শ্রীনগরে প্রেমের ফসলের স্বীকৃতি চাওয়ায় জীবন গেল স্কুল ছাত্রীর

হাসপাতালে লাশ রেখে পালিয়েছে লম্পট প্রেমিক
আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে প্রেমের ফসল হিসাবে গর্ভের সন্তানের স্বীকৃতি চাওয়ায় অষ্টম শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী মৌসুমিকে (১৪) জীবন দিতে হলো । এঘটনায় গত সোমবার রাতে ঢাকা মিটফোর্ড হাসপাতালে লাশ রেখে পালিয়ে গেছে লম্পট প্রেমিক বাবু (২২)।

মৌসুমির পারিবারিক সূত্র জানায়, সোমবার সকালে লম্পট বাবু বিয়ের কথা বলে মৌসুমিকে বাড়ি থেকে বের করে নিয়ে আসে। পরে আলামিন বাজারে এনে কৌশলে তাকে গর্ভপাতের জন্য ঔষধ খাইয়ে দেয়। কিছুক্ষন পর মৌসুমির বমি শরু হলে তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ঢাকা মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মৌসুমির অবস্থার অবনতি হলে তার মাকে খবর দেওয়া হয়। রাত সাড়ে আটটার দিকে হাসপাতালে মৌসুমির মৃত্যু হয়। এ সময় বাবু হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। পুলিশ জানায় বাবু হাসপাতালের রেজিষ্টারে বিষপানের কথা লিপিবদ্ধ করেছে।

মৌসুমির মামা সাঈদ জানায়,এলাকার প্রভাবশালী ম্যাগনেট বাহিনীর সদস্য বখাটে যুবক বাবু প্রায় তিন বছর আগে মৌসুমিকে প্রেম নিবেদন করে। মৌসুমি রাজি না হওয়ায় বাবু প্রায়ই উত্যক্ত করতো। বাবুর অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে মৌসুমিকে বাঘরা স্বরুপ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কাজী ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীতে ভর্তি করে দেওয়া হয়। প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় পিতৃহীন মৌসুমিকে প্রকাশ্যে মারধর করে বাবু। পরে নিজের ও পরিবারের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে এক পর্যায়ে মৌসুমি বাবুর প্রস্তাবে রাজি হয়। পরে বাবু তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরীক সম্পর্ক গড়ে তুলে। এতে মৌসুমি গর্ভবতি হয়ে পড়ে।

কিছুদিন পূর্বে সে তার নানী জীবনীকে (৬৫) বিষয়টি জানায় । এঘটনা জানার সাথে সাথে বাবুর পরিবারের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু বাবু বিয়েতে রাজি হওয়ার শর্ত হিসাবে তিন লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে। বাবুর কথায় পিতৃহীন মৌসুমির পরিবারের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে। গত কয়েকদিন আগে মৌসুমি নিরুপায় হয়ে বিয়ের দাবীতে বাবুর বাড়ীতে গিয়ে হাজির হয়। কিন্তু বাবুর বাবা-মা তার সাথে খারাপ আচরণ করে তাড়িয়ে দেয়। এতে মৌসুমি মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়ে।

গতকাল বিকালে মৌসুমির লাশ ঢাকা থেকে তাদের বাড়িতে নিয়ে আসলে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়।

মৌসুমির মা মনোয়ারা কান্নাজড়িত কন্ঠে তার মেয়ের হত্যার বিচার চেয়ে বলেন,আমার মত আর যেন কোন অসহায় মাকে প্রভাবশালীদের কাছে জিম্মি হয়ে সন্তানের জীবন দিতে না হয়।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান বলেন,মামলা নেওয়া হয়েছে। আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

শ্রীনগর, মুন্সীগঞ্জ
০১৭১৮-৭৫১০০৫

Leave a Reply