক ব্যবস্থাপনায় নিজ গ্রামে হাসপাতাল স্থাপন করেছেন। সেখানে গরিব লোকেরা ওষুধসহ বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা পেয়ে থাকেন। তা ছাড়া খেলাধুলায়ও তার অবদান রয়েছে। আর্মি গলফ্ ক্লাবে পৃষ্ঠপোষকতা করেন তিনি। বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতায় তার শিল্পপ্রতিষ্ঠানের ঋণ যথাসময়ে পরিশোধ করে থাকেন। দেশের বিভিন্ন ব্যাংক তাকে একজন আইকন হিসেবে অবিহিত করে থাকে। ব্যক্তিজীবনে ২ ছেলে, ৫ মেয়ের জনক তিনি একজন নিভৃতচারী, প্রচারবিমুখ, ধার্মিক ও সদালাপী রাজনীতিবিমুখ মানুষ।

আমাদের সময়

Leave a Reply