গভীর রাতে ‘ডাকাত’ শহীদের লাশ দাফন

র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত শহীদুল ইসলাম ওরফে ‘ডাকাত শহীদের’ লাশ বৃহস্পতিবার গভীর রাতে দাফন করা হয়েছে। শহীদের ভাই নুরুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, পুলিশি প্রক্রিয়া শেষ করে লাশ নেওয়ার পর বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে আজিমপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

সূত্রাপুর থানার উপপরিদর্শক আবু সাঈদ জানান, রাতে শহীদের লাশ তার ভাই নুরুল ইসলামের কাছে এবং শহীদের সহযোগী কালুর লাশ তার মা মরিয়ম বেগমের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

মরিয়ম তার ছেলের লাশ মাদারীপুরে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে গেছে বলে সাঈদ জানান।

গত মঙ্গলবার রাতে পুরান ঢাকার লক্ষীবাজার এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন শহীদ ও কালু। এরপর দুই দিন লাশ দুটি পড়েছিল স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের মর্গে।

হাজারো মানুষ ‘ডাকাত শহীদের’ লাশ দেখতে মর্গে গেলেও সেখানে তাদের কোনো নিকট আত্মীয়কে দেখা যায়নি এই দুদিন।

বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে প্রথমে কালুর মা মরিয়াম মর্গে এসে ছেলের লাশ সনাক্ত করে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তার এক ঘণ্টা পর মর্গে আসেন শহীদের ভাই নুরুল ইসলাম। এ সময় তার সঙ্গে ৩০/৩৫ জন বিভিন্ন বয়সী লোক ছিলেন।

শহীদকে আজিমপুরে দাফন করার কারণ জানতে চাইলে নুরুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “গ্রামের বাড়িতে কবর দেইনি, কারণ নানা জনে নানা কথা বলবে।”

শহীদ নিহত হওয়ার পর নুরুল ইসলাম প্রথমে জানিয়েছিলেন, তিনি ভাইয়ের লাশ নিতে মর্গে যেতে চান না।

সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, “র‌্যাব এসে চাপ দিল মর্গ থেকে লাশ নিয়ে কবর দিতে। তাদের (র‌্যাবের) নাকি অসুবিধা হচ্ছে। তাই ইচ্ছা না থাকলেও লাশ গ্রহণ করেছি।”

“কি লাভ তার লাশ নিয়ে? ভাইতো আমার ভালো ছিল না”, দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলেন নুরুল।

লাশটি শহীদেরই ছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, “কি যে বলেন ভাই.. ও আমার ছোট ভাই শহীদ। সঙ্গ দোষে ছেলেটা খারাপ হয়ে গেল।”

শহীদের মৃত্যুর খবর মা রাজিয়া খাতুনকে (৮০) জানানো হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন নুরুল।

পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ‘ডাকাত শহীদের’ বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ৬টি হত্যাসহ মোট ১৮টি মামলা রয়েছে। আর কালুর বিরুদ্ধে রয়েছে ৩টি মামলা। কালু ছিল শহীদের অপরাধমূলক কর্মকা-ের প্রধান সহযোগী।

২০০১ সালে শহীদের নাম পুলিশের শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকায় উঠে আসে। ২০০৫ সালে শহীদ পালিয়ে ভারতে আত্মগোপন করেন। তবে সেখান থেকেও ফোনে সহযোগীদের মাধ্যমে ঢাকার ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

শহীদের গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরের মনসাপাড়া। বাবা শামসুল হক ভূইয়া ১৯৯০ সালে মারা যান। শ্বশুর বাড়ি শ্রীনগরের দামলা গ্রামে।

স্ত্রী সালেহা বেগমের পরিবারে দুটি মেয়ে ও একটি ছেলেরও জন্ম দেন শহীদ। তবে ছেলে ইসমাইল (১৭) প্রায় চার বছর আগে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যায়।

দুই মেয়ে বিথি ও সাথিয়াকে নিয়ে সালেহা বর্তমানে কলকাতায় বসবাস করেন বলে নুরুল ইসলাম জানান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
=====================

বাবরের সোনার কাঠির ছোঁয়ায় উত্থান ডাকাত শহীদের

ছোটখাটো চোরাচালান ব্যবসা থেকে উত্থান ঘটেছিল ডাকাত শহীদের। চোরাচালানের মাধ্যমে পরিচয় হয় বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামানের সঙ্গে। এরপর ডাকাত শহীদকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। ছোটখাটো চোরাচালান ছেড়ে ‘ডাকাত শহীদ’ স্বর্ণ চোরাচালান ব্যবসা শুরু করে। তার চোরাচালানে যারা বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে, তাদেরই ‘ডাকাত শহীদ’ বা ডাকাত শহীদের নির্দেশে খুন করা হয়েছে। খুনের বলি হয়েছেন পুরনো ঢাকার স্বর্ণালঙ্কার ব্যবসায়ী প্রেমকৃষ্ণ, বিএনপির সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার আহাম্মদ হোসেন। বহুল আলোচিত এ দুটি হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ৫ জন গ্রেফতারের পর বেরিয়ে আসতে থাকে ‘ডাকাত শহীদে’র এসব অজানা তথ্য। অবশেষে সেই ডাকাত শহীদকে রাতের আঁধারে দাফন করা হলো।

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, ২০০৮ সালেই ‘ডাকাত শহীদ’ বাহিনীর হাতে ১০ আলোচিত খুনের ঘটনা ঘটে। দীর্ঘদিন ‘ডাকাত শহীদ’ নেপালে বসেই বাংলাদেশে চাঁদাবাজি করেছে। আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণে ডাকাত শহীদ চলচ্চিত্রের এক নায়িকাকেও ব্যবহার করেছে। তার মাধ্যমে বিদেশে কোটি কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে। বহুল আলোচিত স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রেমকৃষ্ণ খুন ও বিএনপির ওয়ার্ড কমিশনার আহাম্মদ হোসেন হত্যার সঙ্গে জড়িত ডাকাত শহীদের ৩ সহযোগীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি ৪ কোটি টাকার লেনদেনকে কেন্দ্র করে রাজধানীর আলুবাজার বড় মসজিদ গলিতে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের ৭০ নম্বর ওয়ার্ডের কমিশনার আলহাজ মোঃ আহাম্মদ হোসেনকে ডাকাত শহীদের নির্দেশে গুলি করে হত্যা করা হয়। একই বছরের ৪ মার্চ ১০ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় স্বর্ণালঙ্কার ব্যবসায়ী প্রেমকৃষ্ণকে গুলি করে হত্যা করে ডাকাত শহীদের লোকজন।

এমন ঘটনায় সারাদেশে হৈ চৈ পড়ে যায়। শুরু হয় সাঁড়াশি অভিযান। গ্রেফতার হয় ডাকাত শহীদের অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী গুড্ডু, আসলাম ও নান্টু। সর্বশেষ ডাকাত শহীদের সেকেন্ড ইন কমান্ড শহীদুল ইসলাম বিদ্যুত ও কাজী কাউসার হোসেনকে গ্রেফতার হয়।

গ্রেফতারকৃতদের তথ্যমতে, কমিশনার আহাম্মদ হোসেন হত্যা মামলায় বিএনপি নেতা কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন ওরফে নাজিম্যা ওরফে নাইজ্যা ডাকাতকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দ পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের রিমান্ডে আনা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসতে থাকে চাঞ্চল্যকর কাহিনী।

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, ডাকাত শহীদ মূলত হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ছোটখাটো চোরাচালান ব্যবসা করত। চোরাচালান করতে করতেই পরিচয় হয় বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের সঙ্গে। মন্ত্রীর দাপটে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ডাকাত শহীদ সমগ্র পুরনো ঢাকা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। এরপর ডাকাত শহীদ শুরু করে স্বর্ণ চোরাচালান। স্বর্ণ চোরাচালানের সূত্রধরে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন ও নিহত আহাম্মদ কমিশনারের সঙ্গে ব্যাপক সখ্য হয়।

মন্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক থাকার সুযোগে ‘ডাকাত শহীদ’ পুরনো ঢাকায় ইচ্ছেমতো চাঁদাবাজি আর নাজিম উদ্দিন কেরানীগঞ্জে জমি দখল করতে থাকে। ডাকাত শহীদ পুরনো ঢাকার আলুবাজার, তাঁতীবাজার, সদরঘাট, বাবু বাজার, ডালপট্টি, বাংলাবাজার এলাকাসহ আশপাশের ১০ এলাকা নিয়ন্ত্রণ করতে থাকে। নিয়ন্ত্রণে থাকা প্রতিটি এলাকা থেকে চাঁদা আদায়ের দায়িত্ব পালন করে ডাকাত শহীদের নিজস্ব ১০ ক্যাডার। ডাকাত শহীদের সর্বনিম্ন চাঁদার হার ছিল ২ লাখ টাকা। সর্বোচ্চ কয়েক কোটি টাকা পর্যন্ত।

অন্যদিকে দখলকৃত জমি বিক্রি করে নাজিম চেয়ারম্যান রাতারাতি কোটিপতি বনে যান। দখলকৃত জমির ওপর একটি হাসপাতালও নির্মাণ করে নাজিম চেয়ারম্যান। নাজিম ও আহম্মদকে গ্রেফতারে অভিযান শুরু হলে দু’জনই ভারতে চলে যান।

ডাকাত শহীদের টার্গেটে ছিল ব্যবসায়ী। ডাকাত শহীদ চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণ করতে তার ক্যাডার কালুর নামানুসারে ‘পাঞ্জি কালু’ নামে একটি গ্রুপ গঠন করে। ভারত থেকে ঢাকায় এসে ডাকাত শহীদ একজন চলচ্চিত্র অভিনেত্রীর মাধ্যমে সব ধরনের যোগাযোগ রক্ষা করতে থাকে। গত ৩ বছর ওই অভিনেত্রী ডাকাত শহীদের হয়ে কাজ করেছে।

ব্যবসার একপর্যায়ে টাকা-পয়সার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এ সময় ডাকাত শহীদের নির্দেশেই ট্যাবলেট বাবু, আব্দুল মান্নান ওরফে মাসুম কমিশনার ও বিএনপি নেতা আহাম্মদ হোসেনকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে ‘পাঞ্জি কালু’ বাহিন

অপরদিকে ডাকাত শহীদের নির্দেশে ২০০৬ সালের ১৪ জুন বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ নেতা ও কমিশনার আলীমকে হত্যা করা হয়। এছাড়া ঢাকার সিএমএম আদালতে চেম্বারে ঢুকে এ্যাডভোকেট জাকির হোসেনকে গুলি করে হত্যাচেষ্টাও চালানো হয়েছিল বহুল আলোচিত ডাকাত শহীদের নির্দেশে।

সর্বশেষ গত ৩ জুলাই র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে বহুল আলোচিত পুরনো ঢাকার ত্রাস ডাকাত শহীদের মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ডাকাত শহীদকে দাফন করা হয় আজিমপুর কবরস্থানে। আর এর মধ্য দিয়েই অবসান ঘটে ঢাকায় ‘ডাকাত শহীদ’ যুগের।

জনকন্ঠ

Leave a Reply