মুন্সীগঞ্জে হাত বাড়ালেই মাদক

সেবন ছাড়লে পুনর্বাসনের ঘোষণা প্রশাসনের
মাদকের ব্যবহার ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। অভিভাবক থেকে শুরু করে স্থানীয় প্রশাসন উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। মাদকের বেচাকেনা ও সেবন আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় মূল আলোচনার বিষয় এখন এই মাদকের বেচাকেনা। মাদকাসক্তদের এই মরণ নেশা থেকে বাঁচাতে এবার প্রশাসন থেকে বিক্রেতাসহ মাদকাসক্তদের মাদক গ্রহণ ও বেচাকেনা ছেড়ে দিলে তাদের পুনর্বাসনের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। জলা শহর মুন্সীগঞ্জসহ প্রতিটি উপজেলায়ই মাদকের ভয়াবহ প্রসার ঘটছে। নৌপথের সুবিধার কারণে মুন্সীগঞ্জ এখন মাদকের বড় ধরনের ট্রানজিট পয়েন্ট। ইয়াবাসহ সব ধরনের মাদকের হাট বসে এখানে। একশ্রেণীর পুলিশ সদস্যের সঙ্গে আঁতাত করে এখানে চলছে এই রমরমা ব্যবসা। পুলিশ ছাড়াও বিভিন্ন মহলকে মাসোয়ারা দিয়ে চলছে জাতিকে ধ্বংস করার এই মাদক বেচাকেনা।

মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদ প্রশাসক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন পরিবেশ দিবসের আলোচনায় বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছেন, মুন্সীগঞ্জ এখন ইয়াবা বিক্রির প্রধান ঘাঁটি।

এদিকে শহরতলি নয়াগাঁও, মালিরপাথর, মুক্তারপুর, মুক্তারপুর সেতুর দু’প্রান্ত, রিকাবিবাজার, মীরকাদিম, মীরেশ্বর, মুন্সীরহাট, পাঁচঘরিয়াকান্দি, সিপাহিপাড়া, গোয়ালঘুন্নী, নগরকসবা, শহরের গণকপাড়া, হেলিপ্যাড, দেওভোগ, কোর্টগাঁও, উত্তর ও দক্ষিণ ইসলামপুর, মানিকপুর, মালপাড়া, গোয়ালপাড়াসহ প্রায় প্রতিটি মহল্লায় চলছে মাদকের রমরমা ব্যবসা।

গজারিয়া উপজেলায় ভবেরচরসহ কায়েকটি স্থানে মাদকের হাট বসে। টঙ্গীবাড়িতেও হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় সব ধরনের মাদক। একই চিত্র সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলার।
জেলা সদর ও উপজেলা সদর ছাপিয়ে এখন বেশ ক’টি ইউনিয়নে মাদকের দৌরাত্ম্য বেড়ে গেছে। মাদক বিক্রেতারা ঘরে ঘরে মাদক গ্রহণকারী তৈরি করতে এক প্রকার প্রতিযোগিতায় নেমেছে। প্রশাসনও তাদের সঙ্গে পেরে উঠছে না। লৌহজং উপজেলার কুমারভোগ ও হলদিয়া ইউনিয়নের ২টি বেদেপল্লী থেকে এ মাদক বেচাকেনা চলছে ওপেনসিক্রেট। দূর দূরান্ত থেকে মাদক গ্রহণকারীরা ফেনসিডিল, গাঁজা ও ইয়াবাসহ নানা ধরনের মাদক কিনতে চলে আসে এ বেদেপল্লীতে। শুক্রবার হলে উঠতি বয়সের তরুণ যুবকদের মোটরসাইকেলগুলো পার্শ্ববর্তী হলদিয়া বাজারে এসে বিভিন্ন লোকের নিকট খড়িয়া ও হলদিয়া বেদেপল্লীতে যাওয়ার পথ জানতে চায়। তখন স্থানীয়দের আর বুঝতে বাকি থাকে না, এরা মাদক কিনতে দূর থেকে এসেছে। তাছাড়া হলদিয়া বাজার হাসপাতালের পেছনে খালের পাশের জায়গাটি সন্ধ্যার পর মাদক সেবনকারীদের মিলনমেলায় পরিণত হয়।
কনকসার ইউনিয়নের অধিকাংশ সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তানরা এখন মাদক বিক্রিতে জড়িয়ে পড়েছে।

মেদিনীম-ল ইউনিয়নটি যেন এক মাদকের জোন হিসেবে পরিণত হয়েছে। মাওয়া ঘাটটি এ এলাকায় হওয়ায় মাদক বিক্রেতারা মাওয়াকে ব্যবহার করছে একটি ট্রানজিট রুট হিসেবে। ঘাটে হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় যে কোন ধরনের মাদক, মদ, বিয়ায়, গাঁজা আর ইয়াবার মতো মরণ নেশা। প্রায় প্রতিটি সিবোট চালক এই ইয়াবা গ্রহণ করে থাকে বলে নির্ভরযোগ সূত্র থেকে জানা গেছে। তাছাড়া মামুদপট্টি, জেলেপাড়া, ফেরিঘাটের মাজার এলাকার সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হয়েছে মাওয়া রিসোর্ট সেন্টারের আশপাশের এলাকা। এসব জায়গায় হাত বাড়ালেই পেতে পারে যে কোন ধরনের মাদক। মাওয়া চৌরাস্তার কাছে পেট্রোল পাম্পটি একটি চিহ্নিত মাদক বিক্রির স্পট। র‌্যাব-১১ কয়েক দফা এখান থেকে ইয়াবাসহ সেবনকারীকে ধরতে পারলেও বিক্রেতারা থেকে গেছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।

এছাড়া উপজেলার লৌহজং-টেউটিয়া ইউনিয়নের মসদগাঁও কবরস্থান এলাকা, রূপা সিনেমা হল এলাকা, হাটভোগদিয়া; বেজগাঁও ইউনিয়নের মালির অংক, ভুলারবাজার, হাটভোগদিয়া হাসপাতাল রোড, আটিগাঁও বাজার; বৌলতলী ইউনিয়নের বৌলতলী বাজার, জাঙ্গালিয়া, নওপাড়া বাজার, দক্ষিণ চারিগাঁও বাজার; গাওদিয়া ইউনিয়নের গাওদিয়া বাজার, পূর্বভোগদিয়া বাসস্ট্যান্ড, ঘোলতলী ও পালগাঁও বাজার; খিদিরপাড়া ইউনিয়নের বাসুদিয়া বাজার, ফুলকচি বাজার, খলাপাড়া বাসস্ট্যান্ড, বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন ব্রিজের নিচে, কাজীপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকা ও কলমা ইউনিয়নের ডহুরি বাজার, কলমাবাজার, কলমা কালীবাড়ি এলাকা, ডহুরি চাষী বালিগাঁও বাজার ও ডহুরি-নওপাড়া বাজার এলাকাসহ অনেক এলাকাই এখন মাদক বিক্রির স্পটে পরিণত হয়েছে। এসব জায়গায় ওপেনসিক্রেট মাদকদ্রব্য বেচাকেনা হয়ে থাকে।

স্থানীয় সাংসদ ও জাতীয় সংসদের হুইপ অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি বলেন, মাদক বেচাকেনা ও সেবনের সঙ্গে যারা জড়িত তারা আমাদের ভবিষ্যতকে নষ্ট করে দিচ্ছে। এদের জন্য আমরা আমাদের সন্তানকে নষ্ট হতে দিতে পারি না। এরা যে দলের হোক না কেন ছাড় দেয়া হবে না। থানা পুলিশ এদের গ্রেফতার করলে আমরা কোন প্রকার তদ্বির করব না।

জেলা পুলিশ সুপার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান বিপিএম মুন্সীগঞ্জে মাদকের বেচাকেনার কথা স্বীকার করে বলেন, মাদক রোধে পুলিশ কাজ করে চলেছে। মাদক বেচাকেনা এখন পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে, তবে একেবারে নির্মূল করা সম্ভব হয়নি। মাদক সম্পর্কে পুলিশকে আধুনিক প্রশিক্ষণ দিয়ে মোডিফাই করা হচ্ছে। প্রতিটি ইউনিয়নের পাড়া-মহল্লায় মাদক প্রতিরোধে সমাজের সর্বস্তরের লোকদের নিয়ে সচেতনতামূলক সভা-সমাবেশ করা হচ্ছে। পুলিশ মাদকের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে সক্রিয় রয়েছে। থানায় আগের থেকে এ সংক্রান্ত মামলা বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। মাদক বেচাকেনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করে পুলিশ মাদক বেচাকেনা নিয়ন্ত্রণের মধ্য নিয়ে এসেছে। তবে নির্মূল হয়নি। একেবারে নির্মূল করতে হলে আমাদের বর্ডারগুলোর পাহার আরও জোরদার করতে হবে । যাতে করে প্রতিবেশী দেশ থেকে দেশে মাদক প্রবেশ করতে না পারে।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, লৌহজংকে মাদকমুক্ত করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়নে ইউনিয়নে মাদকবিরোধী সভা-সমাবেশ করা হচ্ছে। তাছাড়া প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেয়া হয়েছে, যারা মাদক সেবন ও বেচাকেনা ছেড়ে দিয়ে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে চায় তাদের প্রশাসনের পক্ষ হতে পুনর্বাসন করা হবে।

মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে আমাদের সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। কোন মতেই এদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়া যাবে না। মাদকের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের থানা-পুলিশের হাত হতে ছাড়িয়ে আনতে রাজনৈতিকভাবে তদ্বির থেকে আমাদের দূরে থাকতে হবে।

কুমারভোগ ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান তালুকদার বলেন, আমার ইউনিয়নের বেদেপল্লীতে দূর দূরান্ত থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে মাদক সেবনের জন্য উঠতি বয়সের তরুণরা ভিড় করছে। মাদক গ্রহণ করে ফেরার পথে অনেকেই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। তাই অপরিচিত যাদের বেদেপল্লীতে মোটরসাইকেল নিয়ে পাওয়া যাচ্ছে তাদের স্থানীয় জনতা ধাওয়া করছে। এতে কওে বেদেপল্লীতে মোটরসাইকেলের আনাগোনা কিছুটা কমেছে। তবে বেদেপল্লীর লোকদের নাম দিয়ে এখন অনেক স্থানীয় এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে।

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, জনকন্ঠ

Leave a Reply