সাদ্দাম বাহিনীর উত্থানে অসহায় সাধারণ মানুষ

অস্ত্র উদ্ধারে পুলিশ নিরব
মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জ শহরের হাটলক্ষীগঞ্জ এলাকায় হঠাৎ সাদ্দাম বাহিনীর উত্থান ঘটেছে। ভয়ে তটস্থ হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী। সাদ্দাম ও তার বাহিনীর একের পর এক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অসহায় হয়ে পড়েছে এলাকার নিরীহ জনগোষ্ঠি। সাদ্দাম ও তার গ্রপের সদস্য সংখ্যা ১৫-২০ জন। এরা সবাই উঠতি বয়সের তরুন। এদের কাছে রয়েছে বেশ কিছু দেশীয় অস্ত্র। বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে এসব অস্ত্রের ব্যবহার হচ্ছে হরহামেশা।

এ সব দেখে এলাকার সাধারণ মানুষ ভীত সন্ত্রস্ত।কিন্ত সাদ্দাম ও তার বাহিনী থেকে যাচ্ছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। সাদ্দামের বাবা বাল্কহেড ব্যবসায়ী গিয়াসউদ্দিন আওয়ামীলীগ সমর্থিত হওয়ায় ওই সন্ত্রাসী গ্রুপটি পার পেয়ে যাচ্ছে-এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর। সর্বশেষ মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে হাটলক্ষীগঞ্জ এলাকায় হাজী ফারুক ওরফে জমিদার ফারুকের কাঠের দোকানে সাদ্দামের নেতৃত্বে তার সহযোগীরা হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এ সময় জমিদার ফারুক (৪২),তার ভাগিনা জাহাঙ্গীর (৩০), জামাল (৩২) ও খালাতো ভাই সেলিমকে (৩২) পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। আহতদের মধ্যে জাহাঙ্গীরকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

এছাড়া কাঠ ব্যবসায়ী জমিদার ফারুক, জামাল ও সেলিমকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাদ্দামের সহযোগী মহিউদ্দিনকে (২৬) গ্রেফতার করে। পর দিন বুধবার পুলিশ তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার মহিউদ্দিনের জামিন চাওয়া হলে আদালত তা নামঞ্জুর করেন। ব্যবসায়ী জমিদার ফারুক জানায়, এলাকার একটি অস্ত্রধারী গ্র“প তার কাছে চাঁদা দাবি করে আসছিল। মঙ্গলবার বিকালে তার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে হাটলক্ষীগঞ্জ এলাকার আওয়ামী লীগ নামধারী ক্যাডার মহিউদ্দিন, মাসুম, হ্নদয়, আল-আমিন, জনি, শাহীন, শান্ত, সহিদসহ ১৫-১৬ জনের একদল সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে তাদের মারধর, দোকান ভাংচুর করে দোকানের ক্যাশ বাক্স থেকে ২৫ হাজার ৫শ’ টাকা লুটে নেয়।

এ সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার ভাগিনা জাহাঙ্গীরকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। বাঁধা দিতে গেলে তাদেরকেও বেধড়ক পেটায় ওই সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত পৌনে ১১ টার দিকে গুরুতর জখম জাহাঙ্গীরের মা গোলেনুর বেগম বাদী হয়ে সদর থানায় মামালা দায়ের করেন। এই মামলায় ৮ জনকে এজাহার নামীয় ও আরো ৭-৮ জনকে অজ্ঞাত নামা আসামি করা হয়েছে। কিন্ত এ মামলায় চাপের মুখে সাদ্দামকে তারা এজাহার নামীয় আসামি করতে পারেননি বলে হাজী ফারুক জানান।

তবে দায়ের করা মামলায় অজ্ঞাত নামা ৭-৮ জন আসামির মধ্যে সাদ্দাম (২২) রয়েছে। তার হেফাজতে রয়েছে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র। এলাকাবাসীর দাবি-সাদ্দামকে গ্রেফতার করলেই মজুদ রাখা অস্ত্রের সন্ধান মিলবে। এদিকে, মামলা দায়ের করার পর সাদ্দাম ও তার বাহিনী মামলার বাদী ও স্বজনদের মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিচ্ছে বলে গোলেনুর বেগমের দাবি করেছেন। এর আগে সাদ্দাম ও তার বাহিনী হাটলক্ষীগঞ্জ এলাকার লাল মিয়া ফকিরের বাড়িতে হামলা, বিএনপি কর্মী তাইজুল ইসলাম বাদশার ওপর হামলা চালিয়ে ছুরিকাঘাত ও হাটলক্ষীগঞ্জ গ্রাম লাগোয়া মোল্লাপাড়া গ্রামে হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট চালায় বলে অভিযোগ রয়েছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply