বিকল্প অর্থায়নের প্রস্তাব ইতিবাচক না হলে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে

ওবায়দুল কাদের
আরিফ হোসেন: যোগাযোগ ও রেলপথমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন,পদ্মা সেতুতে অর্থায়নের বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের সাথে সমঝোতার দ্বার এখনও খোলা আছে। বিশ্বব্যাংক সম্মত হলে তাদের অর্থায়নে সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণকাজ শুরু করতে চায় সরকার। অন্যথায় বিকল্প প্রস্তাবও সরকারের হাতে রয়েছে। বিকল্প অর্থায়নের প্রস্তাব ইতিবাচক না হলে সরকার নিজস্ব অর্থায়নে সেতুর নির্মাণকাজ শুরু করবে।

গতকাল ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের দুর্ঘটনা-প্রবণ স্পটসমূহ পরিদর্শন ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সচেতনতা বৃদ্ধির কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ শেষে মুন্সিগঞ্জের কুমারভোগে পদ্মা সেতুর পুনর্বাসন সাইট পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে একথা বলেন। এসময় মুন্সীগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, সংসদ সদস্য তারানা হালিম, বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিষ্ট এবিএম মুসা, বিশিষ্ট কলামিষ্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন, বিশিষ্ট অভিনেত্রী ও নির্মাতা রোকেয়া প্রাচী মন্ত্রীর সাথে ছিলেন।

এ সময় মন্ত্রী জানান, আগামী ফেব্র“য়ারী মাসে সরকার পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামোর নির্মাণকাজ শুরু করতে চায়। ইতোমধ্যে চারটি পুনর্বাসন সাইটের নির্মাণকাজ শতকরা প্রায় ৯০ ভাগ শেষ হয়েছে। এছাড়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের নির্মাণকাজও প্রায় শেষ প্রান্তে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাংকের সাথে সরকারের কোন বৈরিতা নেই। এখনও বিশ্বব্যাংকসহ অন্যান্য দাতাসংস্থার প্রতিশ্র“ত অর্থ দিয়েই পদ্মা সেতু নির্মাণ সরকারের অগ্রাধিকার। তিনি বলেন, আগামী ২৮ জুন মালয়েশিয়ার একটি প্রতিনিধিদল পদ্মা সেতুতে অর্থায়নে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাাব নিয়ে আসছে। সরকার দেশ ও জনগণের স্বার্থ বিবেচনায় নিয়ে এ প্রস্তাবের বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করবে।

এর আগে মন্ত্রী ঢাকা-মাওয়া সড়কের সড়ক দুর্ঘটনা রোধে জনসচেতনতা তৈরির বিশেষ কর্মসূচিতে অংশ নেন। নিরাপদ সড়কের দাবিতে সামাজিক আন্দোলন ও সচেতনতা তৈরির অংশ হিসেবে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে এসময় মন্ত্রী ট্রাফিক আইন মেনে চলা, ওভারটেকিং না করা, যত্র-তত্র পার্কিং, ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পার না হওয়াসহ অন্যান্য বিষয়ে জনসাধারণের সাথে মতবিনিময় করেন।

এসময় মন্ত্রী দ্বিতীয় বুড়িগঙ্গা সেতু, ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের প্রথম ও দ্বিতীয় ধলেশ্বরী সেতু, নিমতলী, লৌহজং ও শ্রীনগরের বিভিন্ন স্থানে বিআরটিএ-র মোবাইল কোর্টের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। নকল ড্রাইভিং লাইসেন্স নিয়ে গাড়ি চালনা, লাইসেন্স বিহীন গাড়ি চালনা, ফিটনেস বিহীন গাড়ি ও অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে গাড়ি চালনাসহ বিভিন্ন অপরাধে মোবাইল কোর্ট আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে জরিমানা আরোপসহ অন্যান্য আইনগত ব্যবস্থা নেয়।

ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক পরিদর্শনকালে রাস্তার দুপাশের গাছসমূহের রং লাগানোয় তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন। এ মহাসড়কে মাত্রাতিরিক্ত স্পিডব্রেকারের বিষয়টি নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ মন্ত্রীর নজরে আনেন। এ প্রেক্ষিতে মন্ত্রী জানান, ধাপে-ধাপে অপ্রয়োজনীয় সকল স্পিডব্রেকার তুলে নেয়া হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে দশটি স্পিডব্রেকারের স্থলে র‌্যাম্বল-স্ট্রিপ স্থাপন করা হবে। এছাড়া মন্ত্রী জানান কুচিয়ামারা এলাকায় একটি বাস-বে নির্মাণ করা হবে। ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের ক্রমবর্ধমান গুরুত্ব বৃদ্ধি ও যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় এ মহাসড়কটি চারলেনে উন্নীত করার উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও মন্ত্রী জানান।

সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সড়ক দুর্ঘটনাকে একটি জাতীয় সমস্যা হিসেবে ঘোষণা করা দরকার। দল-মত নির্বিশেষে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সচেতনতা তৈরির কাজ করতে হবে।

সংসদ সদস্য তারানা হালিম বলেন, ট্রাফিক আইনসহ বিদ্যমান আইনসমূহের কার্যকর বাস্তবায়ন হলে সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস পাবে। তিনি বলেন, পথচারী ও যাত্রী হিসেবেও আমাদের সচেতন হতে হবে।

এ সময় বিআরটিএ-র চেয়ারম্যান আইয়ুবুর রহমান খান, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী আমিনুর রহমান লস্কর, পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক প্রকৌশলী শফিকুল ইসলামসহ যোগাযোগ মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

=====================

৮ মাসের মধ্যে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হবে-মাওয়ায় রেলমন্ত্রী

যোগাযোগ ও রেল মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আট মাসের মধ্যে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হবে। পদ্মার দু’পারের পুনবার্সন সহ অন্যান্য কাজ ৯০ থেকে ৯৭ শতাংশ সম্পন্ন হয়ে গেছে। আগামী ২৮ জুন মালেশিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে পদ্মা সেতুর চুক্তির প্রস্তাব পেশ করবে। বিশ্ব ব্যাংকের সাথে আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। এখন যে প্রস্তাব দিয়েছে- এক দিকে কনস্ট্রাকসন আরেক দিকে ইনবেস্টিকেশন বলতে পারেন। এটা বিশ্ব ব্যাংক প্রথম থেকেই করতে পারতো। কারণ দুর্নীতির সাথেতো ১৬ কোটি মানুষ জড়িত নন, জড়িত থেকে থাকলে ২/১ জন জড়িত। তিনি শনিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ লৌহজংয়ের মাওয়ায় পদ্মা সেতু পুনর্বাসন প্রকল্প পরিদর্শন কালে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমারা চাই বিশ্ব ব্যাংকের চুক্তিতেই পদ্মা সেতু করতে। কারণ এটি হচ্ছে এপেক্স প্রতিষ্ঠান। তাদের সাথে সমস্যা থাকলেও অন্য ক্ষেত্রে এর প্রভাব পরে। আর বিশ্ব ব্যাংকের সাথে ফয়সালা না হলে মালেশিয়া তাও যদি নায় নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু হবেই, যে কোন ভাবেই আগামী ফেব্রুয়ারি মধ্যে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হবে।

এর আগে মন্ত্রী ৩০ কিলোমিটার দূরত্বের ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের দুর্ঘটনা কবলিত এলাকা ও রাস্তাঘাট পরিদর্শন করে দুর্ঘটনারোধে বিভিন্ন নির্দেশনা প্রদান করেন। তিনি চালকদের অযোগ্যতা এবং ভৈধ লাইসেন্স এবং বিআরটিএ’র সমালোচনা করে বিআরটিএকে ইঙ্গিত করে বলেন, সর্ষের ভেতরে ভুত থাকলে সমস্যা হয়। একবারে এক সাথে সব সমস্যার সমাধান হয়না। সকলের সহযোগিতা নিয়ে শিঘ্রই সমস্যা সমাধান হবে।

এই সময় নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের সাথে জড়িত ইলিয়াস কাঞ্চন, তারনা হালিম এমপি ছাড়াও সাংবাদিক এবিএম মুসা ও কলামিস্ট আবুল মকসুদ এবং সংশ্লিষ্ট উর্ধতন সরকারি কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply