হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ অমান্য করে মাওয়া লঞ্চঘাটের ইজারা!

শেখ মো.রতন: হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকা সত্বেও টেন্ডার দাখিলে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের মালিকানাধীন মাওয়া নতুন লঞ্চঘাট ১ কোটি ৪ লাখ টাকায় ইজারা দেওয়া হয়েছে। সম্ভাব্য মূল্যের চেয়ে দ্বিগুনের বেশী কম মূল্যে এ ইজারা দেওয়ায় রাজস্ব আদায়ে ৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা গচ্চা খাচ্ছে সরকার। এবার সম্ভাব্য ইজারা মুল্য ধরা হয় ৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা। তাছাড়া গেলো বার এ ঘাট ইজারা দেওয়া হয় ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকায়। শনিবার শনিবার গেলো বারের দেওয়া ইজারার মেয়াদ শেষ হচ্ছে। কাজেই কাজ রোববার থেকেই ইজারা আদায়ে দক্ষিনবঙ্গের এ নৌরুটের মাওয়া লঞ্চঘাটের এবারের ইজারাদার যাত্রী প্রতি ইজারা আদায় শুরু করতে পারবেন। হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে জেলা পরিষদে গত ২৫ জুন মাওয়া লঞ্চঘাটের টেন্ডার দাখিল করা হয়। লঞ্চঘাট সংলগ্ন এলাকা মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মেদেনীমন্ডল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হামিদুল ইসলাম ১ কোটি ৪ লাখ টাকায় নতুন এ লঞ্চঘাটের ইজারা পান। গত ১৫ মে মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদ মাওয়া লঞ্চঘাটের টেন্ডার আহবান করে। এ টেন্ডারের বিপক্ষে হাইকোর্টে জনৈক এক ব্যক্তি রিট আবেদন করলে গত ২০ জুন বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিক ও বিচারপতি মো: জাহাঙ্গীর হোসেনের বেঞ্চ আগামী ৬ মাসের জন্য টেন্ডার দাখিলে স্থগিতাদেশ প্রদানের নির্দেশ দেন। হাইকোর্টের এ নির্দেশ অমান্য করে ২৫ জুন জেলা পরিষদে এককভাবে টেন্ডার দাখিল করেন যুবলীগ নেতা হামিদুল ইসলাম। এতে তিনি এককভাবে ১ কোটি ৪ লাখ টাকায় মাওয়া নতুন লঞ্চঘাট ইজারা পেয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আকরাম হোসেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা পরিষদের এ প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোবাইল ফোনে টেন্ডার দাখিল ও স্বল্প মূল্যে লঞ্চঘাট ইজারা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোফাজ্জেল হোসেনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি পিতৃ-বিয়োগের কারনে গ্রামের বাড়িতে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন। তাই তিনি এ ব্যাপারে কোন কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন।

এদিকে, বিআইডব্লিউটিএ মাওয়া নতুন লঞ্চঘাটে যাত্রী সেবায় বিনা পয়সায় চলাচলের সুযোগ দিয়েছেন। যাত্রী প্রতি ২ টাকা করে আদায়ের ক্ষেত্রে এ সুযোগ সুবিধা দিয়েছেন বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ। তবে- জেলা পরিষদের ইজারা আদায়ের ক্ষেত্রে নৌ-মন্ত্রী বিআইডব্লিউটিএর মতোই এক্ষেত্রে যাত্রী সেবা দেওয়ার কথা বলেছিলেন। গত ৫ মে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান মাওয়া চৌরাস্তা সংলগ্ন নতুন লঞ্চঘাট ও পার্কিং ইয়ার্ডের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দক্ষিনবঙ্গের লাখ লাখ যাত্রী সাধারণকে সেবা প্রদানে লঞ্চঘাটে জেলা পরিষদেরর ইজারার যাত্রী প্রতি ৩ টাকা আদায় না করার অঙ্গীকার করেন নৌ-মন্ত্রী শাহজাহান খান। কিন্তু নৌ-মন্ত্রীর সেই অঙ্গীকার ভেস্তে গিয়েছে। জেলা পরিষদ গত ২৫ জুন একক ভাবে সিডিউল দাখিলের মাধ্যমে যুবলীগ নেতাকে লঞ্চঘাট ইজারা দেওয়ায় মন্ত্রীর সেই অঙ্গীকার ও যাত্রীদের দেওয়া আশা ভুলুন্ঠিত হয়েছে। এতে দক্ষিনবঙ্গের যাত্রীদের এখন লঞ্চঘাটে জনপ্রতি ৩ টাকা করে ইজারা দিতে হবে। এতে দক্ষিনবঙ্গের যাত্রীদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী
========================

মাওয়াঘাট নিয়ে জেলা প্রশাসন বিআইডব্লিউটিএ টানাটানি : ‘যুবলীগ নেতা’ পরিচয়ে ৫ কোটি টাকার ঘাট ইজারা নিলেন সোয়া কোটিতে

শফিকুল ইসলাম: গত বছর মাওয়াঘাট ইজারা হয়েছিল ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকায়। এবার ইজারা নিয়েছে এক যুবলীগ নেতা। ‘যুবলীগ নেতা’ পরিচয়ের সুবাদে তার জন্য ‘ডিসকাউন্ট’ দেয়া হয়েছে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা! জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে তিনি ঘাটটি ইজারা নিয়েছেন মাত্র সোয়া কোটি টাকায়।

এদিকে উচ্চ আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে আজ থেকে ২০১২-২০১৩ অর্থবছরের জন্য এ ঘাটে টোল আদায় করতে যাচ্ছে জেলা পরিষদ। অন্যদিকে ঘাটটি নিজেদের অধীনে দাবি করে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষও ইজারা ছাড়াই খাস কালেকশনের মাধ্যমে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে একই ঘাটে একজন যাত্রীকে পাঁচ টাকা হারে দুই প্রতিষ্ঠানকে দুইবার টোল দিতে হবে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, মাওয়ায় একই জায়গায় জেলা পরিষদ ও বিআইডব্লিউটিএ’র দুটি ঘাট রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। ফলে দক্ষিণাঞ্চলগামী যাত্রীদের সেখানে দুই প্রতিষ্ঠানকে দু’বার টোল দিতে হয়। এ নিয়ে জেলা প্রশাসন ও বিআইডব্লিউটিএ’র মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে চিঠি চালাচালির পর জুনের মাঝামাঝি তা আদালত পর্যন্ত গড়ায়।

বিআইডবিল্গউটিএ মাওয়া নদীবন্দর থেকে ঘাটটি সরিয়ে নিতে প্রথমে জেলা পরিষদকে উকিল নোটিশ পাঠায়। পরে হাইকোর্টে জেলা পরিষদের আন্তঃজেলা খেয়া (মাওয়া অংশের) ঘাটের ওপর ৬ মাসের স্থগিতাদেশ চেয়ে রিট পিটিশন দায়ের করলে হাইকোর্ট গত ১৮ জুন ঘাটের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। আদালত ৬ মাসের জন্য জেলা পরিষদের ঘাটের সব কর্যক্রম বন্ধ করে জেলা পরিষদের টোল আদায় কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না জানতে চেয়ে রুল জারি করে।

কিন্তু আদালতের এ আদেশ অমান্য করে গত ২৫ জুন তড়িঘড়ি করে জেলা পরিষদ নিজেদের পছন্দের লোক স্থানীয় মেদিনী মণ্ডল ইউপি যুবলীগ সভাপতি মো. হামিদুল ইসলামকে প্রায় সোয়া কোটি টাকায় (ভ্যাটসহ) মাওয়া জেলা পরিষদের খেয়াঘাটের ইজারা দেয়।

এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন জানিয়েছেন, হাইকোর্টে সিলমোহরসহ কোনো আদেশ আমরা পাইনি। তবে জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে এ বিষয়ে শুনেছেন বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম আমার দেশ-কে জানান, গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের একটি আদেশের অনুলিপি তিনি পেয়েছেন।

নতুন ইজারাদার মো. হামিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, ঘাটে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে অতীতে এ খেয়াঘাটের ডাক প্রায় ৫ কোটি টাকার কাছাকাছি চলে যায়। এ বছর নিয়মতান্ত্রিকভাবেই তিনি ঘাটের ইজারা নিয়েছেন বলে দাবি করেন।

এ নিয়ে বিআইডব্লিউটিএ জেলা পরিষদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

আমার দেশ

Leave a Reply