পদ্মাসেতু দুর্নীতি: ঢাকায় কানাডার পুলিশ

পদ্মাসেতুর পরামর্শক নিয়োগে হওয়া দুর্নীতির তদন্তে বেরিয়ে আসা তথ্য সংবলিত কাগজপত্র দিতে বাংলাদেশে এসেছে কানাডার মাউন্টেড পুলিশ। দুদক সূত্র জানায়, পদ্মাসেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির তদন্তে বেরিয়ে আসা তথ্য সংবলিত কিছু কাগজপত্র দিতে রোববার মধ্যরাতে ঢাকায় এসে পৌঁছেছে কানাডার মাউন্টেড পুলিশের দল। তবে এই দলে কতজন রয়েছে তা জানা যায়নি।

দুদকের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আজ (সোমবার) যে কোনো সময় কানাডার পুলিশ সদস্যরা রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে যেতে পারেন অথবা বাইরেও দুদক কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাদের কাগজপত্র হস্তান্তর করতে পারেন।’

আরেক সূত্র জানায়, গণমাধ্যমের মুখোমুখি না হতে কানাডীয় পুলিশের সঙ্গে দুদক বাইরে সাক্ষাৎ করছেন। কানাডীয় পুলিশের তদন্তসংক্রান্ত কাগজপত্র বাইরে জমা দেবেন।

এদিকে, দুপুর ২টার পর থেকে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান, কমিশনার মোঃ সাহাবুদ্দিন চুপপু ও মোঃ বদিউজ্জামানকে দেখা যায়নি।

পদ্মাসেতু প্রকল্পে ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি মূল্যায়ন কমিটি পরামর্শক হিসেবে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের নাম সুপারিশ করেছিল।

এর প্রথমটি ছিল এসএনসি-লাভালিন। অন্যগুলো হলো- যুক্তরাজ্যের প্রতিষ্ঠান হালক্রো গ্রুপ (ইউকে), নিউজিল্যান্ডের প্রতিষ্ঠান একম অ্যান্ড এজেডএল, জাপানের ওরিয়েন্টাল কনসালট্যান্ট কোম্পানি লিমিটেড এবং যুক্তরাজ্য ও নেদারল্যান্ডসের জয়েন্ট ভেনচার কোম্পানি হাই পয়েন্ট রেলেন্ড।

এর মধ্যে এসএনসি-লাভালিনকে সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে অনুমোদনের জন্য বিশ্বব্যাংকের কাছে পাঠানো হয়েছিল। এরপরই এ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে এবং বিশ্বব্যাংক ১২০ কোটি ডলার সহায়তা স্থগিত করে দেয়। এ নিয়ে কানাডা পুলিশ এখনো তদন্ত করছে। আর তদন্তে পাওয়া প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাংক এসএনসি-লাভালিনকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে।

বিষয়টি তদন্ত করতে বিশ্বব্যাংক থেকে কানাডা সরকারের কাছে অভিযোগপত্র পাঠানো হয়। এর ভিত্তিতে অভিযোগ তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় রয়েল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশকে (আরসিএমপি)। এরপর পুলিশ এসএনসি-লাভালিনের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে ওই অফিসের ল্যাপটপসহ বেশ কিছু নথিপত্র জব্দ করে নিয়ে যায় এবং রমেশ ও ইসমাইল নামের দুইজনকে গ্রেফতার করে। জব্দ করা নথিপত্রের মধ্যে একটি ডায়েরিতে পদ্মাসেতুর পরামর্শক কাজ পেতে বাংলাদেশে যোগাযোগ করার জন্য একটি তালিকা পাওয়া যায়। এরই মধ্যে ওইসব তথ্য কানাডিয়ান পুলিশ বিশ্বব্যাংকের কাছে দিয়েছে। একই রিপোর্ট হাতে পেতে দুদক অ্যাটর্নি জেনারেলের মাধ্যমে কানাডা সরকারের কাছে আবেদন করে। ওই আবেদনে সাড়া দিয়ে বাংলাদেশে এসে তদন্ত রিপোর্ট দুদকের কাছে হস্তান্তর করতে সম্মত হয় কানাডীয় মাউন্টেড পুলিশ।

আদিত্য আরাফাত, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply