ভাই পায়ে ধরি আমার স্বামীকে বলেন, সে যেন আমায় তালাক না দেয়

ব.ম শামীম: ভাই আমি জীবনে আর কোন কিছুই চাইনা। স্বামীর আদর ভালোবাসা কোন কিছুই প্রয়োজন নেই আমার । আপনার পাই ধরি আপনি আমার স্বামীকে বলেন সে যেন আমাকে তালাক না দেয়। আমি ভরন পোষন খাবার তার কাছে কিছুই চাইনা। শুধূ আমার সন্তানদের পিতৃ পরিচয়টুকু যেন সে মুছে না দেয়। আমার মেয়েদেরকে বিবাহের সময় যদি পিতার পরিচয় জিজ্ঞাসা করে তবে কি জবাব দিমু আমি। এমনি শত আকূতি শাকিলার। সাথে ৮-১০ বছরের দুটি মেয়ে তার। ফুট ফুটে সুন্দর মেয়ে দুটির ডাগর নয়নে যেন রাজ্যের বিস্ময়। ৩৫-৪০ বছরের নারী শাকিলা। মুখে কেবল হাজারও আকূতি আর মিনতি। একটা অজনা শঙ্কায় ভরা হৃদয়খানী। আশে পাশে যাকে দেখে তার কাছেই কান্না জড়িত কন্ঠে একই মিনতি। একটু অদূরে তার স্বামী শাহ আলম দাড়িয়ে, বার বার তার দিকে দৃষ্টিপাত করছে আর বিলাপ করছে সে। সাংবাদিক হিসাবে যখন তার আকূতির কারন সম্পর্কে জানতে চাইলাম, মনে হলো সে পৃথিবীর সুধু একটি জিনসই বুঝে তার মতিস্ক জুড়ে যেন একটি বিষয় সুধু বিচরন তা হলো সুধু তার সন্তানের পিতৃ পরিচয়। অনেক সহজ পশ্নের উত্তরও সঠিকভাবে দিতে পারছিলোনা শাকিলাা। আমার একটি প্রশ্নের জবাব না দিতেই আন্যকে জড়িয়ে ধরে আবার আহাজারী। বুঝলাম জীবনের উপর দিয়ে অনেক ঝড় বয়ে গেছে তার। আমি প্রশ্ন করছি শকিলার দৃষ্টি অন্যদিকে চলে যাচ্ছে বিধায় পাশে থাকা মেয়ে দুটি বার বার মাকে ডেকে আমার প্রশ্নের জবাব দেওয়ার জন্য দৃষ্টি ফিরাচ্ছে। আমার মনে হলো মেয়ে দুটিও মায়ের সাথে জীবন যুদ্ধ অবতরন হয়েছে। মায়ের আহাজারী যেন তাদের বুকের ভেতর একই সূত্রে গাঁথা। মা শুধু স্পষ্ট শুরু প্রকাশ করতে পারে ওরা তা পারছেনা।

জানতে পারলাম টঙ্গীবাড়ী উপজেলার মান্দ্রা গ্রামের এক দরিদ্র পিতার মেয়ে শাকিলা। প্রায় ১৫ বছর পূর্বে উপজেলার রাউৎভোগ গ্রামের সৌদি প্রবাসী শাহআলম এর সাথে বিবাহ হয় তার। বৈবাহিক জীবনে তাদের ১টি ছেলে ও ২টি মেয়ে সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর হতে স্বামী কোনরুপ ভরন পোষন করলেও প্রায় ২ বছর যাবৎ ঠিকমতো ভরন পোষন করছেন না। শাকিলার অভিযোগ স্বামী শাহআলম তাকে বলেছে সে আরেকটি বিবাহ করছে।

২ বছর যাবৎ শাকিলা বহু কষ্টে আদাহারে অনাহারে জীবন যাপন করছে। সন্তানদের বাচিঁয়ে রাখার তাগিদে এক মাদ্রাসায় ভাত রান্নার কাজে চাকুরী নিয়েছিলেন। সেখানে কোন রুপ কিছু ভাত ও সাথে ভাতের মার খেয়েই জীবন কাটতো সন্তানদের সহ শাকিলার। কিন্তু হঠাৎ করে মাদ্রাসার চাকুরী চলে যাওয়ায় চরম বিপাকে পরে সে।

বেঁেচ থাকার সব পথ রুদ্ধ হয়ে যায়। উপায়ন্তর না পেয়ে বিভিন্ন উপায়ে স্বামীর সাথে যোগাযোগ করেন ভরন পোষনের জন্য। ব্যার্থ হয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরতে থাকেন অসহায় বাচ্চাদের নিয়ে এর বিচার চেয়ে। এলাকায় কয়েক দফা বিচার শালিশী অনুষ্ঠিত হয়, গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিতিতে শাহআলমের দেশে আবস্থান করা ভাইয়েরা শাহআলম এর নিকট হতে শাকিলার ভরন পোষনের ব্যাবস্থা করে দেওয়ার কথা দিলেও পরে ভরন পোষন দিতে ব্যার্থ হন তারা। অবশেষে আদালতে গিয়ে মামলা করতে বাধ্য হন শাকিলা।

সম্প্রতি শাহআলম দেশে ফিরে আসলে স্থাণীয় বিচার শালিশীতে সে জানায় সে কিছুতেই শাকিলার সাথে ঘর সংসার করতে রাজি নয়। কিন্তু অসহায় শাকিলার ভরন পোষন নিয়ে কোন দুঃখ না থাকলেও দুঃখ শুধু একটাই তার সন্তানদের পিতৃ পরিচয় নিয়ে।

তার শুধু একটাই অকূতি তার মেয়েদের বিবাহের সময় যখন পিতার পরিচয় জিজ্ঞাসা করবে তখন সে কি উত্তর দিবে। এই কথার সদউত্তর কি দিতে পারবে এ সমাজ এ পৃথিবী। শাকিলাতো কোন দোষ করেনি সেওতো চেয়েছিলো আর দশজন মেয়ের মতো স্বামীর সংসার করতে। কিন্তু জীবনের অর্ধেক অংশে এসে আজ তার যে নিয়তি এর জন্য দায়ীকে। সন্তানতো শাকিলার একার নয় । আমাদের পুরুষ শাষিত সমাজ ব্যাবস্থায় সন্তানদের বিয়ে এবং ভরন পোষনের চিন্তাতো পিতার করার কথা। কিন্তু শাকিলার সন্তানদের ভরন পোষনতো দুরের কথা আজ তাকে ভাবতে হচ্ছে সমাজের পিতার পরিচয় নিয়ে। আমাদের সমাজ নারীরা অন্য ক্ষেত্রে যত মূল্যবান হোক না কেন বিয়ের ক্ষেত্রে তারা একেবারেই মূল্যহীন। সমাজের বিত্তবান এবং নামিাদামী পরিবারের মেয়েদের বিবাহের ক্ষেত্রে যেখানে দামী দামী যৌতুক দিতে হচ্চে যেখানে যৌতুক গ্রহন করা এ সমাজের ইষ্টের্টাচ হয়ে দারিয়েছে সেখানে এই পিতৃ পরিচয় হারা শাকিলার সন্তানদের নিয়ে শঙ্কাতো হওয়ারই কথা। শাকিলার বাচ্চারাতো কোন দোষ করেনি তাদেরও অধিকার আছে এ সমাজে আর দশজনের মতো মাথা উঁচু করে বাচাঁর । এ সময় তাদের হাতে বই খাতা নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা। এই কোমলমতি শিশুদের মায়ের সাথে বিচারের দাবীতে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরার কথা নয়। শুধু একজন মাঝ বয়সী পিতা শাহআলম কি ভেবে দেখেছে তার কারনে নষ্ট হতে চলছে তিনটি শিশু ও শাকিলার জীবন। একটু আদর যন্ত ভালোবাসায় শাকিলার সন্তানরাতো হতে পারতো এ সমাজের রাষ্টনায়ক, লেখক, শিক্ষক,ডাক্তার কিংবা বড় কোন সাধক। এই মাঝ বয়সি জানোয়ার পিতা কি কখনো ভেবে দেখেছেন তার এ মধ্য বয়সী জীবনের চেয়ে শিশু তিনটির জীবন অনেক মূল্যবান। বনের হিংস্র জানোয়ারতো নিজে নিজ সম্প্রদায়ের মাংস ব্রক্ষন করে না। আর সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ, পিতা হয়ে আজ পুত্র কন্যাদের জীবনকে ব্রক্ষন করতে কি তার বিবেক একটু বাধাঁ দেয়না। এ সব জানোয়ার রুপি মানুষদের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে কবে? এই সভ্য যোগে মনের গহিনে একটি প্রশ্ন তাড়া করে যায় মানুষ আর কতো সভ্য হলে নিরাপদ হবে শাকিলাদের জীবন?

সম্পাদক, সাপ্তাহিক বিক্রমপুর চিত্র

Leave a Reply