কী ভয়ানক যাত্রা!

মাওয়া-কাওরাকান্দি ও মাওয়া-মাঝিকান্দি নৌরুটে মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে ফের শুরু হয়েছে সিবোট চলাচল। যে পুলিশ প্রশাসন দুর্ঘটনা ও গুপ্তহত্যা রোধে এ নৌরুটে রাতে সিবোট চলাচল বন্ধ করেছিল, সেই পুলিশ সদস্যদের চোখের সামনেই রাতে তা চলাচল করছে বেপরোয়াভাবে। এতে নৌরুটে দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। এ পর্যন্ত কতগুলো সিবোট দুর্ঘটনা ঘটেছে, কতজন মারা গেছে- এর সঠিক পরিসংখ্যান পুলিশের খাতায় না থাকলেও কয়েকটি পৃথক সিবোট দুর্ঘটনায় সাত ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হয়েছেন প্রায় ৩০ জন।

জানা যায়, মাওয়া-কাওরাকান্দি নৌরুটে রাতের সিবোটে গত বছর ছিনতাই, ধর্ষণ, লুণ্ঠন, দুর্ঘটনা এমনকি গুপ্তহত্যার মতো অপরাধ বেড়ে গিয়েছিল। ঢাকা থেকে যাঁরা অতি প্রয়োজনে সন্ধ্যার পর দক্ষিণাঞ্চলের উদ্দেশে রওনা দিতেন, তাঁরা মাওয়া এসে অন্য কোনো নৌযান না পেয়ে সিবোটে করে পদ্মা পাড়ি দিয়ে ওপারে যেতেন। রাতের এ সিবোট পারাপারকে কেন্দ্র করে মাওয়া ঘাটে গড়ে ওঠে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। চক্রটির কয়েক সদস্য যাত্রী সেজে রাতের সিবোটে ওঠে। প্রকৃত যাত্রীদের সঙ্গে তারাও রওনা দেয় কাওরাকান্দির উদ্দেশে। এরপর মাঝপদ্মায় গিয়ে এ চক্রের যাত্রীবেশী সদস্যরা হয়ে যায় ডাকাত। লুটে নেয় যাত্রীদের সর্বস্ব এবং খুন করে পেট কেটে মাঝপদ্মায় ফেলে দেয় লাশ। অথবা পদ্মার কোনো চরে মাটিচাপা দিয়ে গুম করে ফেলে এসব লাশ। গত বছর কয়েক যাত্রী রাতে সিবোটে পদ্মা পার হতে গিয়ে নিখোঁজ হন। অবশেষে নিখোঁজ ব্যক্তিদের মোবাইল সেটের আইএমই নম্বরের সূত্র ধরে পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে আসে গুপ্তহত্যার রহস্য।

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানা ও মাদারীপুরের শিবচর থানার পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রোজার ঈদের কয়েক দিন পর নিখোঁজ তিন যাত্রীর হত্যারহস্য উদ্ঘাটিত হয়েছে তাঁদের মোবাইল সেটের আইএমই নম্বরের সূত্র ধরে। মাদারীপুরের বাহাদুরপুর ইউনিয়নের মীরকান্দি গ্রামের মৃত খালেদ ফকিরের ছেলে মো. সুপারউদ্দিন ফকির গত বছরের ৪ সেপ্টেম্বর ঢাকা থেকে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। মাওয়া থেকে রাতে সিবোটে পদ্মা পার হওয়ার সময় যাত্রীবেশী সংঘবদ্ধ ডাকাত সর্বস্ব লুটে নেয় এবং তাঁকে খুন করে নদীতে ফেলে দেয়। এ ঘটনার ছয় দিন পর একইভাবে খুন হন শিবচর উপজেলার চান্দের চরের বকুল মিয়া ও পাচ্চর গ্রামের নূর-ই-আলম। দুজন একই রাতে মাওয়া থেকে সিবোটে উঠে নিখোঁজ হন। এসব নিখোঁজ ব্যক্তির মোবাইল সেটের আইএমই নম্বরের মাধ্যমে ব্যবহৃত সিমকার্ডের সূত্র ধরে সংঘবদ্ধ চক্রের কয়েক সদস্যকে পুলিশ গ্রেপ্তার করলে বেরিয়ে আসে গুপ্তহত্যার রহস্য।

মাওয়া-কাওরাকান্দি নৌরুটে এভাবে যখন লুট, গুপ্তহত্যা ও সিবোট দুর্ঘটনা বেড়ে যায়, তখন গত ৯ জানুয়ারি মাওয়া লঞ্চঘাটে দুই দিনের এক যৌথ সভা শেষে রাতে সিবোট না চলাচলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ লক্ষ্যে পরদিন মাওয়ায় মাইকিং করা হয়। সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ইঞ্জিনচালিত নৌকা, ট্রলার, সিবোট ও লঞ্চ চলাচল করবে। রাতে শুধু লঞ্চ ছাড়া অন্য কোনো নৌযান চলাচল করতে পারবে না। নিষেধ থাকা সত্ত্বেও রাতে চলাচল করায় ওই সময়ে বেশ কয়েকটি দুর্ঘটনা ও গুপ্তহত্যার ঘটনা ঘটে। তাই কঠোরভাবে এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে ঘাটসংশ্লিষ্ট সবাই একমত পোষণ করেন। এ সভার কঠোর সিদ্ধান্তের ফলে কয়েক মাস রাতে সিবোট চলাচল বন্ধ থাকে। কিন্তু সম্প্রতি তা আবার ব্যাপকভাবে চলাচল শুরু করেছে। এতে এখনো কোনো গুপ্তহত্যার খবর পাওয়া না গেলেও গত মাসে তিনটি পৃথক সিবোট দুর্ঘটনায় কমপক্ষে সাত ব্যক্তি নিহত ও আহত হন ৩০ জন।

মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই খালিদ হাসান জানান, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার পর কোনোমতেই ঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে রওনা দিতে পারবে না কোনো সিবোট। তবে ঘাটের কাছাকাছি কোনো জায়গা থেকে পুলিশের অগোচরে অনেক সময় যাত্রী নিয়ে গেলে পুলিশের করার কিছুই থাকে না।

মাওয়া বিআইডাব্লিউটিএর ঘাট ইজারাদার আশরাফ হোসেন খান বলেন, ‘আগে রাতে সিবোট চলাচল করলেও প্রশাসনের কঠোর মনোভাবের কারণে এখন আর ঘাট থেকে কোনো সিবোট সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার পর ছেড়ে যাচ্ছে না। তবে ওপারের মালিকানাধীন সিবোটগুলো ফিরে যাওয়ার পথে ঘাট এলাকা ছেড়ে কাছাকাছি কোনো জায়গা থেকে যাত্রী নিলেও নিতে পারে। এতে আমাদের করার কিছুই থাকে না।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply