গ্রেফতার হলো সন্ত্রাসীরা

রাহমান মনি
জাপান পুলিশ ধরতে সক্ষম হয়েছে নিষিদ্ধ ঘোষিত ধর্মীয় গ্রুপ ‘ওম শিনরিকিও’র সকল পলাতক আসামিকে। সর্বশেষ দুই পলাতক আসামিকে মাত্র ১২ দিনের ব্যবধানে ধরতে সক্ষম হয়। মোস্ট ওয়ান্টেড কাৎসুইয়া তাকাহাশি যিনি সর্বশেষ পলাতক আসামি হিসেবে সারিন গ্যাস হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলেন, ১৫ জুন সকাল ৮.৩০টায় তাকে ধরতে সক্ষম হয় জাপান পুলিশ। ১৯৯৫’র মার্চের ২০ তারিখ সকাল ৮.০০টার পিক আওয়ারে টোকিওর পাতাল রেলে সারিন গ্যাস আক্রমণ করে তাকাহাশির ধর্মীয় বিশ্বাস ওম শিনরিকিও। সেই থেকে দীর্ঘ ১৭ বছর তিনি পলাতক জীবনযাপন করেন। এই সময় তিনি আরেকজনের জন্মনিবন্ধন সনদ চুরি করে সেই নামে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন। সর্বশেষ ছদ্মনামে কাওয়াসাকিতে একটি নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে কাজ করছিলেন। যে প্রতিষ্ঠানে কর্মচারীদের বসবাসের জন্য নিজস্ব ডরমেটরি রয়েছে। তাকাহাশি সেই ডরমেটরিতেই থাকতেন। শিনইয়া সাকুরাই নামে তিনি পরিচিত ছিলেন।

৩১ ডিসেম্বর ২০১১ জনৈক শীর্ষ সন্দেহভাজন আসামি পুলিশের হাতে ধরা দিলে (আত্মসমর্পণ) বাকি থাকেন কেবল তাকাহাশি কাৎসুইয়া (৫৪) এবং কিকুচি নাওকো (৪০)। গত ৩ জুন কানাগাওয়া কেন সাগামি হারা জনৈক এক ব্যক্তির ফোনকল পেয়ে পুলিশ কিকুচিকে ধরতে সক্ষম হয়। ঐ ব্যক্তি পুলিশকে ফোন করে জানান কিকুচির মতো দেখতে একজন মহিলাকে মাথা নিচু করে একটি অ্যাপার্টমেন্টের কাছে বসে থাকতে দেখা যাচ্ছে। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে মহিলাকে চ্যালেঞ্জ করলে এক পর্যায়ে তিনি ধরা দিতে বাধ্য হন। বলা যায় কিকুচি ধরা পড়ার পর তাকাহাশিকে ধরা সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। পুলিশ আঁটসাঁট বেঁধে নামে। তারা সক্ষমও হন।

তাকে ধরার জন্য অতিরিক্ত ৫ হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হয় টোকিওর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে। লোক চলাচলের স্থানগুলোতে তাকাহাশির সর্বশেষ ছবি সেঁটে দেয়া হয়। যেসব ছবি কিকুচির কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়। জাপান পুলিশ সূত্রে খবরে জানা যায় ২০০৭ সাল পর্যন্ত কিকুচি এবং তাকাহাশি একসঙ্গে বসবাস করতেন। তাদের মধ্যে কোনো কারণে মতভেদ দেখা দিলে ভিন্ন ভিন্ন বসবাস শুরু করেন। কিন্তু যোগাযোগ অটুট ছিল। ২০১১ সালে আবারও একত্রে বসবাসের সিদ্ধান্ত নিলে বাধ সাধে বাড়িভাড়া দেয়ার এজেন্টদের সঙ্গে। তারা প্রপার কাগজপত্র দেখাতে বললে গোঁজামিল ধরা পড়ে যায়। এর আগে কিকুচি তাকাহাশি হিরোতা নামক একজনের সঙ্গে বসবাস করলে, একজন পলাতক আসামিকে আশ্রয়দান এবং পুলিশের কাছে তা গোপন রাখার অভিযোগে হিরোতাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হলেও কিকুচি সেই যাত্রায় গ্রেপ্তার এড়াতে সক্ষম হন। এই হিরোতার বড় ভাই জনৈক ব্যক্তি সেজে কিকুচিকে ধরিয়ে দিতে সক্ষম হন। জাপান পুলিশের দেয়া ঘোষণা অনুযায়ী সন্ধানদাতাকে এক লাখ পঁচিশ হাজার ডলার (প্রায়) বা এক কোটি ইয়েন দেয়ায় বিপত্তি দেখা দেয়। যেহেতু সন্ধানদাতা আশ্রয়দানকারীর বড় ভাই অর্থাৎ অপরাধী পরিবারের সদস্য তাই হস্তান্তরে এই বিপত্তি দেখা দেয়।

৩ জুন কিকুচি ধরা পড়ার খবর ৪ জুন ফলাও করে প্রচার করার ফলে খবর পেয়ে যায় কর্মস্থলে থাকা তাকাহাশি কাৎসুইয়া। নিকটস্থ কম্বিনিয়েন্স থেকে কিছু কিনার কথা বলে দ্রুত কর্মস্থল ত্যাগ করে। সহকর্মীদের মনে সন্দেহের দানা বাঁধে হঠাৎ এমন আচরণে। কর্মস্থলে থাকা টিভিতে কিকুচির কাছে থাকা তাকাহাশির সর্বশেষ ছবি প্রচার করলে সহকর্মীরা নিশ্চিত হন এতদিন সাকুরাই শিনইয়া নামে যে সহকর্মীকে চিনতেন তিনি আসলে সাকুরাই নন, তিনি হচ্ছেন জাপানে আলোড়ন সৃষ্টিকারী পুলিশের মোস্ট ওয়ান্টেড আসামি তাকাহাশি কাৎসুইয়া। কিন্তু ততক্ষণে বড্ড দেরি হয়ে গেছে। ইতোমধ্যে তাকাহাশি কম্বিনিয়েন্স (২৪ ঘণ্টা খোলা থাকা দোকান) থেকে ২টি পত্রিকা কিনে সটকে পড়েছেন। পত্রিকা কিনার পর আসন্ন পরিস্থিতি বুঝতে পেরে তাকাহাশি সাকুরাই নামে খোলা ব্যাংক একাউন্ট থেকে ২,৩০,০০০ ইয়েন বা ৩০ হাজার ডলার (প্রায়) তুলে নেন। নিকটস্থ একটি হোম সেন্টারে গিয়ে নীল রঙের একটি ব্যাগ কিনে সেখানে আরো ১২,৮০,০০০ ইয়েন যোগ করে ব্যাগে ভরে ট্যাক্সি ক্যাবে করে স্থান ত্যাগ করেন। ট্যাক্সি ক্যাব পেতে তাকে ২ মিনিট অপেক্ষা করতে হয়। সবই ধরা পড়ে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্বলিত ভিডিও ফুটেজে। পত্রিকায় প্রকাশ পেলে খবরটি পেয়ে যান তাকাহাশি নিজেও। কিন্তু তার আগেই তিনি টাকাভর্তি ব্যাগখানা একটি কয়েন লকারে রেখে দেন। খবর প্রকাশ পেয়ে যাওয়ায় ব্যাগটি বের করাও তার জন্য বিপদসঙ্কুল হয়ে দেখা দেয়। যেতে পারছিলেন না নিজ কর্মস্থল কিংবা ডরমেটরিতে। বাইরে থেকে ঘোরাঘুরি আরো বড় বিপদ হতে পারে ভেবে লাভ হোটেল (খড়াব ঐড়ঃবষ) কিংবা ইন্টারনেট ক্যাফে অথবা কমিক ক্যাফেতে সময় পার করতে থাকেন। এসব স্থানে ঘণ্টা হিসেবে স্থান কিংবা রুম ভাড়া দেয়া হয়। ড্রিংকস ফ্রি থাকে। প্রাকৃতিক কাজও সারা যায় বিনা সংশয়ে। কিন্তু সমস্যা হলো একই স্থানে দিনের পর দিন থাকতে গেলে সন্দেহের চোখে দেখবে লোকজন। তাই বদল করে তিনি ঘণ্টার পর ঘণ্টা বিশ্রাম নেন কমিক পড়ার নামে।

কিন্তু কপালে যদি থাকে দুর্গতি, কোনো কিছুই যে আর গোপন থাকে না অতি। তাছাড়া পুলিশের ভাষায় খুনিকে ধরা একদিন পড়তেই হবে। ১৯৯৫ মার্চ ২০ সাবওয়ে সারিন গ্যাস আক্রমণে যেখানে ১৩ জন তরতাজা নির্দোষ প্রাণ ঝড়ে গেছে, আহত হয়েছে ৬৩০০ জন। ক্ষতি হয়েছে বিপুল অঙ্কের টাকা। যেটা তাদের ধরার পিছনে প্রতিদিন ব্যয় হচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে জনগণের কষ্টার্জিত অর্থ। বিধাতাই বা তা সহ্য করবেন কেন? আর ধরা না পড়লে পাপ বাপেরেও ছাড়ে না প্রবাদ বাক্যটি যে মিথ্যায় পরিণত হবে। তাছাড়া ভাগ্যবিধাতাও যে তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। ১৫ জুন সকালে কমিক ক্যাফের এক কর্মচারী তাকাহাশিকে চিনতে পেরে পুলিশে ফোন করে জানায় এখানে তাকাহাশির মতো দেখতে একজনকে কমিক কর্নারে দেখা যাচ্ছে। প্রথমে পুলিশ বিষয়টিকে পাত্তা দিতে চায়নি। কিন্তু পরক্ষণেই পুলিশ থেকে জানানো হয় তাকে যেন ফলো করা হয় এবং মুভমেন্ট পুলিশকে জানাতে হবে যতক্ষণ না পুলিশ সেখানে পৌঁছছে।

সকালে স্থানীয় ওতা সিটি পুলিশ সেখানে পৌঁছে তাকাহাশির পরিচয় নিশ্চিত হবার পর তাকে ক্যাফে কর্মচারীদের সহযোগিতায় গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হন। কথাবার্তার এক পর্যায়ে তাকাহাশি স্বীকার করতে বাধ্য হন তিনিই সেই ব্যক্তি যাকে ১৭ বছর পুলিশ হন্য হন্য হয়ে খুঁজছে ধরার জন্য। জাপান পুলিশের নিয়ম অনুযায়ী পরিচয় নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত কাউকে আটক করা যাবে না।

তাকাহাশির বিরুদ্ধে সারিন গ্যাস আক্রমণে নিজে অংশ নেয়া এবং আরেকজনকে নির্বিঘেœ পলায়নে সহায়তার সুনির্দিষ্ট দুটি অভিযোগসহ আরো চারটি সন্দেহভাজন হিসেবে অভিযুক্ত পুলিশের খাতায়। যার অন্যতম দুটি হচ্ছে ১৯৯৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে একজন নোটারি পাবলিক (সাকামোতো বেনগোশি)কে অপহরণ এবং পরে হত্যার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। এ ছাড়াও তিনি ছোট বিস্ফোরক প্রস্তুত করে চিঠির মাধ্যমে ১৯৯৫ সালের মে মাসে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে হত্যার উদ্দেশ্যে টোকিও মেট্রোপলিটন গভর্নরের কাছে পাঠালে সেখানে কর্মরত একজন কর্মচারী গুরুতর আহত হন বোমা বিস্ফোরণে। কারণ প্যাকেটটি ঐ কর্মচারী খুলেছিলেন।

খুন করে ১৫ বছর পলাতক থাকতে পারলে বিচারের মুখাপেক্ষী না হওয়ায় আইনটি ২০১০ এপ্রিলে পরিবর্তন করা হলে তাকাহাশির বিরুদ্ধে খুনের মামলা পরিচালনা করতে কোনো বেগ পেতে হবে না পুলিশকে। সর্বোপরি তাকাহাশির গ্রেপ্তারে স্বস্তি নেমে এসেছে জাপানে। ভুক্তভোগী পরিবারগুলো এখন চায় সঠিক বিচার।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply