বাইরে আবেগ, অন্তরে ব্যবসা!

সাহারা ইন্ডিয়া পরিবার বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার পাশে নতুন শহর গড়ার কাজ চাইছে। এর আগে ভারতের অন্যতম শক্তিধর ও প্রভাবশালী টাটা গ্রুপ বাংলাদেশে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করলেও শেষ পর্যন্ত সরে দাঁড়ায়। টাটার পর এবার এসেছে সাহারা পরিবার। তবে এই বিনিয়োগকে সন্দেহের দৃষ্টিতে না দেখার অনুরোধ জানিয়েছেন সাহারার কর্ণধার সুব্রত রায় সাহারা। বিষয়টি সন্দেহেরে দৃষ্টিতে দেখার কোনো প্রয়োজন নেই। আবাসন খাতে বিনিয়োগকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখা উচিত। কিন্তু স্বাভাবিকভাবে একের পর এক যেসব প্রশ্ন মনেই উঁকি দিতে শুরু করেছে সেসবের স্বচ্ছ জবাব পাওয়া না গেলে একসময় তা চারদিক থেকে অক্টোপাসের মতো আঁকড়ে ধরবে। যেখান থেকে বের হওয়া কঠিন হয়ে পড়বে।

গত ২৫ মে রাজধানীতে সাংবাদিক সম্মেলন করে সাহারা পরিবারের প্রধান সুব্রত রায় সাহারা বলেছেন, ‘আমার মায়ের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুরে। আর এই আবেগ থেকে এদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী হয়েছি।’

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন, ‘আমরা এখানে খোলা মন নিয়ে বিনিয়োগ করতে এসেছি। এটিকে সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখা ঠিক হবে না। সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখা হলে আমাদের আবেগ বা কাজের গতি হয়তো কিছুটা কমে যাবে’।

গত ২২ মে একটি প্রতিনিধি দল নিয়ে সাহারা ইন্ডিয়া পরিবার বাংলাদেশ সফরে আসে।

সাহারা ইন্ডিয়া পরিবারের প্রধান সুব্রত রায় সাহারা গর্ভধারিণী মায়ের জন্মস্থানের কথা উল্লেখ করে আবেগের যে কথা বলেছেন তার প্রতি ধনী-গরীব সকল ধর্ম ও পেশার লোকের শ্রদ্ধাবোধ থাকবে। মায়ের জন্মস্থানের জন্য কিছু একটা করতে পারা ভাগ্যের ব্যাপার। কতজন এমন করে করার চিন্তা-ভাবনা করেছে বা করতে পেরেছে তা বলা দুরূহ।

তবে একটি কথা না বললেই নয়। আর তা হচ্ছে আবেগ এবং ব্যবসা দু’টি আলাদা বিষয়। একটির সাথে অপরটিকে মেলানো উচিত নয় এবং উচিত হবেও না। আবেগ দিয়ে কখনোই ব্যবসা হয় না। ব্যবসার অবস্থান এক ধরণের, আর আবেগ হচ্ছে… ব্যবসা কেন সবকিছুরই উর্ধ্বে।
বিনিয়োগ করতে এসে শুরুতেই সন্দেহ কথাটি কেন আসবে? নাকি বাংলাদেশে আসার আগেই অবহিত হয়ে এসেছেন যে `সন্দেহ` নামক শব্দটি থেকে মুক্তি মিলবে না।

মা-বাবার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে এমন বিত্তশালী আছেন যারা সমাজ সেবার জন্য কিছু না কিছু করেছেন। কিন্তু যারা এসব করেছেন তা অবশ্যই ব্যবসার উদ্দেশ্যে নয়। পর্দার আড়ালে ব্যবসাই যদি প্রকৃত সত্য হয় তাহলে মুখে আবেগের কথা মানায় না। আবেগের কথা বলে মানুষের মন সহজেই জয় করা যায়। পাওয়া যায় শ্রদ্ধাবোধ। কিন্তু আসল সত্য যখন পরিষ্কার হবে তখন সেই আবেগের স্থান কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা কি একটি বারের জন্য ভেবে দেখা উচিত নয়?

নতুন শহর তৈরির জন ১২ কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করার কথা বলেছে সাহারা পরিবার। এই অর্থ কি শুধুই আবেগের বহিঃপ্রকাশ? যদি তা হয় তাহলে বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ পৃথিবী যতদিন থাকবে ততদিন সাহারা পরিবারকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ রাখবে। আর আবেগের অন্তরালে ব্যবসা হলে মানুষ সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করবে না বলেই বোধ করি।

ঢাকা শহরের আশেপাশে নতুন একটি শহর গড়ার জন্য সাহারা ইন্ডিয়া পরিবার এক লাখ একর জমি সরকারের কাছে চেয়েছে। জমির পাশাপাশি অন্যান্য সহায়তাও তারা আশা করছে। বিদেশি বিনিয়োগের আলোচনার সূচনাতেই কিছু বলতে গেলে অনেকেই বলবেন এ ধরণের বিনিয়োগ যারা চায় না তারাই সমালোচনা করবে। তাছাড়া ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখার মানসিকতা নেই, পরিবর্তে নেতিবাচক চিন্তা করা অনেকটা স্বভাবে পরিণত হয়েছে।

এসব ভাবনা যাদের মনে উঁকি দেবে তাদের উদ্দেশ্যে সবিনয়ে বলতে চাই, দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করে বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করে দেখুন। জবাব আপনা থেকেই পেয়ে যাবেন। একটি নতুন শহর গড়ার জন্য টাকাই কি যথেষ্ট? বর্তমান সরকারের সময়ে জমি অধিগ্রহণ নিয়ে দু’টি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার কথা না বললেই নয়। একটি হচ্ছে টাকার সংস্থান কোনো সমস্যা নয় এমন ঘোষণা দিয়ে সরকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের উদ্দেশ্যে মুন্সীগঞ্জের আড়িয়ল বিলে জমি অধিগ্রহণ করার উদ্যোগ নিয়েছিলো। দ্বিতীয়টি সেনাবাহিনী তাদের আবাসন সমস্যা সমাধানের জন্য নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে জমি কেনা শুরু করে।

দু’টি ঘটনায় স্থানীয়রা আন্দোলন শুরু করে। বিশেষ করে বিমান বন্দরের জমি অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীদের আন্দোলনের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে বিরোধী দল। রক্ত ঝরেছে, পড়েছে লাশ। শেষ অবধি সরকার ও সেনাবাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয়েছে জনতার রুদ্ররোষে। এ দু’টি ঘটনার কথা ফের স্মরণ করিয়ে দেওয়ার অবশ্যই কারণ রয়েছে। সাহারা ইন্ডিয়া পরিবার সরকারের নিকট এক লাখ একর জমি চেয়েছে নতুন শহর তৈরির জন্য। হয়তো জমি দেওয়ার ব্যবস্থা সরকার যে কোনোভাবে করতে পারে। শুধুমাত্র জমির ব্যবস্থা হলেই কি একটি শহর তৈরী সম্ভব?

কথার পিঠে অনেক কথা এসে যায়। সাহারা পরিবারের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে সরকার যদি এক লাখ একর জমির ব্যবস্থা করে দেয় তাহলে অনেক জিজ্ঞাসার জন্ম হবে। লোকজন কি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হবে না যে বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানি সমস্যা থেকে দেশ মুক্ত? এসব বলার কারণও রয়েছে। পানিসংকট কোন অবস্থায় রয়েছে তা রাত-দিন পাম্পের সামনে দীর্ঘ লাইন দেখলে সহজেই অনুমেয়। পানির জন্য বলতে গেলে মধ্যবিত্তের লজ্জা ভেঙ্গে গেছে। ঘোমটা মাথায় অনেক মধ্যবিত্ত পরিবারের মহিলারা পানির জন্য লাইনে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষায় থাকেন; যা তারা জীবনেও কল্পনা করেননি। আর বিদ্যুৎ সমস্যার কথা না বলাই ভালো। বোরোর সেচ মওসুম কবে শেষ হয়েছে। বোরো ধান কাটাও শেষ। কিন্তু বিদ্যুৎ সংকট থেকে মুক্তির কোনো সবুজ সংকেত খোদ বিদ্যুৎ বিভাগই দিতে পারছে না। অপরদিকে গ্যাসের অবস্থা দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। তাহলে সাহারা পরিবারকে কি সরকার শুধু জমি দিলেই একটি নতুন শহর তৈরি করা সম্ভব?

দেশে আবাসন খাতে বিনিয়োগের জন্য রাজধানীতে জমির সংকট বর্তমানে তীব্র থেকে তীব্রতর হয়েছে। খোলা ও প্রশস্ত জায়গা ছাড়া আগে ফ্ল্যাট বাড়ি নির্মাণে আগ্রহ দেখায়নি রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ বা রিহ্যাব। ১৯৯০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ১৫ বছরে আবাসন খাতের যে চিত্র ছিলো বর্তমানে তেমনটি নেই। মূল সড়কের সাথে যেসব সংযোগ সড়ক রয়েছে সেসব এলাকায় ফ্ল্যাট বাড়ি নির্মাণ হয়েছে এবং হচ্ছে। রিহ্যাবের তথ্য অনুযায়ী ১৯৯০ সালে রাজধানীতে ফ্ল্যাট বাড়ি নির্মাণের জন্য জমির পিছনে ব্যয় হতো শতকরা ২৫ ভাগ। আর শতকরা ৭৫ ভাগ ছিলো নির্মাণের জন্য।

বাংলাদেশে আবাসন শিল্প কয়েক যুগের। কিন্তু এ খাতের বাস্তব চিত্র কী? রিহ্যাবের তথ্য হচ্ছে, ফ্ল্যাট বাড়ি নির্মাণের জন্য বর্তমানে জমির বড্ড অভাব। জমির পিছনে খরচ হচ্ছে শতকরা ৬৫ থেকে ৭০ ভাগ টাকা। নির্মাণে ব্যয় হয় শতকরা ৮০ থেকে ৮৫ ভাগ। গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত যে হিসাব পাওয়া যায় তাতে দেখা যায় রিহ্যাবের সদস্যরা ২২ হাজার ফ্ল্যাট বাড়ি নির্মাণ করে বসে রয়েছেন। বিক্রি হচ্ছে না। এ সংখ্যা চলতি বছরের ৩০ জুনের মধ্যে ২৬ হাজারে পৌঁছবে।

ফ্ল্যাট বাড়ি বিক্রি করা কঠিন হয়ে পড়েছে তিনটি কারণে। এর প্রথমটি হচ্ছে বিদ্যুৎ, দ্বিতীয় গ্যাস ও সর্বশেষ পানি। অনেকে অগ্রিম টাকা দিয়েও তৈরি ফ্ল্যাট বাড়িতে উঠতে পারছেন না এসব সমস্যার জন্য। ফ্ল্যাট বাড়ি সর্বনিম্ন ছয়তলা থেকে ২০ বা ২২ তলা পর্যন্ত রয়েছে। গ্যাসের সংযোগ পাওয়া না গেলে বিকল্প হিসাবে সিলিন্ডার ব্যবহারের দিকে লোকজন বাধ্য হয়ে ঝুঁকতে শুরু করেছে। কিন্তু সিলিন্ডার অপর দু’টি সমস্যার সমাধান দিতে পারছে না। সরকার যে পরিমাণ বিদ্যুৎ দিতে চাইছে তাতে করে ফ্ল্যাট বাড়িতে লিফট ও এয়ারকুলার চালানো যাবে না। এতে কার পক্ষে সম্ভব হবে ছয় থেকে ২২ তলা পর্যন্ত সিড়ি ভেঙ্গে ওঠানামা করা!

বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানির জন্য দীর্ঘদিন ধরে আবাসন খাত বড় ধরণের সংকটের মধ্যে আটকে রয়েছে। অচিরেই সংকট থেকে উত্তরণ হবে এমন কোনো লক্ষণও দেখা যাচ্ছে না।

সরকার তো রিহ্যাবকে এক ইঞ্চিও জমি দেয়নি। সাহারা যা করতে চাইছে তা কি রিহ্যাবের পক্ষে করা সম্ভব নয়? এ প্রশ্নের জবাব হচ্ছে এ পর্যন্ত রিহ্যাব আবাসন খাতে যা কিছু করেছে সরকার কি তার কাছাকাছি কিছু করতে পেরেছে? পূর্বাচলে নতুন উপশহর করবে রাজউক। দু’পর্বে লটারির মাধ্যমে আবেদনকারীদের প্লট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের সময় পূর্বাচল উপশহরের উদ্যোগ নেওয়া হয়। প্রায় ১৫ বছর শেষ হতে চলেছে। এখনো সরকার বসাবস করার মত অবকাঠামো পূর্বাচলে গড়ে তুলতে পারেনি।

পূর্বাচলে প্রথম পর্বের লটারিতে যারা প্লট পেয়েছিলেন তাদেরকে বুঝিয়ে দেওয়ার কাজ গত বছর থেকে শুরু হয়েছে। প্লট হস্তান্তর করতে কত বছর লাগতে পারে তা খোদ রাজউকই বলতে পারছে না। আর দ্বিতীয় পর্বে যারা প্লট পেয়েছেন তারা কত বছর পর বুঝে পাবেন তা নিশ্চিত করে কেউ বলতে পারছে না। বুড়িগঙ্গার অপর পাড়ে কেরানীগঞ্জে ঝিলমিল প্রকল্পের লাটারিতে যারা প্লট পেয়েছেন তারা খুশী ও ভাগ্যবান। কবে নাগাদ বসবাস উপযোগী হবে তা বলতে হলেও অপেক্ষার প্রহর গুনতে হবে।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথাটি সরকার বলে দিয়েছে ঝিলমিল লটারির সময়। আর তা হচ্ছে এখন থেকে রাজধানীর আশেপাশে প্লট বরাদ্দ দেওয়ার মতো কোনো জমি নেই। আগামীতে প্লট নয়, ফ্ল্যাট দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে জমির ব্যাপারে বাস্তব চিত্র যেখানে সরকার নিজেই জাতির সামনে তুলে ধরেছে সেখানে সাহারা পরিবারকে এক লাখ একর জমি কোথা থেকে দেবে?

লেখক : সাকির আহমদ, সিনিয়র রিপোর্টার, দৈনিক ইত্তেফাক, shakir_ittefaq@yahoo.com

সাকির আহমদ, অতিথি লেখক
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply