ভিটেমাটি পেয়ে মোল্লাকান্দি গুচ্ছগ্রামে ৫০ পরিবারে স্বস্তির নিশ্বাস

ভূমি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে গুচ্ছগ্রাম (ক্লাইমেট ভিকটিম রিহ্যাবিলিটেশন প্রজেক্ট) প্রকল্পের আওতায় মুন্সীগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি গুচ্ছগ্রামে ভূমিহীনদের পুনর্বাসনের ফলে মানবেতর জীবন থেকে মুক্তি পেলেন ৫০ পরিবারের ২০৬ জন মানুষ।

তবে জীবনযাপনের সুব্যবস্থা হলেও মুন্সীগঞ্জ জেলা শহরের সঙ্গে যোগাযোগের তেমন কোনো ব্যবস্থা (সংযোগ সড়ক) নেই বলে অভিযোগ করেছেন গুচ্ছগ্রামের একাধিক বাসিন্দা। এ প্রকল্পে বসবাসরত ৫০ পরিবারের এখন প্রধান দাবি বিদ্যুৎ সংযোগ।

এছাড়া পুনর্বাসিতদের জন্য এখানে পানীয়জলের সুব্যবস্থা থাকলেও তারা জানেন না তা আর্সেনিকমুক্ত কিনা। নেই স্বাস্থ্য এবং পরিকল্পিত পরিবার সম্পর্কে তেমন কোনো সচেতনতাও।

তবুও হতদরিদ্র-ভূমিহীন ও হতাশাগ্রস্ত এসব মানুষকে সরকার পুনর্বাসন করায় ৫০ পরিবার পেয়েছে নতুন আলোর সন্ধান।

শনিবার ভূমি মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পে সরেজমিনে গিয়ে এ চিত্র দেখা গেছে।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, মোল্লাকান্দির এ গুচ্ছগ্রামে নির্মিত ঘরের সংখ্যা ৫০টি। এখানে ৫০ পরিবারকে পুণর্বাসন করা হয়েছে।

এখানে রোপন করা হয়েছে ১০০০টি বৃক্ষ। এর মধ্যে ফলজ বৃক্ষ ৩৫০টি, বনজ ৬০০টি এবং ঔষধি বৃক্ষ ৫০টি।

এর মধ্যেই নির্মাণ করা হয়েছে একটি কমিউনিটি সেন্টারও। নলকূপের সংখ্যা ২৩টি। গুচ্ছগ্রামে বসবাসরতদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য বিআরডিবি’র মাধ্যমে ফেরতযোগ্য ঋণ দেওয়া হয়েছে ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা। এ ঋণ নিয়ে গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দারা হাঁস-মুরগি পালনসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে। ভূমি মন্ত্রণালয়ের দেওয়া এ সকল তথ্যেরও সত্যতা পাওয়া যায়।

তবে, মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্যমতে এখানকার ৯০ শতাংশ মানুষ পরিবার পরিকল্পনা গ্রহণকারী এবং শতকরা ৭৩ শতাংশ শিশু স্কুলগামী। এসব তথ্যের সঙ্গে গড়মিল দেখা গেছে।

গুচ্ছগ্রামের ১৫ নম্বর ঘরের বাসিন্দা নূর ইসলাম শিকদার। তার স্ত্রীর নাম লালভানু। এ দম্পতির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নূর ইসলাম শিকদারের বয়স ৬৫ বছর। তিনি কোনো বয়স্ক ভাতা পাননি। এক ছেলে কৃষি শ্রমিকের কাজ করেন। মেয়েটির বিয়ে দিয়েছেন একজন রিকশাচালকের সঙ্গে। তবে এখন তিনি অনেক ভালো আছেন। তার স্ত্রী লালভানু বলেন, ‘সরকারের কাছ থেকে বাড়ি পাইয়া আমরা ভালা আছি। ঋণ আইন্যা মুরগি পালতাছি। পুলাডা কাম কইরা সংসার চালায়।’

এ গ্রামের ১৩ নম্বর ঘরটি পেয়েছেন আব্দুল মালেক এবং তার স্ত্রী শাহিদা বেগম। তাদের যৌথভাবে মালিক করে জমির দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে। সংসারে তাদের ২ ছেলে। বাড়ি পাওয়ার আগে রাস্তার পাশে ঘর বানিয়ে বসবাস করতেন। ভাগ্য ভালো বলে তারা এ ঘর পেয়েছেন।

শাহিদা বেগম জানান, তার স্বামী রিকশা চালিয়ে সংসার চালান। তিনি পরিবার পরিকল্পনা সম্পর্কে কিছুই জানেন না। তবে তিনি সংসারে সদস্য সংখ্যা আর বাড়াতে চান না। হাঁস মুরগি পালন করছেন। এছাড়া, ফলজ, বনজ এবং ঔষধি বৃক্ষ রোপন করেছেন তার বাড়ির আঙিনায়।

গুচ্ছগ্রামের আরেক বাসিন্দা শাহনাজ বেগম। তার স্বামীর নাম নাজমুল হাসান হাওলাদার। তিনি শ্রমজীবী। তিনি বলেন, ‘আগে মাইনষের বাড়িতে কাম করতাম। তাগো কত কথা হুনতে অইতো। অহন নিজের বাড়িতেই থাহি।’

গুচ্ছগ্রামে বসবাসকারী যুবক জুয়েল, আলম এবং মো. মোহসিন অভিযোগ করে বলেন, ‘সংযোগ সড়ক না থাকায় আমাদের যাতায়াতের অনেক সমস্যা হচ্ছে। বর্ষা মৌসুমে এ সমস্যা আরো প্রকট হয়। বর্ষা মৌসুমে ট্রলারে করে একবার পার হতে ৫ টাকা করে ভাড়া লাগে। আমাদের দাবি সংযোগ সড়ক।’

গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প প্রসঙ্গে পরিচালক মো. হাসান ইমাম সাংবাদিকদের জানান, নারীর ক্ষমতায়নে এখানে কাজ করা হয়েছে। গুচ্ছগ্রাম শব্দটি প্রধানমন্ত্রী চয়ন করেছেন। এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০০৯ সালে। এ গ্রামে বসবাসের সুযোগ পেয়ে এসব মানুষের শহরমুখী প্রবণতা হ্রাস পেয়েছে। সংযোগ সড়কের একটু সমস্যা রয়েছে। যার কারণ হচ্ছে, জায়গা নেই। বিদ্যুৎ আমাদের প্রকল্পের আওতার বিষয় নয়। ‘রজত রেখা’ নদীর একপাশে টঙ্গীবাড়ি উপজেলা, অন্যপাশে সদর উপজেলা। এ কারণেই সমস্যাটির সৃষ্টি হয়েছে।’

তিনি আরও জানান, জার্মানের অর্থায়নে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

গুচ্ছগ্রাম পরিদর্শনে আরও উপস্থিত ছিলেন মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক গোলাম সারওয়ার ভূঁইয়া, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানা ইয়াসমিন লিলি, অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক মো. আব্দুল হাই ও আব্দুর রহমান প্রমুখ।

আল মাসুদ নয়ন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, কাজী দীপু, জেলা প্রতিনিধি
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
=====================

এক বছরেই বদলে গেছে মুন্সীগঞ্জের মোল্লাবাড়ি গুচ্ছ গ্রামের ছিন্নমূল মানুষের জীবন যাত্রা

মোজাম্মেল হোসেন সজল: এক সময় ঘরবাড়ি, টাকা-পয়সা কিছুই ছিলো না। থাকতাম অপরের বাড়িতে আশ্রিতা। ছিলাম বাস্তহারার মতো। এখন এখানে নিজের ঘর আছে, আছে হাঁস-মুরগী। এখন চাষাবাদেরও জমি আছে। সেখানে ফসল ফলাই। সবাই এখন সুখে আছি-একসঙ্গে। কথাগুলো বলেন-মুন্সীগঞ্জ সদরের মোল্লাবাড়ি গুচ্ছ গ্রামের রহিমা, আসলাম, করীমসহ কয়েক বাসিন্দা। প্রতিষ্ঠার মাত্র এক বছরেই মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাবাড়ি গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দাদের জীবনযাত্রার মান বদলে গেছে। গেলো বছর ভূমিহীন ৫০টি পরিবার এ গুচ্ছ গ্রামে মাথা গোঁজার ঠাঁই পেলে এক বছরের মধ্যে ছিন্নমুল পরিবারগুলোর জীবনযাপনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। পরিবারগুলোর শিশু শিক্ষা নিশ্চিতকরন, স্যানিটেশন সুবিধা প্রদান, নিরাপদ মাতৃত্বসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পাওয়ার মধ্য দিয়ে এ পরিবারগুলোতে নতুন জীবনের সূচনা হয়েছে। বর্তমান মহাজোট সরকারের পূর্ণবাসন প্রকল্পের অংশ হিসেবে মুন্সীগঞ্জ সদরের চরাঞ্চলের এ গুচ্ছ গ্রামটিকে সফলতার উজ্জল এক দৃষ্টান্ত হিসেবে দেখা হচ্ছে। শনিবার সকালে জেলা সদরের চরাঞ্চল চরকেওয়ার ইউনিয়নের মোল্লাবাড়ি এ গুচ্ছ গ্রামে স্থানীয় প্রশাসন ও ভূমি মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তারা এ গুচ্ছ গ্রামকে দেশের একটি মডেল গুচ্ছ গ্রাম হিসেবে আখ্যায়িত করে ছিন্নমুল ভূমিহীন পরিবারগুলোর জীবন যাত্রার মানের ব্যাপক অগ্রগতি ও সরকারের সফলতার এ দাবি করেন। এ সময় সাংবাদিকদের কাছে এ মডেল গুচ্ছ গ্রামের খুঁটিনাটি বিষয়াদি তুলে ধরেন ভূমি মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প পরিচালক ও যুগ্ন সচিব মো.হাসান ইমাম। তিনি বর্ননা করেন- ৫০টি ভূমিহীন পরিবার ২০১১ সালের ৮ মে মোল্লাবাড়ি গুচ্ছ গ্রামে আপন ঠিকানা পায়। এরপর জীবনযুদ্ধ ও নানা প্রতিকুলতা পেরিয়ে পরিবারগুলোর জীবনযাত্রার পরিবর্তন ঘটতে শুরু করে। গুচ্ছ গ্রামের পরিবারগুলোর সকল সদস্যই নিজেদের এখন স্বাবলম্বী ভাবতে শুরু করেছেন। শনিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত সারাদিন গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন বাংলাদেশ ভূমি মন্ত্রনালয়ের প্রকল্প পরিচালক উপ-সচিব মো. আব্দুল হাই, এম এ রহমান, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসনের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক এস এম মাহফুজুল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ব্যারিস্টার গোলাম সরওয়ার ভূঁইয়া প্রমুখ।

এ সময় তারা গুচ্ছ গ্রামের একপ্রান্ত থেকে শুরু করে অপরপ্রান্ত পর্যন্ত পায়ে হেটে ঘুরেফিরে দেখেন। খোলামেলা কথাবার্তা বলেন গুচ্ছ গ্রামের নারী-পুরুষ, শিশু-বৃদ্ধ আবাল বনিতার সঙ্গে। তাদের মুখে সুখ-দু:খের কথা শুনেন। এদের সঙ্গে পুরোটা সময় জুড়ে সেখানে ছিলেন-বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় মুন্সীগঞ্জে কর্মরত প্রায় এক ডজন সংবাদকর্মী। তারাও গুচ্ছ গ্রামের নারী-পুরুষের মুখে জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের বর্ণনা শুনেছেন। ১ হাজার ৪’শ ১২ শতাংশ জমির উপর বহুমুখী সুবিধা নিয়ে এ গুচ্ছ গ্রাম গড়ে উঠে। দেশের ১’শ ৫৫টি গুচ্ছ গ্রামের মধ্যে এটি অন্যতম। প্রত্যেক পরিবারকে বসবাসের জন্য একটি ঘর ও প্রায় ১৪ শতাংশ জমি চাষাবাদের জন্য রেজিষ্ট্রি করে দেয় সরকার। ভূমি মন্ত্রনালয়ের পূর্ণবাসন প্রকল্পের এক সফল দিক হয়ে উঠেছে এ গুচ্ছ গ্রাম।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
=======================

গুচ্ছগ্রাম: ঠিকানাহীনদের ঠিকানা

মুন্সিগঞ্জের মোল্লাকান্দি। আর দশটা গ্রাম থেকে এখানকার একটি গ্রাম অনেকটাই স্বতন্ত্র, যেখানে ঠিকানাহীনরা পেয়েছেন ঠিকানা, মাথা গোঁজার ঠাঁই।

শনিবার সেই মোল্লাকান্দিতে সরকারি একটি প্রকল্প ঘুরে দেখা গেল মাথার উপর ছাউনি পেয়ে কতোটাই তুষ্ট ৫০টি পরিবার। ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প তাদেরকে এই ‘ঠিকানা’ দিয়েছে।

মোল্লাকান্দির বাবুল মিয়া, আবদুর রহমান, রেজ্জাক মোল্লা, আনোয়ারা বেগম কারোরই মাথা গোঁজার ঠাঁই ছিলো না। ঝালমুড়ি বা শুটকি বিক্রি, দিনমজুরি বা পরের বাড়িতে কাজ করে ‘নুন আনতে পান্তা ফুরানো’ জীবন ছিলো তাদের। পরের জমি বা রাস্তার পাশে বাস করতে গিয়ে বাড়তি ছিলো বখাটেদের উৎপাত। সেসব মানুষ এখন পেয়েছে ঠাঁই।

গত বছরের ২৫ মে এসব জমি তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। জমির দলিলে মালিকানা দেওয়া হয়েছে স্বামী ও স্ত্রী উভয়কে।

স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানা ইয়াসমিন লিলি জানান, আদর্শগ্রাম প্রকল্পের অধীনে জমি ভরাটের কাজ আগেই করা হয়েছিল। জমি ভরাট থাকায় পুরো গুচ্ছগ্রাম নির্মাণের কাজ শেষ হয় মাত্র ছয়মাসেই। বাকি কাজে প্রায় ৬৪ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে।

মোল্লাকান্দি গুচ্ছগ্রামে সরজমিনে দেখা যায়, পরিবারের প্রতি চার শতাংশ জমি দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে রয়েছে ৩০০ বর্গফুটের থাকার ঘর, ৮০ বর্গফুটের বারান্দা এবং ২৮ বর্গফুটের রান্নাঘর। রয়েছে পরিবারপ্রতি একটি টয়লেটও।

এছাড়াও প্রতি পাঁচ পরিবারের জন্য একটি বিশুদ্ধ পানির নলকূপ রয়েছে। সবার জন্য রয়েছে তিনটি পুকুর এবং একটি পাকা কমিউনিটি সেন্টার। নদীর তীরে রয়েছে সান-বাঁধানো ঘাট। আছে খেলার মাঠ এবং বিশ্রামের জন্য ছাতার ছাউনিও।

মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের ভূমিহীন আব্দুর রহমান-হালিমা খাতুন দম্পতি ৫ ছেলে মেয়ে নিয়ে রাস্তার পাশে সরকারি জমিতে বাস করতেন। আয়ের উৎস বলতে ছিলো আবদুর রহমানের দিনমজুরি। বখাটেদের অত্যাচারে তিন মেয়ে নিয়ে তাদের দিন কাটতো অত্যন্ত উদ্বেগে। সেই দম্পতি এখন গুচ্ছগ্রামে মাথা গোঁজার ঠাঁই পেয়েছেন। সেখানে তাদেরকে ঘরসহ ভিটে দলিল করে দেওয়া হয়েছে।

হালিমা খাতুন বলেন, দরিদ্র স্বামীর আয়ে কোনো রকমে সংসার চলে। নিজেরা কোন ঘর করতে পারিনি। সরকার ঘরসহ জমি দেওয়ায় তাদের খুবই উপকার হয়েছে। আশা করি বাকি জীবন সুখেই কাটাতে পারবো।

শারীরিক প্রতিবন্ধী ৪৫ বছর বয়সী এই বাবুল মিয়া ঝালমুড়ি বিক্রি করেন। নিজস্ব বা পৈত্রিক জমি না থাকায় এতদিন ছিলেন অনেকটা ঠিকানাহীন। স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে বাস করতেন পরের জমিতে। সারা জীবন সইতে হয়েছে অনেক লাঞ্ছনা-গঞ্জনা।

ওই প্রকল্পের ‘জাতীয় প্রকল্প পরিচালক’ (যুগ্ম-সচিব) হাসান ইমাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, জাপানের মওকুফ করা ঋণের (জেডিসিএফ) অর্থে সরকার সারা দেশে ১৮৭ কোটি ২৯ লাখ আট হাজার টাকা ব্যয়ে গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

“৬১টি জেলার (পার্বত্য তিন জেলা ছাড়া) ১৮৮টি উপজেলায় ২৬২টি গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পের ১৫৫টির কাজ ইতিমধ্যে শেষে হয়েছে। বর্তমানে আরো চারটির কাজ চলছে। খাস জমি নির্ধারণ এবং প্রকল্প চূড়ান্ত করার কাজ চলছে আরো বেশ কিছু গুচ্ছগ্রামের জন্য।”

তিনি বলেন, “২০০৯ সালের জানুয়ারি মাসে শুরু হওয়া এ প্রকল্পটির প্রথম পর্ব আগামী বছরের জুন মাসে শেষ হবে। এসব গুচ্ছগ্রাম প্রতিষ্ঠা হলে ১০ হাজার ৬৫০ ভূমিহীন, ঠিকানাবিহীন, গৃহহীন ও নদী-ভাঙ্গা পরিবারকে পুনর্বাসন করা সম্ভব হবে।”

তিনি জানান, শহরমুখিতা ঠেকাতে এদেরকে স্থানীয়ভাবে প্রশিক্ষণ এবং বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের (বিআরডিবি) আওতায় ঋণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাঁচ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত নেওয়া এসব ঋণের টাকায় তারা পশু ও হাঁস-মুরগি পালন এবং সবজির চাষ করে আয় বাড়াচ্ছে। একইসঙ্গে তাদের মূল কাজ করেও তারা সংসার চালাতে পারছে।

তবে গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দা আয়েশা বেগম জানালেন বেশ কিছু দাবির কথা। তিনি বলেন, ঠিকানার ব্যবস্থা হলেও আশেপাশের বখাটেদের উৎপাত এখনো রয়ে গেছে। এছাড়া গুচ্ছগ্রামের প্রবেশে একটি সড়ক তৈরি এবং যথাযথ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হলে আর কোনো সমস্যা থাকবে না।

বিদ্যুৎ না থাকা নিয়েও অভিযোগ রয়েছে কারো কারো। এ বিষয়ে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানা ইয়াসমিন লিলি বলেন, কাছেই বিদ্যুত থাকা সত্ত্বেও সংযোগ পেতে পিলার দরকার। আর তা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি বিনামূল্যে দিচ্ছে না। স্থানীয়ভাবে এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকে অর্থের যোগান দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

খুব শিগগির বিদ্যুতের ব্যবস্থা হবে বলে আশা করছেন তিনি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
মহসীনুল করিম
মুন্সিগঞ্জের মোল্লাকান্দি থেকে ফিরে

Leave a Reply