৫ দিন ধরে দুই স্কুল ছাত্রী নিখোঁজ

মুন্সীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর দুই ছাত্রী নিখোঁজ হওয়ার পাঁচ দিনেও সন্ধান মিলেনি। স্বজনরা তাকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন। নিখোঁজ দু’স্কুল ছাত্রীরই নাম সুমাইয়া। এদের একজনের পিতার নাম মকবুল হোসেন ও অপরজনের পিতার নাম বাহাদুর সরকার। উভয়ের বাড়ি শহরের মানিকপুর গ্রামে। এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় পৃথক দু’টি সাধারণ ডাইরি করা হয়েছে। এদিকে, বুধবার সকালে সুমাইয়ার পিতা মকবুল হোসেনের গ্রামের বাড়ি আমঘাটা গিয়ে স্থানীয় মেম্বারের উপস্থিতিতে স্কুল ড্রেস উদ্ধার করে। তবে তারা কোথায় গেছে তা সুমাইয়ার খালা নাসিমা বেগম বলতে পারেনি। বিষয়টি রহস্যজনক বলে দাবি করেছেন সুমাইয়ার পিতা মকবুল হোসেন।

মকবুল হোসেন জানান, গত ২৩ জুন (শনিবার) সকালে বাহাদুর সরকারের মেয়ে সুমাইয়া ও তার মেয়ে সুমাইয়া এক সঙ্গে মুন্সীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর থেকে তারা দু’জন নিখোঁজ হয়ে পড়ে। তিনি আরও জানান, বিভিন্নস্থানে খোঁজ খবর নেওয়ার পর খবর পাওয়া যায় তারা স্কুলে না গিয়ে সদরের মোল্ল­াকান্দি ইউনিয়নের আমঘাটা গ্রামে সুমাইয়ার খালা নাসিমা বেগমের বাড়িতে যায়। সেখানে গিয়ে তারা স্কুল ড্রেস খুলে অন্য ড্রেস পড়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছে। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল বাসার জানান, বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
======================

মুন্সীগঞ্জে ৫ দিন ধরে রহস্যজনক নিখোঁজ ২ শিক্ষার্থী

শেখ মো.রতন: শহরের মধ্য কোর্টগাঁও এলাকার মুন্সীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেনীর ২ শিক্ষার্থী ৫ দিন ধরে রহস্যজনক ভাবে নিঁখোজ রয়েছে। বুধবার বিকেল পর্যন্ত এই ২ সহপাঠীর খোঁজ পাওয়া যায়নি। এদিকে জেলা সদরের চরাঞ্চল মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের আমঘাটা গ্রামে নিখোঁজ এক শিক্ষার্থীর খালার বাড়ি থেকে বুধবার সকালে নিখোঁজ ২ শিক্ষার্থীর স্কুল ড্রেস উদ্ধার করা হয়েছে। স্কুল ড্রেস সদর থানা পুলিশ জব্দ করেছে। নিখোঁজ ২ জনেরই নাম সুমাইয়া। উভয়ের পরিবার শহরের মানিকপুর এলাকায় বসবাস করেন। নিখোঁজ একজনের বাবার নাম বাহাদুর সরকার ও অপর জনের বাবা হচ্ছেন- মকবুল হোসেন। রহস্য জনক নিখোঁজ হওয়া ২ শিক্ষার্থীর পরিবারের পক্ষে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে সদর থানায় সাধারণ ডায়রি করা হয়েছে। চলতি সপ্তাহের শনিবার সকালে মানিকপুর এলাকার বাহাদুর সরকারের মেয়ে সুমাইয়া ড্রেস পরিহিত অবস্থায় স্কুলে যাওয়ার কথা বলে মকবুল হোসেনের মেয়ে সুমাইয়াকে নিজ বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আসে। একত্রে তারা স্কুলের উদ্দেশ্যে রওনা দিলেও দিনশেষে সেদিন বাড়ি ফিরে আসেনি তারা।

এদিকে বাহাদুরের মেয়ে সুমাইয়ার খালা নাসিমা বেগমের কাছে শিক্ষার্থীদের খোঁজ জানতে চাইলে তিনি শিক্ষার্থীদের অবস্থান সম্পর্কে কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন। খালা নাসিমা জানান- শনিবার সুমাইয়াই নামের ২ শিক্ষার্থী তার বাড়িতে গিয়ে এক কবিরাজের কাছে যাওয়ার কথা বলে স্কুল ড্রেস পরিবর্তন করে তারই পরিধেয় জামা পড়ে নেয়। এরপর কবিরাজের বাড়ি থেকে ফিরে তার কাছে যায়নি। সদর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: আবুল বাসার জানান- রহস্যজনক নিখোঁজ শিক্ষার্থীদের খোঁজে পুলিশ তৎপরতা চালাচ্ছেন। এ ঘটনায় এক শিক্ষার্থীর খালাকে সন্দেহ করা হলেও আপাতত তিনি জড়িত কিনা- তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের স্কুল ড্রেস উদ্ধার করা হলে পুলিশ তা আলামত হিসেবে জব্দ করেছে।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী

Leave a Reply