বাঘড়া বাজারে দুর্ধর্ষ ডাকাতি : স্বর্ণালঙ্কারসহ দেড় কোটি টাকার মালামাল লুট

মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগরের বাঘড়া বাজারে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে ৪টি স্বর্ণের দোকানসহ ৫টি দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। এ সময় ডাকাতরা ২৮৮ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ৫৫০ ভরি রূপা ও নগদ ৫ লাখ ৪৬ হাজার টাকা লুট করে পালিয়ে যায়। গত শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টা থেকে রাত আড়াইটা পর্যন্ত দুই ঘন্টা এ ডাকাতি কার্যক্রম চালায়। এতে স্বর্ণসহ প্রায় ১ কোটি ৪৬ লাখ ৮৮ হাজার টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায় ডাকাতরা।

ভুক্তভোগী ও স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার মধ্যরাতে একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে ২৫-৩০ জনের একদল ডাকাত বাজারের প্রবেশ করে দুই নৈশপ্রহরী আলী আহম্মদ, নুরুল ইসলাম ও দোকানের কর্মচারিদের হাত-পা বেঁধে একযোগে ডাকাতি শুরু করেন। এর আগে ডাকাতরা ৪টি স্বর্ণের দোকান ও একটি কাপড়ের দোকানের তালা ও সাটার ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে। তারা একযোগে বাজারের নরেন কর্মকারের দোকান থেকে ৮৩ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ১৫০ ভরি রুপা ও নগদ ১ লাখ টাকা, মাদব পালের দোকান থেকে ১৫০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ১৫০ ভরি রুপা ও নগদ ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা, বিমল পালের দোকান থেকে ৩০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ১০০ ভরি রুপা ও নগদ ১ লাখ টাকা, মদন দাসের দোকান থেকে ২৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ১৫০ ভরি রুপা ও নগদ ৬৭ হাজার টাকা ও বিপুল মোল্লার কাপড়ের দোকান থেকে নগদ ১ লাখ ১৪ হাজার টাকা লুটে নেয়। স্থানীয়দের ধারণা, ডাকাতদের বাড়ি মাদারীপুর সদর, শিবচর ও শ্রীনগর এলাকায়। তাদের একটি দল শুক্রবার বিকাল থেকেই বাঘড়া বাজারে অবস্থান করছিল। শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান বাংলা ২৪ বিডি নিউজকে জানান, বর্ষা এলে পদ্মা নদীযোগে শিবচরের দৃস্কৃতকারীরা ট্রলারে করে এসে এখানে ডাকাতি করে। এর আগেও ৫-৬ বার ডাকাতি হয়েছে বাঘড়া বাজারে । বাজারে নাইটগার্ডের সংখ্যা বাড়ানোর কথা বললেও বাজার কমিটি বাড়ায়নি। বুড়ো লোকজনদের নৈশপ্রহরীর চাকরি দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীদের একজন শ্রীনগর থানায় মামলা করার প্রস্ততি নিচ্ছেন বলে তিনি জানান।#

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

============================

শ্রীনগরে ১৫৮ ভরি স্বর্ণ ও ৫শ ভরি রূপা লুট

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের বাঘরা বাজারে ৪টি জুয়েলারি ও ১টি কাপড়ের দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ডাকাতদল এ সময় ১৫৮ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ৫শ ভরি রূপা ও নগদ সাড়ে ৫ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

স্থানীয় সূত্র বাংলানিউজকে জানায়, ডাকাতদল অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাঘরা বাজারের নরেণ কর্মকারের দোকান থেকে ৮৩ ভরি স্বর্ণ, ১৫০ ভরি রূপা ও নগদ ১ লাখ টাকা, মাধব পালের দোকান থেকে ২০ ভরি স্বর্ণ, ১৫০ ভরি রূপা ও নগদ ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা, বিনল পালের দোকান থেকে ৩০ ভরি স্বর্ণ, ১শ ভরি রূপা ও নগদ ১ লাখ টাকা, মদন দাসের দোকান থেকে ২৫ ভরি স্বর্ণ, ১৫০ ভরি রূপা ও নগদ ৬৫ হাজার টাকা এবং বিপুল মোল্লার কাপড়ের দোকান থেকে ১ লাখ ১৪ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

স্থানীয় সূত্র আরও জানায়, ৩০ থেকে ৪০ জনের ডাকাতদল শুক্রবার বিকেলে ট্রলারযোগে শ্রীনগর উপজেলার বাঘরা বাজারে যায়। এরপর তারা ক্রেতা সেজে বাজারের বিভিন্ন দোকানে কেনাকাটা করে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে।

পরে রাত সাড়ে ১২টার পর তারা কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে ডকাতি করে। এরমধ্যে একটি গ্রুপ পাহাড়ায় থাকে ও অপর গ্রুপ ৪টি স্বর্ণের দোকান ও ১টি কাপড়ের দোকানে হানা দিয়ে লুট করে।

বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক হরিদাস বাবু বাংলানিউজকে জানান, ৩০ থেকে ৪০ জনের ডাকাতদল ৪ নৈশ প্রহরী, দোকানদার ও বাজারের শ্রমিকদের হাত-পা ও মুখ বেঁধে রেখে ডাকাতি করে। এ সময় তাদের মারধরও করা হয়।

তিনি আরও জানান, লুট হওয়া স্বর্ণালঙ্কার ও রূপার আনুমানিক মূল্য ৭৭ লাখ টাকা।

শ্রীনগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হাসেম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বাংলানিউজকে জানান, ঘটনার বিস্তারিত খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। এরপরই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, ডাকাতদের গ্রেফতার ও লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধারে পুলিশের একাধিক দল মাঠে রয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
====================

বাঘড়া বাজারে ২শ’ ডাকাতের দুর্ধর্ষ ডাকাতি

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া বাজারে পুলিশ পরিচয়ে দিয়ে প্রায় দুইশ’ ডাকাতের একটি দল একযোগে ছয়টি দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি করেছে। শুক্রবার রাতে পদ্মা তীরের এই বাজারের ছয় দোকান থেকে ২শ’ ৩৮ ভরি সোনা, ৫৫০ ভরি রূপা ও পাঁচ লক্ষাধিক টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

ওই বাজারের নরেন্দ্র কর্মকার, মাদক পাল, বিমল পাল ও মদন দাসের সোনার দোকান, বিপুল মোল্লার কাপড়ের দোকান ও আলাউদ্দিনের চায়ের দোকান লুট করে ডাকাতরা।

শ্রীনগর থাকার ওসি মিজানুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, পদ্মার ওপার থেকে বিপুল সংখ্যক ডাকাত এ ডাকাতি চালায়।

“ডাকাতদের ধরতে অভিযান শুরু হয়েছে।”

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তিনটি ট্রলারে করে আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বিশাল ডাকাত দলটি কয়েক ভাগে বিভক্ত হয়ে বাজারের দুই নৈশ প্রহরীকে বেঁধে রেখে গোটা বাজারের নিয়ন্ত্রণ নেয়।

রাত সাড়ে ১২টায় একযোগে ৪টি সোনার দোকানে পুলিশ পরিচয় দিয়ে ঢোকে তারা।

সিন্দুকের চাবি না পেয়ে কর্মচারীদের মারধর করে এবং একটি যন্ত্র দিয়ে সিন্দুক ভেঙে এ ডাকাতি করে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply