দেশ জানো বিশ্ব জানো: শিক্ষকদের সঙ্গে কালের কন্ঠ সম্পাদকের মতবিনিময়

মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদানের জন্য শুরু হয়েছে দেশের সর্ববৃহৎ সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতা কালের কণ্ঠ-ওশান গ্রুপ ‘দেশ জানো বিশ্ব জানো’। প্রতিযোগিদের ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকাকে ১০টি জোনে ভাগ করা হয়েছে। গত ১৪ জুন উত্তরা জোনে মেধাভিত্তিক এ প্রতিযোগিতার নিবন্ধন শুরু হয়। বাকি নয়টি জোনে আগামী ১ জুলাই থেকে প্রতিযোগিতার নিবন্ধন শুরু হবে।

বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে মতিঝিল জোনের শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেন কালের কণ্ঠ সম্পাদক জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন। প্রতিযোগিতা-পূর্ব এ সভায় মতিঝিল জোনের ৫০টি স্কুল ও মাদ্রাসার প্রধান ও সহকারী প্রধান শিক্ষকরা অংশ নেন।

প্রতিযোগিতায় সব মিলিয়ে কোটি টাকার মেধাবৃত্তি দেয়া হবে ঢাকা মেট্রোপলিটনের শিক্ষার্থীদের। নতুন প্রজন্মকে তথ্য সচেতন করতে এবং তাদের মেধার বিকাশ ও বুদ্ধির প্রখরতা বাড়াতেই কালের কণ্ঠের এই বিশাল আয়োজন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার উত্তরা, গুলশান, মতিঝিল, রামপুরা, রমনা, যাত্রাবাড়ী, ক্যান্টনমেন্ট, লালবাগ, ধানমন্ডি ও মিরপুর এ ১০টি জোনে অনুষ্ঠিত হবে প্রায় ১০ মাসব্যাপী এ প্রতিযোগিতা। মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের দুটি বিভাগে বিভক্ত করে প্রতিযোগিতাটি আয়োজিত হবে।

সভায় উপস্থিত শিক্ষকদের অভিনন্দন জানিয়ে এবং প্রতিযোগিতার প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে ইমদাদুল হক মিলন বলেন, “প্রতিযোগিতায় ঢাকা মহানগরীর প্রায় ৫০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অংশ নিবে। চূড়ান্ত পর্বে বিজয়ীদের ১ম পুরস্কার হিসেবে পাঁচ লাখ টাকা, ২য় পুরস্কার তিন লাখ টাকা ও ৩য় পুরস্কার হিসেবে দুই লাখ টাকা দেয়া হবে। সব মিলিয়ে প্রতিযোগিতায় কোটি টাকার বেশি মেধাবৃত্তি দেয়া হবে।”

প্রতিযোগিতাটি এবার ঢাকা অঞ্চল থেকে শুরু হলেও পরের বছর থেকে ক্রমান্বয়ে অন্যান্য বিভাগ, জেলা, উপজেলা হয়ে দেশব্যাপী এটি আয়োজন করা হবে বলে জানান কালের কণ্ঠ সম্পাদক।

তিনি বলেন, “আমাদের মূল্যবোধগুলো বদলে গেছে। আগে আমাদের স্কুলের জন্য এত এ বড় ব্যাগ ছিল না। তখন কোচিং বা প্রাইভেটে পড়ার প্রয়োজন ছিল না। আগের মতো এখন আর খেলার মাঠ নেই। শিক্ষার্থীরা এখন পাঠ্যপুস্তক, নিজের ঘর আর কম্পিউটারের মধ্যে আবদ্ধ হয়ে পড়েছে। আমাদের সময়টিকে হয়তো ফিরিয়ে দিতে পারবো না শিক্ষার্থীদের, কিন্তু আমরা তাদের একটি আলোকিত জীবন ফিরিয়ে দিতে চাই।”

তিনি বলেন, “মেধাবৃত্তি হিসেবে আর্থিক পুরস্কার দেয়ার একটি কারণ আছে। অনেক দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে দেখা যায় তারা এসএসসি বা এইচএসসি পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করলেও পরে টাকার অভাবে আর পড়াশুনা করতে পারে না। তারা যদি পুরস্কার হিসেবে ক্রেস্ট ও সনদের পাশাপাশি টাকাও পায় তবে পরে তাদের পড়াশুনা চালিয়ে যেতে পারবে।”

তিনি বলেন, “ভবিষ্যতে যারা রাষ্ট্র পরিচালনা করবে সেইসব শিক্ষার্থীদের শিক্ষায় ও জ্ঞানে সমৃদ্ধ করতে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন।”

শিক্ষার্থীদের নিয়ে এ আয়োজনের মতো কালের কণ্ঠ থেকে শিক্ষকদের নিয়েও একটি মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে বলে ঘোষণা দেন ইমদাদুল হক মিলন।

সভায় উপস্থিত শিক্ষকরা আয়োজনের জন্য কালের কণ্ঠকে ধন্যবাদ জানান। তারা বলেন, মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি দেয়ার জন্য এ আয়োজন একটি মহৎ উদ্যোগ, যা জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। প্রতিযোগিতাটিকে সফল করার জন্য আমরা সর্বাত্মক সহযোগিতা করব এবং শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে উৎসাহ দিব। এ প্রতিযোগিতাটিকে দেশবাসী শিক্ষাক্ষেত্রে একটি মাইল ফলক হিসেবে স্মরণ করবে বলেন।

অনুষ্ঠানে মতিঝিল জোনের শিক্ষকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংক স্কুলের ড. মনোয়ার হোসেন, মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয়ের সৈয়দ হাফিজুল ইসলাম, মতিঝিল টিঅ্যান্ডটি হাইস্কুলের মো. হাসিম উদ্দিন ভূঁইয়া, মগবাজার টিঅ্যান্ডটি হাইস্কুলের একেএম নজরুল ইসলাম, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের মোজাম্মেল হোসাইন, প্রভাতি উচ্চ বিদ্যানিকেতনের একেএম আবুল বাশার, বীরশ্রেষ্ট মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজের আকমল হোসেন খোকন প্রমুখ।

নতুন প্রজন্মকে তথ্য সচেতন করতে এবং তাদের মেধার বিকাশ ও বুদ্ধির প্রখরতা বাড়াতেই কালের কণ্ঠের এই বিশাল আয়োজন। ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকাকে ১০টি জোনে ভাগ করে ১০ মাস ধরে এ প্রতিযোগিতা চলবে। উত্তরা জোনের পর পর্যায়ক্রমে অন্যান্য জোনেও নিবন্ধনের মাধ্যমে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। সব জোন থেকে বাছাইকৃত প্রতিযোগীদের নিয়ে হবে চূড়ান্ত পর্ব।

এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্যের জন্য ৮৪০২৩৭২-৭৫ নম্বরে অথবা deshjanobishwajano@kalerkantho.com এ যোগাযোগ করা যাবে।

আয়োজনের মূল স্পন্সর ওশান গ্রুপ এবং সহযোগী স্পন্সর মার্সেল, ক্যামব্রিয়ান কলেজ ও ওরিয়ন গ্রুপ। মিডিয়া পার্টনার মাছরাঙ্গা টেলিভিশন, রেডিও টুডে, বাংলানিউজটেয়েন্টিফোর.কম, ডেইলি সান ও বাংলাদেশ প্রতিদিন।

বার্তা২৪

Leave a Reply