চার দিনেও কেউ গ্রেফতার হয়নি

মুন্সীগঞ্জে সাংবাদিক গুলিবিদ্ধ
মুন্সীগঞ্জে সাংবাদিক মোক্তার হোসেন গুলিবিদ্ধ হওয়ার চারদিনেও কেউ গ্রেফতার হয়নি। অন্যদিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা চলছে মোক্তার। তারা শীরের বিদ্ধ হওয়া ৫টি গুলির মধ্যে কাধের গুলিটি এখন অপসারণ করা যায়নি। এদিকে বুধবার জেলা আইনশৃঙ্খলা কামিটির সভায় এই ঘটনাটি গুরুত্বের সাথে আলোচনা হয়। সভায় উপস্থিত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাকির হোসেন আসামীদের গ্রেফতারে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে বলে জানান। এদিকে আসামীরা বিদেশে পালানোর চেষ্টা চালাচ্ছে- এমন খবরে বুধবার ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষকে জরুরি ম্যাসেজ দেয়া হয়েছে। সিরাজদিখান থানার ওসি মাহবুবুর রহমান এই তথ্য দিয়ে জানান, সোমবার রাতে সিরাজদিখান মোক্তারের স্ত্রী আফসানা আফরোজ শিলা বাদী হয়ে মামলা করেছেন। মামলায় লিয়াকত হোসেনকে প্রধান আসামী করে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে এবং মুখোশধারী অজ্ঞাতনামা আরও ৩/৪ জন আসামী করা হয়েছে। আসামীদের অনেকেই পুলিশ এসল্ডট মামলার আসামী। মোক্তার এই মামলার স্বাক্ষী। তবে তাদের গ্রেফতারের সব চেষ্টা চলছে।

স্থানীয় সপ্তাহিক বিক্রমপুর সংবাদের রিপোর্টার মো. মোক্তার হোসেন (৪০) রবিবার রাতে সিরাজদিখান উপজেলার গোয়ালখালী ব্রিজ মোড়ে সন্ত্রাসীদের গুলি তাঁর বুক, পেট, কাঁধ ও উরুতে বিদ্ধ হয়। মূমূর্ষু অবস্থায় তাঁকে ঢাকার মহাখালী বক্ষব্যধি হাসপাতালে এবং পরে গভীর রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে আসামী গ্রেফতার না হওয়ায় শঙ্কিত হয়ে পড়েছে মোক্তারের পরিবার। এদিকে মঙ্গলবার বিকালে মুন্সীগঞ্জ শহরের ‘বিক্রমপুর সংবাদ’ কার্যালয়ে এক প্রতিবাদ সভা হয়েছে। পত্রিকাটির প্রকাশক ও ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোহাম্মদ সেলিমের সভাপতিত্বে স্থানীয় সংবাদকর্মীরা বিস্তারিত আলোচনায় অংশ নেন এবং অনতি বিলম্বে গুলি বর্ষণের সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবী জানান। নতুবা কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলে সভায় সিদ্ধান্ত হয়। এদিকে বিকালে বিক্রমপুর প্রেসক্লাব এই ঘটনায় প্রতিবাদসভা করেছে। লৌহজং উপজেলার হলদিয়ায়স্থ কার্যালয়ের এই প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করে প্রেসক্লাব সভাপতি মো. মাসুদ খান। সভায় সাংবাদিকের ওপর নৃশংস হামলার ঘটনার তিন দিনেও অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার করতে না পারায় অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়।

জগনন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একাউন্টিংয়ে অনার্স মাস্টার্স করা মোক্তার ছোট বেলা থেকেই ছিলেন প্রতিবাদী। মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার চিত্রকোর্ট ইউনিয়নটি ঢাকা জেলার নাববগঞ্জের সীমান্ত এবং কেরানীগঞ্জের কাছাকাছি হওয়ার অপরাধীরা অন্য এলাকায় সহজে আশ্রয় নেয়। সিরাজদিখান থানা থেকে এলাকাটির অনেক দুর্গম এলাকায়।

মোক্তার হোসেনের স্ত্রী আফসানা আফরোজ শিলা জানান, মোক্তার পড়াশোনা শেষ করে বেসরকারী একটি ব্যাংকে অফিসার হিসাবে যোগদেন। পরে তা ছেড়ে দিয়ে স্বাধীন পেশা হিসাবে যোগদেন সাংবাদিকতায়। এছাড়া তিনি জেলা যুবলীগের সহ তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক। এছাড়া গোয়ালখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তিন টার্ম ধরে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি।

আফসানা আফরোজ শিলা আরও জানান, আসামীরা এলাকায় অবৈধ অস্ত্রধারী, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী, আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য ও পেশাদার কিলার। বিগত ইউপি নির্বাচনের এরা এক চেয়ারম্যান প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে বিজয়ী করে। এই চেয়ারম্যানই তাদের প্রশ্রয় দিচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

১৪২, ৩২৬, ৩০৭ ধারায় দায়ের করা মামলাটিতে উল্লেখ করা হয়েছে- পত্রিকায় সত্য ঘটনা প্রকাশ করার কারণেই আসামীরা ক্ষিপ্ত হয়ে এই ঘটনা ঘটনায়।

সরেজমিন ঘুরে আসা এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, কয়েক মাস আগে এখানে এক পলাতক আসামী গ্রেফতার করে নিয়ে আসার সময় আক্রমণ করে পুলিশকে দিগম্বর করে অস্ত্র ও পোশাক লুট করে নেয়। এই মামলাটির স্বাক্ষী মোক্তার হোসেন। মামালাটির আসামীরাই গুলি করেছে স্বাক্ষী মোক্তার হোসেনকে।

বিগত ইউপি নির্বাচনে স্বল্প সংখ্যক ভোটে হেরে যাওয়া গোয়ালখালী গ্রামের বাসিন্দা সফিউদ্দিন খান জানান, আসামী ধরতে আসা পুলিশকে মধ্যযুগীয় কায়দায় দিগম্বর করে অস্ত্র ও পোশাক লুটের ঘটনার পর পরই আরও বেশী বেপোরয়া হয়ে ওঠে সন্ত্রাসীরা। অপরাধ বেড়েই চলেছে। তিনি মনে করেন, প্রশাসন কাঠোর না আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির আরও অবনতি হবে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply