ধলেশ্বরী নদীতে অল্পের জন্য রক্ষা পেলো ৩৫০ লঞ্চযাত্রী

অল্পের জন্য রক্ষা পেলো ঢাকা থেকে পাটেরহাটগামী এমভি কোকো-১ নামের যাত্রীবাহী লঞ্চের সাড়ে তিন শতাধিক যাত্রী। ধলেশ্বরী নদীর কাটপট্রি এলাকায় তলা ফেটে গেলে পশ্চিম মুক্তারপুরে শাহ সিমেন্ট ফ্যাক্টরি সংলগ্ন নদীর তীরে লঞ্চটি নোঙ্গর করলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পায় যাত্রীরা।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

পরে ঢাকা থেকে কোকো-৫ নামের অপর একটি যাত্রীবাহী লঞ্চ দিয়ে সাড়ে তিন শতাধিক যাত্রী আবারও পাটেরহাটের উদ্দেশে রওনা হয়।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল বাসার জানান, ঢাকা থেকে পাটেরহাট যাওয়ার পথে সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার কাটপট্রি লঞ্চ ঘাটে ভেড়ানোর সময় লোহার সঙ্গে বাড়ি খেয়ে কোকো-১ লঞ্চের তলা ফেটে যায়।

সেখানে কোনোরকম মেরামত করে রাত ১১টার দিকে আবারও থেকে পাটেরহাটের উদ্দেশে রওনা হয় কোকো-১। পথিমধ্যে ধলেশ্বরী নদীর মুক্তারপুর সেতুর কাছে লঞ্চটির তলা দিয়ে আবারও পানি ঢুকতে শুরু করে।

এ সময় সাড়েং বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়ে ধলেশ্বরী নদীর শাহ সিমেন্ট ফ্যাক্টরি সংলগ্ন নদীর তীরে লঞ্চটি নোঙ্গর করেন। একে একে যাত্রীরা লঞ্চ থেকে নেমে তীরে অবস্থান নেয়।

ওসি আরও জানান, ঢাকায় তলব করার পর রাত সাড়ে ১২টার দিকে এমভি কোকো-৫ নামের অপর একটি লঞ্চ মুন্সীগঞ্জের পশ্চিম মুক্তারপুরের ঘটনাস্থল ধলেশ্বরী নদীর তীরে যায়। এ সময় দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পাওয়া সাড়ে তিন শতাধিক যাত্রী কোকো-৫ পাটেরহাটের উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

কাজী দীপু, জেলা প্রতিনিধি
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
=========================

মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরীতে ৩শ যাত্রী নিয়ে ঝড়ের কবলে কোকো-১

মুন্সীগঞ্জে বৃহস্পতিবার রাতে ঝড়ের কবলে পড়ে কোকো -১ লঞ্চের তলা ফেটে গেছে। লঞ্চটি সাড়ে ৩’শ যাত্রী নিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সদরঘাট টার্মিনাল থেকে বরিশালের পাতারহাটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। সাড়ে ৯ টায় মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে এলে লঞ্চটি ঝড়ের মুখে পড়ে। এ সময় সাবধানতার জন্য লঞ্চটি পাশের চর মুক্তারপুরের চরে উঠিয়ে দেয়। ঝড় থেমে যাবার পর রাত ১০ টায় লঞ্চটি গন্তব্যে রওয়ানা দেয়। চর থেকে নামানোর পরই লঞ্চটির তলা ফেটে পানি উঠতে থাকে। এ সময় যাত্রীরা চিৎকার শুরু করলে লঞ্চটি চর মুক্তারপুরের কাছে শাহ সিমেন্ট ফ্যাক্টোরীর কাছে নোঙ্গর করে রাখা হয়।

লঞ্চটির মাস্টার আবুল কালাম জানান,জুট দিয়ে তলা বন্ধ করে রাখা হয়েছে। পাম্প দিয়ে পানি সেচে ফেলা হচ্ছে । এখন আর তেমন পানি উঠছেনা। সদরঘাট থেকে এমভি কোকো -৫ নামের আরেকটি লঞ্চ ইতোমধ্যেই ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছে। কোকো-৫ লঞ্চটি পৌছার পর কোকো-১ এর যাত্রীদের উদ্ধার করে বশিালের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে।

এ এস আই মোনায়েম জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ অবস্থান করছে। যাত্রীদের নিরাপত্তার সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
================

ঝড়ের মধ্যে ৩শ’ যাত্রী নিয়ে লঞ্চের তলায় ফাটল

অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছেন বরিশালগামী কোকো-১ লঞ্চের তিন শতাধিক যাত্রী।

বৃহস্পতিবার রাতে মুন্সীগঞ্জে ঝড়ের কবলে পড়ে মাস্টার লঞ্চটি চরে উঠিয়ে দিলে এর তলা ফেটে যায়। ফেরার পথে পানি ওঠা শুরু করলে আতঙ্ক গ্রাস করে যাত্রীদের। পরে আরেকটি লঞ্চ গিয়ে যাত্রীদের নিরাপদে সরিয়ে আনে।

কোকো-১ এর মাস্টার আবুল কালাম জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সদরঘাট টার্মিনাল থেকে বরিশালের পাতারহাটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন তারা। রাত সাড়ে ৯টার দিকে মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে পৌঁছানোর পর তারা ঝড়ের মুখে পড়েন।

এ সময় সাবধানতার জন্য লঞ্চ মুক্তারপুরের চরে উঠিয়ে দেন মাস্টার। ঝড় থেমে যাওয়ার পর রাত ১০টার দিকে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার পরপরই লঞ্চের তলা দিয়ে পানি উঠতে থাকে।

এ সময় আতঙ্কিত যাত্রীরা চিৎকার শুরু করলে চর মুক্তারপুরের কাছে শাহ সিমেন্ট কারখানার কাছে নোঙর করে রাখা হয় লঞ্চটি। পরে সদরঘাট থেকে এমভি কোকো-৫ নামে আরেকটি লঞ্চ গিয়ে রাত ১টার দিকে কোকো-১ এর যাত্রীদের উদ্ধার করে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি আবুল বাশার জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে যাত্রীদের নিরাপদে সরিয়ে নেওয়ার বিষয়টি তদারকি করেছে।

মাস্টার আবুল কালাম বলেন, “জুট (মোট কাপড়) দিয়ে তলা বন্ধ করে রাখা হয়েছে। পাম্প দিয়ে পানি সেচে ফেলা হয়েছে। এখন আর তেমন পানি উঠছে না। দিনের বেলায় ডকে নিয়ে লঞ্চটি মেরামত করা হবে।”

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply