মুন্সীগঞ্জে হালনাগাদ ভোটার তালিকা থেকে ৬ শতাধিক ব্যক্তি বাদ

নির্বাচন অফিসার তোপের মুখে-হট্টগোল
মোজাম্মেল হোসেন সজল: হালনাগাদ ভোটার তালিকা কার্যক্রমের শেষ দিনে বুধবার সকালে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার অভ্যন্তরে তোপের মুখে পড়েছেন উপজেলা নির্বাচন অফিসার শরীফা বেগম। এ সময় সেখানে চরম হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। বিরোধে জড়িয়ে পড়েন পৌর কাউন্সিলর ও নির্বাচন কর্মকর্তা। বুধবার বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় অনেকেই অনেকেই ভোটার নিবন্ধন না করে বাড়ি ফিরে গেছেন। এতে অন্তত ৬’শ ব্যক্তি হালনাগাদ ভোটার তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন বলে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ দাবী করেন। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে দুপুর দেড়টার দিকে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র একে এম ইরাদত মানু জেলা প্রশাসকের দ্বারস্ত হন। এতে জেলা প্রশাসক মো: আজিজুল আলম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মীর সারোয়ার মোর্শেদকে ঘটনার সমাধানে পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দেন। ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রমের শেষ দিনে বুধবার সকালে পৌরসভা প্রাঙ্গনে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার শত শত বাসিন্দা উপস্থিত হলে ভোটার নিবন্ধন ফরম না পেলে সেখানে ওই হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। এ সময় সদর উপজেলার নির্বাচন অফিসার শরীফা বেগম ভোটার নিবন্ধন করতে আসা পৌরবাসীর তোপের মুখে পড়েন।

ভুক্তভোগীদের দাবী- তথ্য সংগ্রহকারীরা বাড়ি বাড়ি না গিয়ে একস্থানে বসে ভোটার হালনাগাদের তথ্য সংগ্রহ করায় বুধবার সকালে নতুন ভোটার হতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা পৌরসভা প্রাঙ্গনে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। এ সময় অনেকেই নিবন্ধন ফরম না পেলে তারা উত্তেজিত হয়ে উঠেন। এক পর্যায়ে তারা নির্বাচন অফিসারের উপর চড়াও হন। মুন্সীগঞ্জ পৌর মেয়র একে এম ইরাদত মানু জানান- সকালের শুরুতে উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় থেকে মাত্র ১’শ ফরম দেওয়া হয়। তা শেষ হলে দুপুরে আরও দেড়’শ ফরম সরবরাহ করা হয়। অথচ নতুন ভোটার হওয়ার জন্য ৭ শতাধিক ব্যক্তি পৌরসভা কার্যালয়ে জড়ো হন। তিনি বলেন- ভোটার নিবন্ধন করার দায়িত্ব যাদের দেওয়া হয়েছিল-তারা অনেক পাড়া-মহল¬াতে যাননি। তাই আগে থেকে পৌরসভা বাসী ভোটার তৈরীর কথা জানতেন না। শেষ মূহুর্তে খবর পেলে তারা হুমড়ি খেয়ে পড়েন বুধবার। এমন পরিস্থিতিতে পৌরসভার অন্তত ৬’শ নতুন ভোটার হওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। উপজেলা নির্বাচন অফিসার শরীফা বেগম বলেন- নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ভোটার নিবন্ধনের জন্য ফরম দেওয়া হয়েছে। পৌর কাউন্সিলররা ভোটার নিবন্ধন ফরমে তাদের সীলবিহীন সাক্ষর দেওয়ায় এ অরাজকতার পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরও জানান, যে ব্যক্তি ভোটার নিবন্ধন করতে পারেনি তাদের তালিকা চাওয়া হলেও কাউন্সিলররা সেই তালিকা দেয়নি। তাই যাচাই বাছাই ছাড়া ফরম দেওয়া হলে দ্বৈত ভোটার হওয়ার সম্ভাবনা থাকায় নির্দেশনার বাইরে ফরম দেওয়া হয়নি।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply