কলেজ শিক্ষার্থী ও দখলদারদের সঙ্গে সংর্ঘষে আহত ১৫

শেখ মো.রতন: আবাসিক হলের জায়গা দখল করে সীমানা প্রাচীর দেয়াল নির্মান করাকে কেন্দ্র করে শনিবার মুন্সীগঞ্জ সদরের সিপাহীপাড়া এলাকায় রামপাল কলেজের শিক্ষার্থী ও দখলবাজ দুস্কৃতকারী দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে শিক্ষার্থীসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। এ সময় শিক্ষার্থীরা বেতকা-মুক্তারপুর ও সিপাহীপাড়া-ধলাগাঁও বাজার সড়ক দীর্ঘ ২ ঘন্টা অবরোধ করে। পুলিশ দখলবাজ স্বামী-স্ত্রী রুস্তম আলী ও আমেনা বেগমকে গ্রেফতার করেছে। রুস্তম আলীর লোকজন রামপাল কলেজের আবাসিক হলের ১৬ শতাংশ জায়গার মাঝামাঝি স্থান দিয়ে শুক্রবার দিবাগত রাতের আঁধারে প্রাচীর দেয়াল নির্মান করলে শনিবার সকালে ওই দু’গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে রামপাল কলেজের আবাসিক হলের নৈশ প্রহরী মো: নাসির উদ্দিন (৪০) ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আতেব খানকে (১৮) রক্তাক্ত জখম অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহত বাংলা বিভাগের অধ্যাপক মনোয়ার হামিনুল আলম, দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী বিপ্লব, মাসুদ, আলী, সজলসহ বাকীদের বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতারে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

রামপাল কলেজের অধ্যক্ষ সাহেব আলী জানান, কলেজ হোস্টেলের ১৬ শতাংশ জায়গার মধ্যে প্রায় ৭ শতাংশ জায়াগায় পাশের রুস্তম আলী ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে রাতের আধারে প্রাচীর নির্মাণ ও ঘর তুলে অবৈধভাবে দখল করে এবং কলেজের কর্মচারী নাসিরকে কুপিয়ে জখম করে এবং বেশ কয়েকজন ছাত্রকে মারধর করে। পরে সকালে এঘটনা জানতে পেরে কলেজের শিক্ষার্থীরা ওই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলে এবং এই অবৈধ দখলের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করে।

সদর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: আবুল বাসার জানান, বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে দখলবাজ দুস্কৃতকারী গ্রুপের লোকজন পিছু হটে যায়। এর আগে বেলা ১২ টার দিকে শিক্ষার্থীদের একটি অংশ সিপাহীপাড়া মোড়ে অবরোধ সৃষ্টি করলে মুক্তারপুর-বেতকা ও সিপাহীপাড়া-ধলাগাঁও বাজার সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুপুর ২ টার দিকে এসআই নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে সদর থানা পুলিশের একটি টিম অভিযুক্ত দখলবাজ রুস্তম ও তার স্ত্রীকে গ্রেফতার করলে শিক্ষার্থীরা সড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেয়। পরে কলেজের আবাসিক হলে শত শত শিক্ষার্থী অবস্থান নিয়ে নির্মিত প্রাচীর দেয়াল ও একটি টিনসেট ঘর ভেঙ্গে মাটির সঙ্গে গুড়িয়ে দেয়।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী
============================

মুন্সীগঞ্জের রামপাল কলেজ রণক্ষেত্র :আহত ২০

আবাসিক হলের জায়গা দখল করে সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ নিয়ে গতকাল কলেজের শিক্ষার্থী ও দখলবাজ দুষ্কৃতকারীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার মধ্য দিয়ে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জ সদরের রামপাল মহাবিদ্যালয় ও সিপাহীপাড়া মোড় এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। রামপাল কলেজ চত্বর থেকে সিপাহীপাড়া মোড় পর্যন্ত দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে গোটা সিপাহীপাড়া এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। জেলা সদরের রামপাল কলেজের আবাসিক হলের জায়গায় রাতের আঁধারে দেয়াল নির্মাণ করায় কলেজের বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও দখলবাজ দুষ্কৃতকারীদের মধ্যে কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে।

এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বেতকা-মুক্তারপুর ও সিপাহীপাড়া-ধলাগাঁও বাজার পৃথক ২টি সড়ক দীর্ঘ ২ ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন। শিক্ষার্থীরা সড়কে কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর ও টায়ারে অগি্নসংযোগ করেন। এ ঘটনায় পুলিশ দখলবাজ স্বামী-স্ত্রী রুস্তম আলী ও আমেনা বেগমকে গ্রেফতার করেছে। আহতদের মধ্যে রামপাল কলেজের আবাসিক হলের নৈশপ্রহরী নাসির উদ্দিন ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আতেবকে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সদর ওসি আবুল বাসার জানান, সিপাহীপাড়া এলাকার রুস্তম মার্কেটের মালিক রুস্তম আলী ও প্রিম বিউটি পার্লারের স্বত্বাধিকারী রুস্তমের স্ত্রী আমেনা বেগমের লোকজন কলেজের আবাসিক হলের ১৬ শতাংশ জায়গার মাঝামাঝি স্থান দিয়ে শুক্রবার রাতের আঁধারে দেয়াল নির্মাণ করলে কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। অভিযুক্ত রুস্তম আলী সন্ত্রাসী নিয়ে ছাত্রদের ওপর হামলা চালালে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।

দুপুর ২টায় সিপাহীপাড়ার প্রিম বিউটি পার্লারে এসআই নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে রুস্তম ও তার স্ত্রী আমেনা বেগমকে গ্রেফতার করে।

সমকাল
======================

রাতের আঁধারে প্রাচীর নির্মাণ, মুন্সীগঞ্জে শিক্ষার্থী-দুষ্কৃতকারী সংঘর্ষ : শিক্ষকসহ আহত ২০

আবাসিক হোস্টেলের জায়গা দখল করে রাতের আঁধারে সীমানাপ্রাচীর নির্মাণকে কেন্দ্র করে রামপাল কলেজের শিক্ষার্থী ও দখলবাজদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জ সদরের রামপাল মহাবিদ্যালয় ও সিপাহীপাড়া মোড় এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ অন্তত ২০ জন আহত হন। এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বেতকা-মুক্তারপুর ও সিপাহীপাড়া-ধলাগাঁও বাজারের পৃথক দুটি সড়ক ২ ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। শিক্ষার্থীরা সড়কে কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর ও টায়ারে অগ্নিসংযোগ করে। এ ঘটনায় পুলিশ দখলবাজ স্বামী-স্ত্রী রুস্তম আলী ও আমেনা বেগমকে গ্রেফতার করেছে। আহতদের মধ্যে রামপাল হোস্টেলের নৈশপ্রহরী মো. নাসির উদ্দিন ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আতেব খানকে গুরুতর অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অপর আহত বাংলা বিভাগের অধ্যাপক মনোয়ার হামিনুল আলম, দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী বিপ্লব, মাসুদ, আলী, সজলসহ বাকিদের শহরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিত্সা দেওয়া হয়েছে। সদর থানার ওসি মো. আবুল বাসার জানান, সিপাহীপাড়া এলাকার রুস্তম আলী ও তার স্ত্রী আমেনা বেগমের লোকজন রামপাল কলেজের আবাসিক হোস্টেলে ১৬ শতাংশ জায়গার মাঝামাঝি স্থানে শুক্রবার দিবাগত গভীর রাতে দেয়াল নির্মাণ করলে গতকাল সকালে কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রুস্তম আলীর নেতৃত্বে ১০-১২ দুষ্কৃতকারী কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালালে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও দখলবাজ দুষ্কৃতকারী দু’গ্রুপ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। দুপুর ২টার দিকে সদর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত রুস্তম ও তার স্ত্রী আমেনা বেগমকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

এতে শিক্ষার্থীরা সড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেয়। রামপাল কলেজের অধ্যক্ষ সাহেব আলী মোল্লা জানান, সিপাহীপাড়া এলাকায় ১৬ শতাংশ সম্পত্তির ওপর শিক্ষার্থীদের আবাসিক হোস্টেল হিসেবে দুটি টিনশেড ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী ওই আবাসিক হলে বসবাস করে পড়াশোনা চালিয়ে আসছে। সাম্প্রতিক সময়ে আবাসিক হল সংলগ্ন রুস্তম মার্কেটের মালিক রুস্তম আলী ওই ১৬ শতাংশ জায়গার মধ্যে ৮ শতাংশ নিজের বলে দাবি করে আসছিলেন। দাবি মোতাবেক শুক্রবার রাতের আঁধারে তিনি লোকজন নিয়ে কলেজের আবাসিক হলের জায়গায় প্রাচীর দেয়াল নির্মাণ করলে শিক্ষার্থীরা উত্তেজিত হয়ে ওঠে। তারা উত্তেজিত শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের ওপর হামলা চালালে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।

সকালের খবর

Leave a Reply