বিশ্বের সর্বোচ্চ টাওয়ারের যাত্রা শুরু

রাহমান মনি
বিশ্বের সর্বোচ্চ টাওয়ার টোকিও স্কাইট্রি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। ২২ মে মঙ্গলবার সকাল ৯টায় এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ৬৩৪ মিটার উঁচু বিশ্বের সর্বোচ্চ এবং অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্বলিত টোকিওর নতুন প্রতীক এই টাওয়ারটি দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেয়া হয়। এর ফলে এতদিনের চিরচেনা টোকিও (৩৩৩ মিটার উচ্চতাসম্পন্ন)কে ছাড়িয়ে জাপানে তো বটেই চীনের ক্যানটন টাওয়ার (৬০০ মিটার উচ্চতাসম্পন্ন)কে পেছনে ফেলে গিনেজ বুকে স্থান করে নিয়েছে টোকিও স্কাইট্রি।

৩ বছর ৮ মাস সময় লেগেছে এই টাওয়ারটি তৈরি করতে এবং ৫ লাখ ৮০ হাজার শ্রম দিবস ব্যয় করা হয়েছে। ১৪ জুলাই ২০০৮ সালে শুরু হয়ে ৩১ ডিসেম্বর ২০১১তে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ২০১১ মার্চের স্মরণকালের ভয়াবহ ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট বিপর্যয়ে ২ মাস বেশি সময় লাগে কাজ শেষ করতে। তবে ১১ মার্চের ভূমিকম্পে নির্মিতব্য টাওয়ারটি কোনো ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। কিন্তু নির্মাণ সামগ্রী সরবরাহ এবং বিভিন্ন পরীক্ষামূলক পর্যবেক্ষণের জন্য ২ মাস বন্ধ রাখা হয় নির্মাণ কাজ। টাওয়ারটি ভূমিকম্প প্রতিরোধ ব্যবস্থার অবকাঠামোতে তৈরি করা হয়েছে।

২২ মে ২০১২ মঙ্গলবার বৈরী আবহাওয়ায় সকাল ৯টায় ফিতা কাটার কথা থাকলেও প্রচুর লোক সমাগমের কারণে ২০ মিনিট আগেই করা হয়। সকাল থেকেই ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে থাকার জন্য প্রচুর লোক সমাগম হয়। ফিতা কাটার আনুষ্ঠানিকতা শেষ করার পর টোকিও স্কাইট্রি নামদাতা আয়ুমি নাকাজাওয়া (যিনি নামকরণ করেছিলেন) জুনিয়র হাইস্কুলে পড়া তার ১২ বছরের ছেলে কেনতাকে নিয়ে প্রথম দর্শনার্থী হিসেবে ৩৫০ মিটার উচ্চতায় ১ম পর্যবেক্ষণ ফ্লোরে প্রবেশ করে আনন্দে আপ্লুত হয়ে যান। তিনি বলেন, এত উপর থেকে আমি ভূমির সবকিছু দেখতে পাচ্ছি এ এক অন্যরকম অনুভূতি, ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। এই দিন প্রায় ৯,০০০ দর্শনার্থী উপরে উঠে অবলোকন করার সৌভাগ্য অর্জন করেন এবং ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে থাকেন। ১ম দিন প্রায় ২,১০,০০০ ভিজিটর স্কাইট্রি দেখার জন্য টাওয়ার এলাকায় জড়ো হন। ২য় দিন এই সংখ্যা ছিল ২,৪০,০০০ এবং তৃতীয় দিন ২,২০,০০০ এর মতো। তবে শনি ও রবিবার এই সংখ্যা যে আরো বেড়ে যাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

অর্থনৈতিক মন্দার কবলে পড়া জাপানের এই দুঃসময়ে স্থানীয় প্রশাসন সুমিদা মিউনিসিপ্যাল কর্তৃপক্ষ ১৩০ বিলিয়ন ইয়েন যোগান দেয়ার আশা ব্যক্ত করেন কেবল বিভিন্ন আনুষঙ্গিক সুবিধা থেকে। এর মধ্যে ৮৫ বিলিয়ন আসবে দর্শনার্থীদের কাছ থেকে। স্কাইট্রি এবং বিপণি বিতান কর্তৃপক্ষ জাপানের অন্যতম প্রধান পর্যটক কেন্দ্র হিসেবে আশাবাদ ব্যক্ত করে বছরে ৩২ মিলিয়ন পর্যটক পরিদর্শনের টার্গেট নিয়ে কাজ করার পরিকল্পনা করছেন। যা টোকিও ডিজনি রিসোর্ট (ডিজনি ল্যান্ড এবং ডিজনি সি, চিবা) থেকে ৭ মিলিয়ন বেশি। ডিজনি রিসোর্টে প্রতি বছর ২৫ মিলিয়ন দর্শনার্থী পর্যটকের সমাগম হয়ে থাকে।

স্কাইট্রি টেলিভিশন ও রেডিওর সম্প্রচার টাওয়ার হিসেবে কাজ করবে। যা ইতোপূর্বে টোকিও টাওয়ার করে থাকত। টাওয়ারের আশপাশে হাইরাইজ বিল্ডিং হয়ে যাওয়ায় সম্প্রচারে টোকিও টাওয়ারে বিঘœ সৃষ্টি করছিল যার জন্য টোকিও স্কাইট্রির জন্ম।

যেভাবে নামকরণ : টাওয়ার বানানোর যাবতীয় আনুষঙ্গিকতা (ডিজাইন, অনুমোদন) সম্পন্ন করার পর ২০০৮ সালে নামকরণ নিয়ে সিদ্ধান্ত হয় দেশবাসী থেকে নাম চাওয়া হবে। সেই মোতাবেক ২০০৮ এপ্রিল ১ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত ডেটলাইন দিয়ে নাম চাওয়া হয়। এতে সাড়া দিয়ে মোট ১৮,৬০৬টি নাম আসে সারা জাপান থেকে। ১০ জনের জুরিবোর্ড কর্তৃক বাছাইকৃত চূড়ান্ত পর্যায়ে ৬টি নাম নির্ধারণ করে আবার ভোট চাওয়া হয়। ভোটযুদ্ধে মোট ১১,০০,৪০৯ জন ভোট দান করেন। মোট ভোটের এক-তৃতীয়াংশ ভোট পেয়ে চূড়ান্ত নাম নির্ধারিত হয় টোকিও স্কাইট্রি (ঞড়শুড় ঝশুঃৎবব)। স্কাইট্রির পক্ষে ৩২৬৯৯ ভোট পড়ে। এই নামটি পাঠান টোকিওর অদূরে সাইতামা-কেন থেকে নাকাজাওয়া আয়ুমি (অুঁসর ঘধশধুধধি) নামক এক কোম্পানি এমপ্লয়ই। নামটি পাঠিয়ে তিনি ইতিহাসের একটি অংশ হয়ে টোকিও স্কাইট্রির সঙ্গে একাকার হয়ে যান।

কেন ৬৩৪ মিটার উচ্চতা নির্ধারণ : টোকিও স্কাইট্রি ৬৩৪ মিটার উচ্চতা নিয়ে পৃথিবীর ২য় সর্বোচ্চ এবং জাপানের প্রথম নির্মিত সর্বোচ্চ স্থাপনা হিসেবে গর্বের সঙ্গে দাঁড়িয়ে আছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে ৬৩৪ মিটার কেন নির্ধারিত হয়?

একবিংশ শতাব্দীর আজকের আধুনিক জাপান ৬ শতাব্দীতে কয়েকটি দেশ (কুনি) এ ভাগ করে প্রতাপশালীরা পরিচালনা করত। আজ যেমন জাপান প্রিফেকচারে ভাগ তেমনি ৬ শতাব্দীতে বেশ কয়েকটি কুনি বা দেশে বিভক্ত ছিল। পরিচালনাকারীদের নাম অনুসারে কুনি বা দেশগুলোর নাম ছিল। যেমন মিনোনো কুনি, ওয়ারিনো কুনি, ইজুমোনো কুনিসহ আরো অনেক নামে অভিহিত ছিল। টোকিও, সাইতামা, চিবা এবং কানাগাওয়ার কিছু অংশ নিয়ে মুসাসিনো কুনি নামে একটি দেশ ছিল। ৬ হচ্ছে মুৎসু, ৩ হচ্ছে সান এ ৪ হচ্ছে সি (৬৩৪) মুৎসুর মু, সানের সা এবং সি বা ‘মুসাসি’ মনে রাখার সুবিধার্থে ঐতিহাসিক নাম অনুসরণ করা হয়। তাছাড়া জাপানে শৌর্যবীর্যের প্রতীক হচ্ছে মুসাসি। সামুরাই যুগে মিয়ামোতো মুসাসি ছিল জাপানের বীরের প্রতীক। বিংশ শতাব্দীর শেষার্ধে জাপানে ট্রাডিশনাল সুমো কুস্তিতে মুসাসি মারু (হাওয়াই বংশোদ্ভূত, সুমো কুস্তির সর্বোচ্চ র‌্যাংক ইয়োকোজুনা) ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছেন। মুসাসি জাপানে খুবই জনপ্রিয় এবং ইতিহাসের সঙ্গে জড়িত। তাই ৬৩৪ ফুট উচ্চতা নির্ধারণ করে বরং ইতিহাসকে সম্মান জানানোর সঙ্গে নতুন করে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হয়েছে। টোকিও স্কাইট্রিকে তাই জাপানিদের কাছে মুসাসি (৬৩৪) হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।

দ্রুত গতির লিফট সুবিধা : টোকিও স্কাইট্রিতে ৩৫০ মিটার উঁচুতে উঠার (১ম ডেক) জন্য ৪টি লিফট সুবিধা আছে। প্রতিটি লিফটের ধারণক্ষমতা ৪০ জন এবং প্রতি মিনিটে ৬০০ মিটার পর্যন্ত দ্রুত গতিসম্পন্ন। এ ছাড়াও ১ম পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র (৩৪০ মিটার উচ্চতা) থেকে ২য় পর্যবেক্ষণ (৪৫০ মিটার উচ্চতায়) কেন্দ্রে ওঠার জন্য রয়েছে আরো দুটি দ্রুত গতিসম্পন্ন লিফট। লিফটগুলো হিটাচি এবং তোশিবা কোম্পানির তৈরি। মোট ১৩টি লিফট কাজ করছে স্কাইট্রি স্থাপনায়।

টিকেট সিস্টেম : ৩৫০ মিটার উঁচু পর্যন্ত ১ম পর্যবেক্ষণ তলা পর্যন্ত ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে বয়স্কদের জন্য ২৫০০ ইয়েন এবং ১৮ বছরের নিচে ২০০০ ইয়েন রাখা হয়েছে রিজার্ভ টিকেটের জন্য। যারা রিজার্ভ না করে যাবেন তাদেরকে অতিরিক্ত ৫০০ ইয়েন গুনতে হবে। যদি তারও উপরে অর্থাৎ ২য় পর্যবেক্ষণ তলায় (৪৫০ মিটার উঁচু) ইচ্ছা জাগে তাহলে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বদের অতিরিক্ত আরো ১০০০ ইয়েন (মোট ৩,৫০০ ইয়েন বা ৩,৬০০ টাকা (প্রায়) এবং ১৮ বছরের নিচে আরো ৮০০ ইয়েন অতিরিক্ত গুনতে হবে।

আগামী ১০ জুলাই ২০১২ পর্যন্ত সব টিকেট রিজার্ভ হয়ে গেছে। প্রথম দফায় অনলাইনের মাধ্যমে ১০ জুলাই পর্যন্ত টিকেট বিক্রি শুরু করলে স্বল্প সময়ে সব শেষ হয়ে যায়। এখন ২য় দফায় ১১ জুলাই থেকে বিক্রি শুরু হয়েছে।

উদ্ভোধনী অনুষ্ঠান সাদামাটা : বাংলাদেশে একটি রাস্তা কিংবা ব্রিজের ভিত্তিপ্রস্তর কিংবা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেখানে প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতি অনিবার্য সেখানে পৃথিবীর সর্বোচ্চ টাওয়ার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদের কেউ বা কোনো হোমনা তোমনা উপস্থিতি ছিল না। ছিল স্থানীয় প্রশাসন, মিডিয়াকর্মী এবং নামদাতা। সম্মান জানানো হয়েছে যিনি নামকরণ করেছিলেন সেই নামদাতাকে। উদ্বোধনী ফিতা কাটার পরই আয়ুমি নাকাজাওয়া এবং তার ছেলে কেনতা নাকাজাওয়াকে দ্রুতগামীর লিফটে করে (মিনিটে ৬০০ মিটার) ৩৫০ মিটার উঁচুতে ১ম পর্যবেক্ষণ তলায় নেয়া হয়।

প্রশিক্ষিত ৪০০ ভলান্টিয়ার : দর্শনার্থীদের অভ্যর্থনা, গাড়ি পার্কিং, টিকেট গ্রহণ, লিফট পরিচালনাসহ বিভিন্ন সার্ভিস নিশ্চিত করার জন্য ৪০০ কর্মী প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। ২০ মে রোববার চূড়ান্ত মহড়া অনুষ্ঠিত হয়। সুসজ্জিত এই ৪০০ কর্মী বাহিনীর সঙ্গে স্থানীয় প্রশাসন থেকে ২০০ পুলিশ অফিসার্স ডিউটি পালন করে যাচ্ছে। স্কাইট্রির চারপাশে ৪০০ মিটার পর্যন্ত কোনো ধরনের পার্কিং নিষিদ্ধসহ কয়েকটি রাস্তা (লোক চলাচলের জন্য) গাড়ি চলাচল সাময়িক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

বিশ্বে সর্বোচ্চ ৫টি টাওয়ার : আজ যেটি সর্বোচ্চ, যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল রেখে নতুন নতুন স্থাপনার কারণে কাল সেটি হয়ে যাচ্ছে ইতিহাসের একদার খাতায়। বিশ্বে ৫টি টাওয়ারের তালিকাÑ ১. টোকিও স্কাইট্রি (জাপান) ৬৩৪ মিটার, ২. ক্যানটন টাওয়ার (চায়না) ৬০০ মিটার, ৩. সিএন টাওয়ার (কানাডা) ৫৫৩ মিটার, ৪. টোকিও টাওয়ার (জাপান) ৩৩৩ মিটার এবং ৫. আইফেল টাওয়ার (ফ্রান্স) ৩২৪ মিটার)।

একনজরে টোকিও স্কাইট্রি
* উচ্চতা : ৬৩৪ মিটার (পৃথিবীর সর্বোচ্চ টাওয়ার), টোকিও টাওয়ার ৩৩৩ মিটার।
* দ্বিতীয় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র : ৪৫০ মিটার উঁচুতে এবং ধারণক্ষমতা একত্রে ৯০০ জন।
* প্রথম পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র : ৩৫০ মিটার উঁচু এবং ধারণক্ষমতা একত্রে ২০০০ জন।
* ট্রান্সমিশন ওয়েবস : টেরিস্টোরিয়াল ডিজিটাল টিভি সম্প্রচার স্টেশন (পাঁচটি বাণিজ্যিক সম্প্রচার কেন্দ্রসহ সরকারি মালিকানাধীন ঘঐক, দুইটি এফএম রেডিও স্টেশন, ট্যাক্সি দিকনির্দেশনা (রেডিও) এবং স্মার্ট ফোন ব্যবহারকারী (পেইড) সম্প্রচারসহ অন্যান্য সুবিধা সম্পন্ন টাওয়ার।
* নির্মাণ কাল : ১৪ জুলাই ২০০৮ থেকে ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০১২।
* মোট শ্রমিক : ৫,৮০,০০০ (প্রতিদিন সর্বনিম্ন ৫০০ এবং সর্বোচ্চ ১২০০ পর্যন্ত।
* মোট ব্যয় : ৬৫ বিলিয়ন ইয়েন (প্রায়)।
* ভিত্তি : ত্রিভুজাকৃতি, প্রতিটি সাইড ৬৮ মিটার (টোকিও টাওয়ার বর্গাকৃতি এবং প্রতিটি ৮০ মিটার)।
মূল ভিত্তির গভীরতা : ৫০ মিটার (টোকিও টাওয়ার ২৩ মিটার)।
ব্যবহৃত স্টিল ফ্রেম উপাদান : আড়াআড়িভাবে ২.৩ মিটার এবং ১০ সেমি পুরু।
* মোট ওজন : ৪১,০০০ টন (প্রায়) যা টোকিও টাওয়ারের দশগুণ।
* লিফট সুবিধা : মোট ৬টি, ধারণক্ষমতা ৪০ জন একত্রে, মিনিটে ৬০০ মিটার দ্রুত গতিসম্পন্ন প্রথম পর্যবেক্ষণ পর্যন্ত। মোট লিফট ১৩টি।
* নির্মাণ কোম্পানি : ওবায়াশি কর্পোরেশন/ মূল, তোবু টোকিও স্কাইট্রি কোম্পানি লিমিটেড।
* বাণিজ্যিক সুবিধা : একুইরিয়াম, শপিং সেন্টার (গিফট আইটেম, রেস্তোরাঁ, বিউটি পার্লার, হেলথ সেন্টার, খেলনা সামগ্রীর দোকান) আছে প্লানেটারিয়াম সুবিধা, ব্যাংক, ট্রাভেল সার্ভিস, ফ্যাশন, ব্রেকারিসহ আরো বিভিন্ন।
* মালিকানা : তোবু টাওয়ার স্কাইট্রি কোম্পানি লিমিটেড।
* আর্কিটেক্ট : Nikken Sekkei

সহযোগিতায় : আশিক
rahmanmoni@gmail.com
সাপ্তাহিক

Leave a Reply