কিশোরী তুলির তিন মাসের সংসার

যৌতুক কেড়ে নিল প্রাণ
পুতুল খেলার বয়স পার না হতেই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিল তুলি। আল্লাহর দয়ায় সন্তানের ভবিষ্যৎ সুখের হবে_এমন আশায় তুলির বাবা টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমার আসরেই মেয়ের বিয়ে দেন। অভিভাবকের ইচ্ছায় এক বুক আশা নিয়ে স্বামীর সংসারে যায় কিশোরী তুলি। স্বামীর ভালোবাসা নিয়ে চোখে ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতে চেয়েছিল সে। কিন্তু তার সেই স্বপ্ন অধরাই থেকে গেল। যৌতুক নামের সামাজিক ব্যাধি ‘কালসাপের’ মতোই ছোবল দিল স্বপ্নের অধরে। স্বামীর সংসারে মাত্র তিন মাস অবস্থানের পর যৌতুকের বলি হয়ে লাশ হয়ে ফিরেছে মারুফা বিনতে মিজান তুলি (১৪)। মুন্সীগঞ্জের রিকাবীবাজারের কালিন্দীপাড়ায় গত ৭ মে এই মর্মস্পর্শী মৃত্যুর ঘটনাটি ঘটে।

স্বজনদের অভিযোগ, যৌতুকের জন্য স্বামী, দেবর, শ্বশুর-শাশুড়ি মিলে নির্মম নির্যাতন চালিয়ে তুলিকে হত্যা করে। হত্যার পর পুলিশ প্রশাসনকে ‘ম্যানেজ’ করে এ ঘটনাকে আত্মহত্যা হিসেবে চালানোর চেষ্টা করে অভিযুক্তরা। আগে যৌতুকের জন্য নির্যাতনের ঘটনা জানানো হলেও পুলিশ তা আমলে নেয়নি। থানায় হয় অপমৃত্যুর মামলা। এক দিন পর একটি আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলা হলেও পুলিশ আসামিদের গ্রেপ্তার করেনি। আসামিরা এখন প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং বাদীপক্ষকে হুমকি দিচ্ছে। পুলিশের ভূমিকা রহস্যজনক। আর ভুক্তভোগীরা ন্যায়বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। তুলির অভিভাবকরা এই হত্যাকাণ্ডের অধিকতর তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তুলির বাবার নাম মিজানুর রহমান। তাঁর বাসা নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার উত্তর চাষাঢ়ার চাঁনমারী এলাকায়। এক ভাই ও দুই বোনের মধ্যে বড় তুলি ছিল ভীষণ প্রাণচঞ্চল। মা-বাবার প্রথম সন্তান হওয়ায় সবার আদরও ছিল বেশি। ইজতেমায় বিয়ে হলে ভবিষ্যৎ ভালো হবে_এমন ধারণায় আগেভাগেই মেয়ের বিয়ে দেন তুলির বাবা। টঙ্গীতে এবারকার (২০১২) দ্বিতীয় দফায় বিশ্ব ইজতেমার সময় গত ২১ জানুয়ারি মুন্সীগঞ্জের উত্তর কালিন্দীপাড়ার আকবর মিয়ার ছেলে আল-আমিনের সঙ্গে তুলির বিয়ে দেন তাঁর বাবা মিজানুর রহমান। মা-বাবার দেখানো স্বপ্ন নিয়ে স্বামীর সংসারে যায় তুলি। তবে সেই স্বপ্ন আর বাস্তবে ধরা দেয়নি তার জীবনে। নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে উঠল সে। বিয়ের পর থেকেই আল-আমিন, তার মা সুরাইয়া বেগম, বাবা আকবর মিয়া এবং ভাই রয়েল যৌতুকের জন্য তুলির ওপর নির্যাতন শুরু করে। শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বিষয়টি মা-বাবাকে একাধিকবার জানায় সে। এ নিয়ে পারিবারিক বৈঠকও হয়। সেখানেও আল-আমিনের পরিবার যৌতুক দাবি করে। টাকা না পেলে তারা তুলির ওপর নির্যাতন অব্যাহত রাখবে বলে হুমকিও দেয়। গত ৭ মে তুলির শাশুড়ি সুরাইয়া বেগম তার মা-বাবাকে খবর দেয়_তুলি আত্মহত্যা করেছে।

তুলির বাবা মিজানুর রহমান, মা ফাতেমা শিল্পী এবং মামা নূরুল আমিন জানান, খবর পেয়ে তাঁরা বাড়িতে গিয়ে দেখেন, বাসায় ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আছে তুলির নিথর দেহ। শরীরে নির্যাতনের চিহ্ন। গলায় আঙুলের ছাপ আর হাতের আঙুল ভাঙা। দুপুরে তুলি মারা গেছে বলে দাবি করা হলেও খবর দেওয়া হয় বিকেলে। পুলিশ যায় রাতে। আলামত এবং পূর্বে নির্যাতনের সূত্র থাকলেও মুন্সীগঞ্জ থানার পুলিশ হত্যা মামলা না নিয়ে অপমৃত্যুর মামলা নেয়। রহস্যজনকভাবে প্রাথমিক তথ্য বিবরণীতে পুলিশ গলায় দাগ ও আঙুল ভাঙার তথ্য চেপে যায়। শোকাহত পরিবারটি প্রথমে এ ব্যাপারটি টের পায়নি। পরে তারা থানায় গিয়ে ফের অভিযোগ করে। এক দিন পর গত ৮ মে ৩০৬ ধারায় একটি মামলা নেয় পুলিশ। তবে ওই সময়ও স্বজনরা হত্যার অভিযোগ করেছেন বলে তাঁরা দাবি করেন। ভুক্তভোগীরা জানান, আসামিপক্ষের তৎপরতায় ঘটনা ধামাচাপা দেওয়া হচ্ছে_এমন আশঙ্কা থেকে ময়নাতদন্তের সঠিক রিপোর্ট পাওয়ার জন্য মুন্সীগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জনের কাছেও আবেদন করেন বাদী মিজানুর রহমান।
স্বজনরা বলেন, ‘স্থানীয় থানার পুলিশ আসামিপক্ষের দ্বারা প্রভাবিত। এখানে তদন্ত হলে প্রকৃত ঘটনা বের হবে না।’ তাঁরা ডিবি বা সিআইডিতে মামলাটি তদন্তের আবেদন জানান। পুলিশের দুর্বল তথ্যের কারণে সম্প্রতি দাখিল করা ময়নাতদন্তের রিপোর্টে হত্যার আলামত মেলেনি বলে দাবি করেন তুলির বাবা মিজানুর রহমান। তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘আমরা ফের ময়নাতদন্ত চাই, ন্যায়বিচার চাই, সঠিক তদন্ত চাই। এখানকার পুলিশ ম্যানেজ হয়ে গেছে। আমরা ডিবি বা সিআইডির তদন্ত চাই।’

তুলির মামা নূরুল আমিন জানান, এখন পর্যন্ত কোনো আসামিকে গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ। তারা এখন প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। গত ১১ মে তুলি হত্যার বিচার দাবিতে মুন্সীগঞ্জে মানববন্ধন করা হয়েছে। ওই মানববন্ধন করার পর আসামিরা বাদীপক্ষকে হুমকি দিচ্ছে। পুলিশ রহস্যজনক আচরণ করছে। তুলির মা ফাতেমা শিল্পী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘ওরা আমার মেয়েকে হত্যা করেছে। মেরে বলছে আত্মহত্যা। আমি ওদের বিচার চাই।’

অভিযোগ সম্পর্কে তুলির শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে কাউকে পাওয়া যায়নি। মামলা ও সামাজিক আন্দোলন শুরু হওয়ায় তারা লুকিয়ে বেড়াচ্ছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

তদন্ত ও ঘটনা প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জ থানার ওসি আবুল বাশার জানান, প্রাথমিক তদন্তে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় শাশুড়ির প্ররোচনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাই মামলা নেওয়া হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

কালের কন্ঠ – এস এম আজাদ

Leave a Reply