তিনি চাইতেন শিক্ষার্থীরা বইয়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হোক

শিক্ষকের প্রিয় শিক্ষক
ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
আমার প্রিয় শিক্ষকের তালিকাটা বেশ দীর্ঘ। আমার ব্যক্তিত্ব গঠনে প্রিয় এই শিক্ষকরা গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলেছেন। স্কুল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় এবং পরবর্তী সময়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকালীন অনেক শিক্ষকেরই বিশেষ গুণমুগ্ধ হয়েছি। কারো ব্যক্তিত্ব, কারো সাহিত্য দর্শন, কারো পাঠদানশৈলী, কারো জীবনাচরণ অথবা রাজনৈতিক দর্শন আমাকে প্রভাবিত করেছে। প্রথমেই মনে পড়ে দেশভাগের আগে রাজশাহীর লোকনাথ স্কুলের প্রধান শিক্ষক গোষ্ঠী বিহারী মজুমদারের কথা। অসম্ভব ব্যক্তিত্বসম্পন্ন এই শিক্ষক স্বামী বিবেকানন্দের ভক্ত ছিলেন। তাঁর পোশাক-পরিচ্ছদেও ছিল স্বামী বিবেকানন্দের প্রভাব। একজন শিক্ষকের কেমন হওয়া উচিত, তা আমি গোষ্ঠী বিহারী মজুমদারকে দেখে শিখেছি। কৈশোরের শুরুতেই এ শিক্ষক আমার ব্যক্তিত্ব গঠনে বিশেষ প্রভাব ফেলেছেন। দেশভাগের পর আমি সেন্ট গ্রেগরী স্কুলে ভর্তি হই। সেখানে বাংলার শিক্ষক সতীশ চন্দ্র চক্রবর্তী আমার প্রিয় হয়ে উঠলেন। বুদ্ধদেব বসুর সহপাঠী অকৃতদার এ শিক্ষক ছিলেন বাংলা সাহিত্যের অনুরাগী। তিনি বুদ্ধদেব বসুর বিভিন্ন লেখা আমাদের পড়াতেন, যা পরবর্তী সময়ে আমার চিন্তাচেতনার গঠন ও বিকাশে যথেষ্ট প্রভাব ফেলেছে। এরপর কলেজজীবনে সেন্ট গ্রেগরী কলেজের (বর্তমান নটর ডেম কলেজ) খণ্ডকালীন শিক্ষক অজিত কুমার গুহকে বিশেষভাবে মনে পড়ে। স্যারের কাছ থেকেই কবিতা বুঝতে শিখেছিলাম। রবীন্দ্রনাথের ‘সোনার তরী’কে তিনি বলেছিলেন ইতিহাস বিধাতা, যা মানুষের সৃষ্টিকে নিয়ে যাবে কিন্তু মানুষকে নেবে না।

‘সোনার তরী’র এই ব্যাখ্যা আমাকে আলোড়িত করেছিল, যা আমি কখনোই ভুলিনি। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিভাগে ভর্তির পর সেখানকার শিক্ষক জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা ও খান সারওয়ার মুরশিদের সঙ্গে আমার সখ্য গড়ে উঠেছিল। এর কারণ ছিল তাঁরা দুজনই পত্রিকা সম্পাদনা ও প্রকাশের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। পত্রিকা সম্পাদনা ও প্রকাশনায় আমার প্রচণ্ড আগ্রহ ছিল। আরেকটি ব্যাপার ছিল, স্যারদের মতো আমিও অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের চেতনা লালন করতাম। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পর তাঁদের সঙ্গে সম্পর্ক আরো গভীর হয়। খান সারওয়ার মুরশিদকে বলা হতো র‌্যাডিক্যাল হিউম্যানিস্ট। তাঁর প্রভাবে আমার রাজনৈতিক চেতনা আরো পোক্ত হয়েছিল। সারওয়ার মুরশিদ একজন আদর্শ সম্পাদক ছিলেন। প্রতিটি লেখা তিনি যত্নসহকারে মনোযোগ দিয়ে পড়তেন এবং সম্পাদনা করতেন। তাঁর কাছে সম্পাদনার এ গুণটি আমি শিখেছি। বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকালে কয়েকজন শিক্ষক আমার প্রিয়পাত্র হয়ে উঠেছিলেন।

তাঁদের মধ্যে একজন যুক্তরাজ্যের লিডসের শিক্ষক উইলসন নাইট। এত দিন আমার ধারণা ছিল, ক্লাসে টানা কথা বলতে না পারাটা বোধ হয় শিক্ষকের দুর্বলতা। তাই ক্লাসে পড়ানোর সময় আমরা হরহর করে বলে যেতাম। কিন্তু উইলসন নাইট ক্লাসে বই, নোট নিয়ে আসতেন। নোট দেখে থেমে থেমে পড়াতেন। এত চমৎকার করে পড়াতেন যে আমি অল্প দিনেই তাঁর ভক্ত হয়ে গেলাম। শিক্ষা দেওয়ার এ ধরনটি আমার ওপর প্রভাব ফেলেছিল। পরে লেস্টারে পড়তে গিয়ে সেখানকার একজন শিক্ষক জেফারসনকে আমার ভীষণ ভালো লেগেছিল। তাঁর একটি বিশেষ গুণ আমাকে আকৃষ্ট করেছিল। আমরা শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার খাতায় ভুলত্রুটিগুলো খুঁজে বের করে লাল কালিতে চিহ্নিত করতাম। তিনি তা করতেন না। শিক্ষার্থীদের খাতায় ভালো দিকগুলো তিনি ভীষণ মনোযোগ আর গুরুত্ব দিয়ে খুঁজে বের করতেন। ভালো দিকগুলো লাল কালিতে চিহ্নিত করতেন। শিক্ষার্থীদের ভালো দিকগুলোকে উৎসাহিত করতেন। এখন পর্যন্ত এ রকম শিক্ষক আমি আর দেখিনি।

এই শিক্ষকরা ছাড়াও আরো একজন শিক্ষক আমার বিশেষ প্রিয়। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়াত শিক্ষক এ বি এম হাবিবুল্লাহ। তিনি সরাসরি আমার শিক্ষক ছিলেন না। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁকে আমি খুব কাছ থেকে দেখেছি। দাঙ্গার কারণে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষকতা ছেড়ে তিনি বাংলাদেশে আসতে বাধ্য হয়েছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেডিয়ামের একটি কক্ষে তিনি বইয়ের দোকান দেন। প্রতিদিন তিনি বিকেলে দোকানে বসে বই পড়তেন ও বিক্রি করতেন। শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা যেন সহজেই মানসম্মত বই কিনতে ও পড়তে পারেন, সে বিষয়ে তিনি সচেষ্ট ছিলেন। তিনি চাইতেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বইয়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হোক। একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হয়ে বইয়ের দোকান দেওয়ার বিষয়টি তাঁর প্রতি আমাকে আকৃষ্ট করেছিল।

এ ছাড়া তিনি প্রখর স্বাধীনচেতা ছিলেন। আইয়ুব খানের সময় শিক্ষকদের স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি হয়েছিলেন। টিক্কা খান তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর। তৎকালীন রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে টিক্কা খান বিদায় আসন্ন বুঝতে পেরে বিদায়ের আগ মুহূর্তে ছয়জন শিক্ষককে সতর্ক করে চিঠি দিয়ে যান। এই ছয় শিক্ষকের মধ্যে প্রফেসর হাবিবুল্লার সঙ্গে আমিও ছিলাম। এতে তাঁর সঙ্গে আমার ঘনিষ্ঠতা আরো বেড়ে গিয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে দৃঢ়চেতা, আত্মমর্যাদাবোধসম্পন্ন এ শিক্ষক ভারতে আশ্রয় নেননি। কারণ ভারত থেকে তাঁকে বিতাড়িত হতে হয়েছিল। তিনি বহু ঝুঁকি নিয়ে কাবুল হয়ে অঙ্ফোর্ডে চলে যান। দেশে থাকলে নিশ্চিতভাবেই তাঁকে শহীদ শিক্ষকদের মতো ভাগ্য বরণ করতে হতো। তাঁর সাদামাটা জীবনযাপন ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের সাহস আমাকে মুগ্ধ করত। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন গঠনও মূলত তাঁরই ধারণা। তিনি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের দ্বিতীয় চেয়ারম্যান।

এমন গুণী শিক্ষকদের সাহচর্য পেয়েছিলাম বলে আমি আনন্দিত। আমার ব্যক্তিত্বের নানা দিক গঠনে এসব শিক্ষকের যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। সবার কাছেই আমি কৃতজ্ঞ।

ইমেরিটাস অধ্যাপক
ইংরেজি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

কালের কন্ঠ

Leave a Reply