সাংবাদিক নির্যাতনে পুলিশ

ব.ম শামীম: সম্প্রতি পুলিশের আচরনে দেশের মানুষ উদ্বিগ্ন। হঠৎ করে পুলিশের এ ধরনের আচরনে বিব্রত বোধ করছে দেশের শীর্ষস্থাণীয় ব্যাক্তিরা। বিশেষ করে জাতীর বিবেক সাংবাদিকদের লাঠিপেটা সহ বিভিন্নভাবে লঞ্চিত করার ঘটনা দেখে মনে হচ্ছে সাংবাদিকদের পতিপক্ষ হিসাবে বেঁছে নিয়েছে তারা। মানবঅধিকার সংস্থা অধিকারের তথ্য মতে চলতি বছরের এপ্রিল মাস পর্যন্ত সারাদেশ পুলিশের হাতে ১১০ জন সাংবাদিক পুলিশের নির্যাতনের শিকার হয়েছে। সম্প্রতি সাংবাদিকদের উপর হামলার অভিযোগে ১০ পুলিশ সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তারপরও থেমে নেই সাংবাদিক নির্যাতন। কি সাংবাদিক সাহেব পুলিশ হঠৎ করে আপনাদের উপর এতো ক্ষেপে উঠলো কেন? এমনি শত জিজ্ঞাসা এখোন মানুষের মুখে মুখে। এই প্রশ্নের সদউত্তরই বা কি মাঝে মাঝে খুব বিব্রতকর অবস্থার সন্মুখিন হতে হয়। সেদিন ফেসবুকে দেখলাম আমাদের এক সাংবাদিক বন্ধু লিখেছে আসুন পুলিশের দূর্ণীতির চিত্র সবাই একযুগে তুলে ধরি দেখি কার শক্তি বেশী সাংবাদিকের কলমের না পুলিশের বন্দুকের। মনে মনে প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম না পুলিশের বিরুদ্ধে এবার কিছু লিখতেই হয়।

একটি কথা অনেকবার আমি শুনেছি পুলিশ পারেনা এমোন কোন কাজ নাই। কথাটির মর্মটি সেদিনই সঠিকভাবে অবগত হতে পেরেছি যেদিন পুলিশ শিক্ষকদের পিটিয়েছিলো। সেদিনই মনে মনে ভাবছিলাম দেশ গড়ার কারিগর শিক্ষকদের যারা পিটাতে পারে আসলেই তাদের পক্ষে না পারা কোন নিষ্ঠুর কাজ নেই।

এ সমস্ত পুলিশগুলোরকি সে সময় মনে হয়নি শিক্ষকরা তাদের শিক্ষা দিয়েছে বলেই আজ তারা সেই শিক্ষার জোরেই পুলিশের মতো চাকুরী পেয়েছে। পুলিশ হতে পেরেছে।

আমি আজো দেখেছি আমার বাড়ির পাশের প্রাইমারী বিদ্যালয়টিতে বিনামূল্যে শিক্ষকরা ছাত্রছাত্রীদের কুচিং করাচ্ছেন।

সেদিন এক শিক্ষক সাহেব দুঃখ করে বললেন বিনামূল্যে কুচিং করাচ্ছি তারপরও ছাত্র ছাত্রীরা কুচিং করতে আসছেনা। তাই রাগ করে অনেক অভিবাবকদের বললাম এখোন হতে বাধ্যতামূলকভাবে ছাত্র ছাত্রীদের কুচিং করাতে হবে এবং মাসে দু শত করে টাকাও দিতে হবে। কিন্তুু এক অভিবাবক বললো টাকা দিতে পারবে না আমি বললাম টাকা না দিতে পারেন আমার কাছ হতে প্রতিমাসে দু শত করে নিয়ে যেয়েন তারপরও বাচ্চাদের কুচিংয়ে পাঠাইয়েন। এই যে ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা দেওয়ার প্রবনতা শিক্ষদের এটা আমি অনেক শিক্ষকের মধ্যেই দেখেছি। মনে পরে শিক্ষকরা আমাদের ক্লাশে অক্লান্ত পরিশ্রম করে পড়াতেন আর বলতেন তোরা যদি মানুষ হচ্ছ তাহলেই আমাদের সকল পরিশ্রম স্বার্থক। বাবা মা সুধু জন্মই দেন আর মানুষ হিসাবে মানুষত্বের শিক্ষাটা আমরা শিক্ষকদের কাছ হতেই পেয়ে থাকি।

আমাদের মনে রাখতে হবে এ জগতে কুকুরের পেটে কুকুর জন্ম নেয়,গরুর পেটে গরু জন্ম নেয়, মানুষের পেটে জন্ম নিলেই মানুষ হওয়া যায় না । মানুুষ হতে হয় মানষত্বের দ্বারা। আর এই মানুষত্ব গড়ার কারিগর শিক্ষদের পিটানের সময় ঐই সকল পুলিশদের মনে হয়নি তাদের শিক্ষকদের কথা তাদের শ্রমের কথা তাদের দানের কথা।

যাই হোক পুলিশের সম্পর্কে ধারনাটা ছোট বেলা হতেই ভালোনা আমার।

ছোটবেলা কোন অন্যায় করলেই মা পুিলশের ভয় দেখাতেন। রাতে ঘুম আসতে দেরী করলেও পুলিশের ভয় দেখিয়ে বলতো এই ঘুম এসো না হলে পুলিশ ডাকবো পিটায়ে ঘুম পারাবে। তখন পুলিশ কি সে সম্পর্কে কোন ধারনাই ছিলোনা আমার। সে সময় ভাবতাম পুলিশ মনে হয় রুপ কথার কোন দত্য দানব হবে নিশ্চয়।

যাই হোক বড় হওয়ার সাথে সাথে পুলিশের সম্পর্কে ধারনারও পরিবর্তন হতে শুরু করলো। কিন্তু তাদের কিছু কার্যকলাপ দেখে মনের মধ্যে একটি ধারনা জন্ম নিলো টাকা হলে পুলিশ দিয়ে করানো যায় না এমোন কোন কাজ নেই।

একটি পুচকে সাংবাদিক হওয়ার আগ পর্যন্ত পুলিশের সাথে সেভাবে সাক্ষ্যতা গড়া হয়নি আমার। আমার পরিবার কিংবা আপ্তীয় স্বজনদের মধ্যে পুলিশে কোন লোক চাকুরী না করায় সেভাবে কোন দিনই সাংবাদিক হওয়ার আগ পর্যন্ত কোন পুলিশ সদস্যকে কাছ হতে দেখা হয়নি আমার।

যাই হোক এর মধ্যে সাংবাদিক হিসাবে দু-এক কলম লিখতে শুরু করেছি। আমার গ্রামের বাড়ি টঙ্গীবাড়ী উপজেলার ছোট একটি গ্রাম চাঠাতি পাড়া। এ গ্রামের লোকজন খুব স্বচ্ছল। যে যার কাজ নিয়ে খুব ব্যাস্ত। এ গাঁেয়র বেশীর ভাগ লোকেই বিদেশে চাকুরী করে। কিন্তু দুএকটি টাউট বাটপার ওযে আছে। যেমন তেমন টাউট নয় খুব নামকারা দু একটি টাউটের ও এ গাঁয়ে জন্ম। এ সমস্ত টাউটরা গাঁয়ে স্থায়ীভাবে থাকে না। এরা ঢাকা থাকে প্রায় গাঁয়ে এসে সাধারন মানুষের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লাগিয়ে দিয়ে বিভিন্ন লোকের কাছ হতে ফয়দা লুটে নেয় এরা। এ সমস্ত টাউটদের সাথে সর্ম্পক আমার মোটেই ভালো না। আমি সংবাদপত্র কাজ করি বলে এরা বিভিন্ন সমালোচনা করে আমায় নিয়ে। এ সমস্ত টাউটদের প্রচারনায় আমি এক সময় মিথ্যা নারী নির্যাতন মামলার আসামী হয়ে গেলাম। যাই হোক আদালত হতে আমার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী হয়েছে। হঠৎ করে একদিন শুনলাম বাড়িতে পুলিশ এসেছিলো। থানায় গেলাম নিজের পরিচয় দিয়ে জানতে চাইলাম আমাদের বাড়িতে পুলিশ গিয়েছিলো কেন। যাই হোক পুলিশের এক এএসআই আমাকে গ্রেফতারী পরোয়ানা দেখিয়ে বললো এই যে আপনার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারী হয়েছে আমি আপনাকে ইচ্ছা করলে এখোন গ্রেফতার করতে পারি। আপনি থানা হতে চলে যান কারন যদি উক্ত মামলার বাদী এসে আপনাকে ধরতে বলে তাহলে আমার আপনাকে গ্রেফতার না করে উপায় থাকবোনা আর যে ভাবে পারেন তারাতারী আদালতে হাজির হয়ে জামিন নিয়ে আসেন, তানাহলে বিপদে পরবেন। মনে পরে আমি ভয়ে পুলিশ সদস্যকে সেদিন টাকা সাধ ছিলাম। কিন্তু সে কিছুতেই আমার টাকা নিতে রাজী হচ্ছিলোনা। আমি তাকে উক্ত মামলার অন্য আসমীর টাকা বলে জোর করে তার পকেটে ৫ শত টাকার একটি নোট দিয়ে চলে আসলাম।

সেদিন পুলিশ সম্পর্কে ধারনাটা আমার মনের মধ্যে একটু করে পল্টাতে থাকলো। না টাকা সেও পুলিশ সদস্যটা নিতে চাইলোনা না সকল পুলিশ সদস্য এক রকম না।

যাই হোক তার পর হতে সাংবাদিক হিসাবে তথ্য সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন থানা পুলিশের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ আছে আমার। তাদের সাথে বেশ ভালোই সক্ষ্যতা গড়ে উঠে। প্রায়ই অনেক পুলিশ সদস্য থানা হতে বদলী হয়ে আমার কর্মস্থলের বাইরে অন্য দুরে কোন থানায় চলে যায় এতে মাঝে মধ্যে কারো জন্য মনটাও খুব খারাপ হয়ে যায় ।

তবে আমার জীবনে বড় ভাইয়ের মতো এক পুলিশ সদস্যর ছায়া পেয়েছিলাম সে হলো ওসি আবদুল্লাহ । আমার পরিবারের বিপদের সময় সে আমার পরিবারের পাশে ছায়া হয়ে দাড়িয়েছিলো।

নারী নির্যাতন মামলায় কাবু করতে না পেরে ঐই টাউটগুলো আমায় পিছঁনে আবার ওঠে পরে লাগলো। মিথ্যা হত্যা মামলার আসামী করলো আমায় । মুন্সীগঞ্জের সে সময়ের এসপি শফিকুল ইসলাম সাহেব সরোজমিনে আমার বাড়িঘর ও হত্যা মামলার বিষয়টি তদন্ত করার পর বললো ভয় নেই তোমার। আদালতে যখন কেউ নালিশ করে তখোন আদালতের এতো কিছু বিচার করার সুযোগ থাকে না। আদালতে স্বাক্ষী প্রমানের পর সকল কিছুই অবগত হয়।

যাই হোক এ ক্ষেত্রে পুলিশেরও একটি ভূমিকা আছে আমি কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে তোমার মামলার ফাইনাল রির্পোট দিয়ে দিবো।

পুলিশ ঠিকই আমার সেই মামলার ফাইনাল রির্পোট দিয়ে দিয়েছিলো। আমি শত চেষ্টা করেও আমার এই উপকারের বিনিময়ে পুলিশকে কিছু দিতে পারিনি।

সেদিন হঠৎ করে টঙ্গীবাড়ী থানায় ঢুকতেই ওসি আবদুল্লাহ সাহেব হাসি মুখে ডেকে রুমে নিয়ে বললো সাংবাদিক সাহেব সারাদেশে পুলিশের সাথে সাংবাদিকদের যে সংঘর্ষ শুরু হয়েছে কবে আবার আপনাদের সাথে আমার সংঘর্ষ লেগে যায় আমিতো ভয়ই পাচ্ছি। তাই আসুননা আমরা সকলে মিলে একসাথে একটু চা খাই। আমি মিটিমিটি হেসে বললাম চাতো ভাই আমরা প্রায়দিনই আপনার সাথে খাই। আমিতো আপনাদের সাথে সংঘর্ষের কোন কারনতো দেখতে পাচ্ছিনা।

তাই মাঝে মাঝে ভাবি সব পুলিশ সদস্যরা যদি আবদুল্লাহর মতো হতো তাহলে আর মনে হয় পুলিশের সাথে সাংবাদিকদের সংঘর্ষ হতো না। পুলিশ আর সাংবাদিকতো একে অপরের প্রতিপক্ষ নয় তবে কেন তাদের সাথে সংঘর্ষ হবে ? আইন শৃঙ্খলার উন্নায়নে একে অপরের সহযোগী হিসাবে কাজ করবে এটাইতো প্রত্যাশা। স্বরাষ্ট মন্ত্রী সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় দূঃখ প্রকাশ করে বলেছেন আমাদের দেশের ১ লক্ষ ৪০ হাজার পুলিশ সদস্য সকলের মন মানষিকতা এক রকম নয়। কথাটি নিয়ে মাঝে মাঝে ভাবি আর শিল্পাঞ্চল থানার পুলিশ সদস্যদের সাংবাদিক পেটানোর দৃশ্যটা আর টঙ্গীবাড়ী থানার ওসি আবদুল্লাহর হাসি হাসি মুখটা মনে পরে ।

মনে হয় স্বরাষ্ট মন্ত্রীর কথাটিই ঠিক কিছু পশু রুপি পুলিশ সদস্যর কারনেই আজ সাংবাদিক, শিক্ষক, সাধারন মানুষের সাথে পুলিশের দুরত্ব সৃষ্টি হয়েছে। এ ধরনের হীনমানুষিকতা সম্পন্ন পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে যত দ্রুত সম্ভব বিভাগীয় ব্যাবস্থা নিতে হবে। জনগনের ভরসার শেষ স্থল পুলিশের আচরন যদি এ ধরনের হয় তাহলে জনগনের যাওয়ার আর কোন যায়গা থাকবেনা। বাবা ছেলে ঝগড়া করেও কিন্তু আমরা দেখতে পাই নিরাপত্তার জন্য পুলিশের কাছেই ছুটে যান। আর এই পুলিশের আচরন যদি জনগনের প্রতি এরুপ বৈরিতা সম্পন্ন হয় তবে সরকার কেনইবা জনগনের টেক্রের টাকা দিয়ে পুলিশ নামের বাহিনী চালাবে। এই সত্যটি প্রত্যেক পুলিশ সদস্যকে অনুধাবন করতে হবে তাদের বেতন ভাতা সবই এদেশের জনগনের টেক্রের টাকায়ই হয়ে থাকে। পুলিশের মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার দাবী করেছেন,গুটি কয়েক পুলিশ সদস্যর কারনেই গোটা পুলিশ বিভাগ বিতর্কিত হচ্ছে।

এই গুটি কয়েক পুলিশ সদস্যকে বিভাগীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের মাধ্যমে শাস্তি প্রদান করে পুলিশ বাহিনীকে একটি কার্যকর বাহিনী হিসাবে গড়ে তুলা হবে এটাই জাতীর প্রত্যাশা।

সম্পাদক সাপ্তাহিক বিক্রমপুর চিত্র
আহবায়ক টঙ্গীবাড়ী প্রেস ক্লাব
মোবাঃ ০১৮১৮৪০৫০৮৯

Leave a Reply