ইছামতী তীরে ইটভাটা বন্ধের দাবি

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে ইছামতি নদীর তীরে ফসলি জমিতে ইটভাটা নির্মাণের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার দোসরপাড়া গ্রামে লতুব্দী ইউনিয়ন পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন কমিটির উদ্যোগে এই কর্মসূচিতে পাঁচটি গ্রামের মানুষ অংশ নেয়।

কমিটির সভাপতি মো. রিপন মিয়া বলেন, বসতি এলাকায় ইটভাটার কারণে শিশুদের শ্বাসকষ্ট, চর্মরোগ, ফসলি জমি নষ্ট, নদীর পানি দূষণসহ অনেক সমস্যা দেখা দিচ্ছে।

“চারদিকে বাড়ি-ঘর, পাশে ইছামতী নদী, ফসলি জমির মধ্যে ইটের ভাটা কী করে অনুমোদন পায়,” প্রশ্ন রাখেন তিনি।

১০ দিনের মধ্যে ইটের ভাটা সরিয়ে না নিলে আরো কঠোর আন্দোলন করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়ে রিপন বলেন, “মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিবেশ অধিদপ্তর কীভাবে অনুমোদন দিল, তা তদন্ত করে দেখা উচিত।”

কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল অভিযোগ করেন, এলাকার প্রভাবশালীদের সহযোগিতায় আবুল হাসেম ও ইব্রাহীম মুন্সী এই ইটভাটা নির্মাণ করছেন। স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না ।

এই বিষয়ে সিরাজদিখান থানার ওসি মাহবুবুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নিয়েই এখানে ইটের ভাটা হচ্ছে। পুলিশ ব্যবস্থা নিতে গেলে ইটভাটার মালিক পক্ষ পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র দেখালে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি।”

উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা মো. ওয়াহিদুর রহমান জানান, মেসার্স রিয়াদ ব্রিক ফিল্ড ম্যানুফ্যাকচার নামের এই ইট ভাটার ছাড়পত্র থাকায় এর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিবেশ কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানার সঙ্গে যোগাযোগে দফায় দফায় চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ জানান, জনবসতি এলাকায় এবং ফসলি জমির উপর ইটভাটা নির্মাণ গ্রহণযোগ্য নয়।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
======================

ইটের ভাটা তৈরি বন্ধের দাবিতে সিরাজদিখানের ইছামতি অববাহিকায় ৫ গ্রামের বিশাল মানববন্ধন

ব.ম শামীম: ইটের ভাটা নির্মাণ বন্ধের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সিরাজদিখানের ইছামতি অববাহিকা এলাকার ৫ গ্রামের মানুষের একযোগে মানববন্ধন করেছে। এই কর্মসূচীর অংশ হিসেবে সকালে সিরাজদিখানে ভাষানচর ব্রিজ সংলগ্ন ভাষানচর কংশপুরা এলাকায় দীর্ঘ মানববন্ধন করেছে লতব্দী ইউনিয়ন পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন কমিটি। সিরাজদিখানে মানববন্ধন কর্মসূচিতে দেয়া বক্তব্যে লতব্দী ইউনিয়ন পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন কমিটির সভাপতি মোঃ রিপন বলেন ফসলী জমির ওপর কোনো ইট ভাটা নয়, চাই উন্মুক্ত পরিবেশ, ধূয়া মুক্ত এলাকা ও পরিবেশবান্ধব উন্নয়ন। এখানে ইটভাটা তৈরি হলে পরিবেশের মারাত্মক বিপর্যয় ঘটবে। কালো ধোয়ায় এলাকা ছেয়ে যাবে। পাশাপাশি ফসলি জমির ব্যপক ক্ষতি হবে। কর্মসূচির প্রতি সংহতি জানিয়ে সিরাজদিখানের রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক-পরিবেশবাদী-বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার শতাধিক মানুষ উপস্থিত ছিলেন। কর্মসূচিতে অসংখ্য ছাত্র মিছিল সহকারে যোগ দেয়।

মানববন্ধনে পাঁচটি গ্রামের মানুষ সংহতি জানিয়ে একাত্বা প্রকাশ করেন। কংশপুরা গ্রামের মনির মাষ্টার মানববন্ধনে উপস্থিত হয়ে জানান, পরিবেশ রক্ষা ও ইটভাটা তৈরি করায় প্রতিবাদ করতে এসেছি। এই আন্দোলনের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করতে। প্রতিরোধ আন্দোলনের আজকের মানববন্ধন আমাদের অনুপ্রাণিত ও অভিভূত করেছে। পরিবেশ বিপর্যয়কারী ইটভাটা তৈরি বন্ধ করতে আমরা এলাকায় জনমত গঠনে আরো সচেতন উদ্যোগ গ্রহণ করব। এলাকার কৃষক রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা আশা করি এই ইউনিয়নের পাঁচ গ্রামের মানুষের সম্মিলিত প্রতিরোধের মুখে অবৈধ ইটভাটা নির্মাণ প্রকল্প বন্ধ করবে সরকার। লতব্দী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাফেজ ফজলুল হক বলেন, আমাদের ইউনিয়নে কোন ইটভাটা নেই। লোকমুখে শুনেছি নতুন ইটভাটা তৈরির প্রস্তুতি চলছে। যদি নিয়ম আনুয়ায়ী অনুমতি সাপেক্ষ ইটভাটা তৈরি করে তাহলে আমাদের বলার কিছু নেই। সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ওহেদুর রহমান জানান,ইটভাটা তৈরি করার কথাশুনে সকালে আমি মোবাইল র্কোট করতে গিয়ে তাদের কাছে ইটভাটা নির্মানের সকল অনুমতির কাগজ প্রত্র দেখতে পেয়ে চলে আসি। প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র থাকায় আমাদের আইনগত ভাবে বাধা দেয়ার নিয়ম নেই।

Leave a Reply