আওয়ামীলীগ নেতাকে সভাপতি করে যুবদলের কমিটি ঘোষণায় তোলপাড়

আরো এক নেতার পদত্যাগ
মোজাম্মেল হোসেন সজল: আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ হোসেন পুস্তিকে সদর উপজেলা যুবদলের সভাপতি নির্বাচিত করায় মুন্সীগঞ্জে বিএনপি ও তার সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। আওয়ামীলীগ নেতাকে সভাপতি করায় নতুন কমিটির আরো এক নেতা কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন। এ নিয়ে ঘোষিত কমিটির ৭ জনের মধ্যে ৩ জনই পদত্যাগ করলেন। আবার পদ পেয়েও সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদকসহ বাকি ৪ নেতা দারুন মনোুন্ন। শুক্রবার এ সংক্রান্ত দৈনিক আজকালের খবরে “মুন্সীগঞ্জে আওয়ামীলীগ নেতাকে সভাপতি করে যুবদলের কমিটি ঘোষণা”-শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, কোন সম্মেলন ছাড়া মুন্সীগঞ্জ শহরের উপকন্ঠ মুক্তারপুর পুরাতন ফেরীঘাট এলাকায় গত ২৩ মে বুধবার রাত ৭ টায় সদর উপজেলা যুবদলের কমিটি ঘোষণা করা হয়।আকষ্মিকভাবে আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ হোসেন পুস্তিকে যুবদলের সভাপতি করায় ৭ সদস্যের কমিটি ঘোষণার পরপরই স্বেচ্ছায় পদ থেকে পদত্যাগ করেন- নবগঠিত কমিটির সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান খান ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার হোসেন মন্ডল।তারা আরো জানান, আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ হোসেন পুস্তিকে সদর উপজেলা যুবদলের সভাপতি ঘোষণা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে দলীয় কর্মী-সমর্থকরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে সবাই যে যার গন্তব্য চলে যায়।

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক কমিটির ৬ নম্বর কার্যকরী সদস্য মোহাম্মদ হোসেন পুস্তিকে সভাপতি ও চরাঞ্চলের চরকেওয়ার ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক সরকারকে সাধারণ সম্পাদক ও একই ইউনিয়নের নূর হোসেনকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৭ সদস্যের যুবদলের এ কমিটি ঘোষণা করেন জেলা যুবদলের সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুল। এছাড়াও ঘোষিত কমিটিতে জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মজিবুর রহমান দেওয়ানকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান খানকে সহ-সভাপতি, সাজেদুর রহমান জনিকে যুগ্ন-সম্পাদক ও সদর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক আক্তার হোসেন মন্ডলকে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়। কমিটি ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই কমিটির সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান খান ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার হোসেন মন্ডল পদত্যাগ করার ঘোষণা দেন। এরপর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এ কমিটি থেকে পদত্যাগ করেন ঘোষিত কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মজিবুর রহমান দেওয়ান।তার পদত্যাগ পত্রের কপি সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের কাছে জমা দিয়েছেন বলে মজিবুর রহমান দেওয়ান জানিয়েছেন। পদত্যাগকারী নেতা মিজানুর রহমান ও আক্তার হোসেন মন্ডল বলেন, কোন আওয়ামীলীগ নেতার পেছনে রাজনীতি করা সম্ভব নয়। কোথা থেকে তাকে ধরে এনে সভাপতি নির্বাচিত করা হলো তাও আমরা জানি না। অপর পদত্যাগকারী নেতা মজিবুর রহমান দেওয়ান বলেন, যাদের মতা আছে তারা ওই আওয়ামীলীগ নেতাকে সভাপতি বানিয়েছেন। তার সঙ্গে আমার রাজনীতি করা মানান সই হয় না। সে আমার জুনিয়রও। আমরা এর পরিবর্তন চাই। অন্যথায় পরবর্তীতে আমরা আমাদের যা করনীয় তা করবো।

উল্লেখ্য, গত ১ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় যুবদল কেন্দ্র থেকে মুন্সীগঞ্জের ভফঙ্কর সন্ত্রাসী, মাদকাসক্ত তারিক কাশেম খান মুকুলকে জেলা যুবদলের সভাপতি করে আংশিক কমিটি ঘোষণা দেয়। এর পর ৩রা জানুয়ারি জেলা বিএনপি’র দলীয় কার্য়ালয়ে পদ বঞ্চিত দুই সভাপতি সুলতান আহমেদ ও বাবুল মিয়া গংয়ের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হলে মুকুলকে শহরের বিএনপি অধ্যুষিত দণি ইসলামপুর এলাকার নেতাকর্মীরা বেধড়ক পিটিয়ে জখম করেন। এর পর মুকুল ফের হামলার ভয়ে পার্টি অফিসে আসা বন্ধ করে দেয়। জেলা কমিটির মতো জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও পৌরসভায় কোন সম্মেলন না দিয়ে পকেট কমিটি গঠন করতে থাকেন। এ নিয়ে দৈনিক আজকালের খবরে একের পর এক প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে মুকুল প্তি হয়ে উঠেন। বিএনপি’র গণঅনশন চলাকালে গত ২০ মে সকালে জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাইয়ের কাছে মুকুল এ প্রতিবেদক সর্ম্পকে অভিযোগ তুলে ধরেণ এবং অশ্লীন ভাষায় গালাগালি করেন। এ প্রতিবেদককে আওয়ামীলীগ বানানোরর চেষ্ঠা চালায়। তবে আবদুল নিশ্চুপ ছিলেন বলে দলীয় একাধিক নেতা জানান।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply