এবারও মাওয়া ঘাটে একই যাত্রী টোল দেবেন দু’বার!

জেলা পরিষদ ও বিআইডবি্লউটিএ মুখোমুখি
উচ্চ আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে আজ রোববার থেকে ২০১২-১৩ অর্থবছরের জন্য মাওয়া ঘাটে টোল আদায় করতে যাচ্ছে জেলা পরিষদ। এ নিয়ে বিআইডবি্লউটিএ জেলা পরিষদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে। অপরদিকে বিআইডবি্লউটিএ তাদের ঘাট কোনো প্রকার ইজারা না দিয়ে নিজেরাই খাস কালেকশনের মাধ্যমে টোল আদায় করবে বলে জানিয়েছে। টেন্ডারের মাধ্যমে সোয়া ৫ কোটি (ভ্যাটসহ) টাকার জেলা পরিষদের আন্তঃজেলা খেয়াঘাট (মাওয়া অংশের) এবার মাত্র সোয়া কোটি টাকায় (ভ্যাটসহ) ইজারা দেওয়ায় সরকার বড় ধরনের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হয়েছে। পাশাপাশি একই যাত্রী দুই প্রতিষ্ঠানের শিকার হয়ে মাওয়া ঘাটে দুই জায়গায় টোল দিয়ে এবারও বলির পাঁঠায় পরিণত হয়ে খেয়া পার হবেন।

জানা যায়, মাওয়ায় জেলা পরিষদ ও বিআইডবি্লউটিএর দুটি ঘাট একই স্থানে রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। ফলে দক্ষিণবঙ্গগামী যাত্রীদের একই ঘাটে দু’বার দুই প্রতিষ্ঠানকে টোল দিতে হয়। এ নিয়ে জেলা প্রশাসন ও বিআইডবি্লউটিএর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে চিঠি চালাচালি এমনকি আদালতে মামলা হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তবে এবার বিআইডবি্লউটিএ মাওয়া নদীবন্দর থেকে জেলা পরিষদের ঘাটটি সরিয়ে নিতে প্রথমে জেলা পরিষদকে উকিলের মাধ্যমে চিঠি পাঠায়। পরে হাইকোর্ট থেকে জেলা পরিষদের আন্তঃজেলা খেয়া (মাওয়া অংশের) ঘাটের ওপর ৬ মাসের স্থগিতাদেশ চেয়ে একটি রিট পিটিশন করে। মহামান্য হাইকোর্ট গত ১৮ জুন মাওয়া ঘাটে ইনজাংশন জারি করে ৬ মাসের জন্য জেলা পরিষদের ঘাটের সব কার্যক্রম বন্ধ করে টোল আদায় কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না জানতে চান।

জেলা পরিষদ হাইকোর্টের নির্দেশ উপেক্ষা করে চতুর্থবার টেন্ডারের মাধ্যমে গত ২৫ জুন স্থানীয় মেদিনী মণ্ডল ইউপি যুবলীগ সভাপতি মো. হামিদুল ইসলামকে প্রায় সোয়া কোটি টাকায় (ভ্যাটসহ) মাওয়া জেলা পরিষদের খেয়াঘাটের ইজারা প্রদান করে। গতবার এই ঘাটটি সোয়া ৫ কোটি টাকায় ইজারা দেওয়া হয়েছিল। অপরদিকে মাওয়া ঘাটের হয়রানি থেকে দক্ষিণবঙ্গের যাত্রীদের নির্বিঘ্নে পারাপারের জন্য বিআইডবি্লউটিএ এবার মাওয়া নদীবন্দর ঘাটের ইজারা প্রথা বাতিল করে নিজেরাই খাস কালেকশনের মাধ্যমে ২ টাকা হারে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে বিআইডবি্লউটিএর মাওয়া সহকারী বন্দর কর্মকর্তা বদরুল আলম। নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান এর আগে মাওয়ায় জনসমাবেশে প্রয়োজনে মাওয়ার টোল আদায় বন্ধ করার কথা বললেও আজ রোববার অর্থবছরের প্রথম দিন এ টোল আদায় করবে বিআইডবি্লউটিএর নিজস্ব লোকজন। অপরদিকে ৩ টাকা হারে জেলা পরিষদের ইজারাদার যাত্রীদের কাছ থেকে টোল আদায় করবে। অর্থাৎ একজন যাত্রীকে এ ঘাটে সর্বমোট ৫ টাকা হারে দুই প্রতিষ্ঠানকে টোল দিতে হবে। বিগত বছরগুলোতে এই হারে টোল আদায় বলবৎ থাকলেও যাত্রীদের কাছ থেকে দিনে ১০ টাকা ও সন্ধ্যা ৬টার পর ২০ টাকা টোল আদায় করতেন এ দুই প্রতিষ্ঠানের ইজারাদাররা।

তবে বিআইডবি্লউটিএর ঊর্ধ্বতন উপপরিচালক (ঢাকা নদীবন্দর) মো. রফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, ২৫ জুন সকালে হাইকোর্টের রায় সংবলিত অ্যাডভোকেট সার্টিফাইট কপিসহ বিআইডবি্লউটিএর একটি চিঠি জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে দেওয়া হলেও বিকেলে তড়িঘড়ি করে জেলা পরিষদ হাইকোর্টের নির্দেশনা উপেক্ষা করে মাওয়া ঘাটের ইজারা দেয়। আগামীকাল (আজ রোববার) যাতে জেলা পরিষদ মাওয়া ঘাটে টোল আদায় করতে না পারে সেজন্য হাইকোর্টের রায়ের কপি দিয়ে পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা নেওয়া হবে।

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মহিউদ্দিন বলেন, হাইকোর্টের সিলমোহরযুক্ত কোনো আদেশনামা আমরা পাইনি। ২৫ জুন বিআইডবি্লউটিএর কোনো চিঠিও পাইনি। যদি হাইকোর্ট কোনো নির্দেশ দিয়ে থাকে তবে রায়ের কপি পাওয়ার পরই আইনগতভাবে তা মোকাবেলা করা হবে।

সমকাল

Leave a Reply