সরকার মুসলমানদের পক্ষে হলে চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে সালাম আজাদের বিচার করবে

চরমোনাই পীর
শ্রীনগর ষ্টেডিয়ামে অর্ধলক্ষ মুসল্লির ঢল
আরিফ হোসেন: ভাঙ্গা মঠ বইয়ে মহানবী (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি ও পবিত্র কুরআন নিয়ে মিথ্যাচার করায় লেখক সালাম আজাদ সহ সকল ধর্মদ্রোহিদের শাস্তির দাবীতে গতকাল শুক্রবার শ্রীনগর ষ্টেডিয়ামে দিনব্যাপী মহাসমাবেশে অর্ধলক্ষ মুসল্লির ঢল নামে।

সমাবেশের প্রধান অতিথী চরমোনাই পীর মুফতি রেজাউল করিম বলেন, দেশের নব্বই ভাগ লোক মুসলমান । সরকার মুসলমানদের পক্ষে হলে চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে সালাম আজাদকে গ্রেপ্তার করে শাস্তি দিতে হবে। এটা সরকারের জন্য এক নম্বর সংকেত । তা নাহলে আমরা রক্ত দিতেও দ্বিধা করবো না। তিনি আরো বলেন,আমরা মুসলমানরা যদি একটি প্লাটফর্মে আসতে পারি তাহলে এরকম সমাবেশের প্রয়োজন হবে না। যেখানে কুরআন ও সুন্নার উপর আঘাত আসবে সেখানেই প্রতিহত করতে পারব।

সকাল ১০ টায় সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও বৃষ্টি উপেক্ষা করে সকাল ৮ টা থেকে লোকজন বাস,ট্রাক,ট্রলার নসিমন সহ বিভিন্ন যান বাহনে করে এখনো লোকজন জড়ো হতে থাকে। এক সময় ষ্টেডিয়াম কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে সড়ক মহাসড়ক উপচে পড়ে। জুমআর নামাজের বিরত দিয়ে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত সমাবেশ চলে।


মধুপুরের পীর আলহাজ্ব মাওলানা আ ঃ হামিদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সালাম আজাদের শাস্তি দাবী করে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী, মাওলানা আ ঃ হালিম বুখারী, মুফতী ওমর ফারুক, মাওলানা জাকির হোসেন, আলহাজ্ব মাকসুদুর রহমান, শ্রীনগর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ, ছাত্রলীগ সভাপতি ওয়াহিদুর রহমান জিঠু,শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম এ কাইয়ূম রতন, এডভোকেট জাকারিয়া মোল্লা প্রমুখ।
———————————-

কারো কাছে দেশ বিক্রি করে দিই নাই

শেখ মো.রতন, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মহাজোট সরকারকে উদ্দেশ্য করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেছেন- দেশ কারো কাছে বিক্রি করে দিই নাই। সরকার যতই শক্তিশালী হোক না কেন, নাস্তিকদের রক্ষা করতে পারবে না। মুসলমানরা এক প্লাটফর্মে দাঁড়াতে বাধ্য হবে। বাংলার জমিন থেকে তখন নাস্তিকেরা পালানোর পথ পাবে না। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলা ষ্টেডিয়ামে শুক্রবার সকালে “ভাঙ্গা মঠ”-বইয়ের লেখক সালাম আজাদের ফাঁসি দাবিতে সীরাতুন্নবী (সা:) সংরক্ষনে ঢাকা দক্ষিন ও মুন্সীগঞ্জ জেলা বাতিল প্রতিরোধ কমিটি আয়োজিত এক মহাসমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ সব কথা বলেন। বইটিতে মহানবী (সা:), কুরআন শরীফ ও মুসলমানদের দাঁড়ি টুপি নিয়ে কটাক্ষ করায় চরমোনাই পীর লেখকের ফাঁসি দাবি করেন। সংসদে ইসলাম বিরোধী সকল আইন বাতিল করার দাবি তুলে চরমোনাই পীর জানিয়েছেন- ঈদুল ফিতরের পর কুরআন-সুন্নাহ বিরোধী সকল আইন বাতিলের দাবিতে বৃহত্তর আন্দোলন শুরু হবে।

এ মহাসমাবেশকে ঘিরে শুক্রবার সকাল ৮ টা থেকে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ধর্মপ্রান মুসলমানদের আগমন ঘটতে থাকে। বৃষ্টি উপেক্ষা করে মুসলমানদের ঢল নামে শ্রীনগর ষ্টেডিয়ামে। সকাল ১০ টার মধ্যে ষ্টেডিয়াম কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে ধর্মপ্রান মুসলানদের ভীড় ষ্টেডিয়ামের বাইরে ছাপিয়ে যায়। এ সময় তারা সড়কে অবস্থান নিলে ঢাকা-দোহার সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। বিকেল ৫ টা পর্যন্ত এ মহাসমাবেশ চলে। মহাসমাবেশের প্রধান অতিথি হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফি অসুস্থ্যতার কারনে বক্তৃতা দেননি। এদিকে এ মহাসমাবেশ ঘিরে শুক্রবার সারাদিন শ্রীনগরে উত্তেজনা দেখা গেছে। অপ্রীতিকর ঘটনার আশংকায় মহাসমাবেশস্থলের আশেপাশে ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। কলকাতা থেকে প্রকাশিত সালাম আজাদের ‘ভাঙ্গা মঠ’ বইটি ২০০৪ সালের ১৮ জুলাই বাংলাদেশ সরকার নিষিদ্ধ করে।

চরমোনাই পীর রেজাউল করীম সরকারকে ইঙ্গিত করে বলেন-আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠায় আয়োজিত এ মহাসমাবেশ হচ্ছে-প্রথম সিগন্যাল। দ্বিতীয় ও তৃতীয় সিগন্যালের জন্য অপেক্ষা করবেন না। মুসলমানরা এক প্লাটফর্মে দাঁড়ালে বাঁচার পথ খুঁজে পাবেন না।

মহাসমাবেশে মধুপুরের পীর মাওলানা আব্দুল হামিদ বলেছেন, মুসলমান সরকারকে সকল না¯িতকবাদীদের বিচার করতে হবে। বাংলার মাটিতে ইসলাম বিরোধীদের থাকার অধিকার নেই। এতে অন্যান্যের মধ্যে হযরত মাওলানা মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী, মাওলানা আব্দুল হালীম বোখারী, হযরত মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, হযরত মাওলানা আব্দুর রউফ, হযরত মাওলানা ওমর ফারুখ, হযরত মাওলানা মো¯তফা আযাদ, নাসির মাহমুদ, আব্দুল আওয়াল, দিলওয়ার হোসেন, মামুনুল হক, ইয়াহিয়া মাহমুদ, নেয়ামতুলাহ আল ফরিদী, জুনায়েদ আল হাবীব, শ্রীনগর ছাত্রলীগের সভাপতি ওয়াহেদুর রহমান জিঠু প্রমূখ।

Leave a Reply