জন্ম দিন – ব.ম শামীম

পথের একরাশ হিমেল হাওয়া যখন
আকাশের সব উদারতা শুশে
ক্লান্তির উন্মেদনায় বিরামহীন।

আকাশের সূর্যালোকটা ঘারো অন্ধকারে
কখনো ছড়ায় একটুকু আলো একরাশ মেঘ ভেদে।
তেমনি এক প্রেমের রুক্ষনতার আলো বয়ে বয়ে,
সময় গিয়াছে বয়ে সীমহীন দূরালোকে।
হিসাবের খাতাগুলো অপূর্নতার নিরিখে হয়ে চলছে আঁকা…
একটা দুইটা করে কালহীন কালন্তে একে চলছে চিহ্ন রেখা।

আজ তোমার জন্মদিনে আষাঢ় শষ্য শেষ প্রহর।
যখোন কোন আগ্নিদগ্ধের চিহ্ন থাকার কথা নয়।
তবে কেন এখনো শ্রাবনের বর্ষনের ক্রন্দন ধারার মতো ।
তোমার প্রেমের তটের রেখা ধারা বর্ষনে সীমাহীন।

এখোনোকি অর্থের উন্মেদনার আংকগুলো
তোমার,আগের মতো হয় কষা?
জানি নিশালয়ের স্বপ্নগুলো তোমার এখোন শুধু ফাকাঁ।
একদিকে রুপের মুহুরী অন্যদিকে কন্ঠের মায়াবেরীর ছলে
অর্ভিবাব হয়না কেউ আর নব নব রুপে।

হায়রে নারী বহু পিপাষূর তরে বাধা তব আখি,
তোমার যৌবনের রুপের মোহে মাপো অর্থের মাপকাঠি।
বিধাতার দেওয়া দানের পরশে তোমরা অথৈই দামী,
একবার শুধু শানাইয়ের শুরে দুলায় যাওযে নামী।
তবু হে নারী বহুরুপী, বহুরুপে অন্যন্যা তোমরা।

Leave a Reply