মাওয়া খেয়াঘাটে টোল আদায় ফের শুরু আজ

পনের দিন পর আজ সোমবার থেকে আবার মাওয়া ঘাটে জেলা পরিষদ টোল আদায় শুরু করছে। হাইকোর্টের এ-সংক্রান্ত স্থগিতাদেশ আদেশ আপিলাত ডিভিশনের বাতিল আদেশের প্রেক্ষিতে এ টোল আদায় শুরু হচ্ছে। এ তথ্য নিশ্চিত করে মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আকরাম হোসেন বলেন, নিয়োগকৃত ইজারাদারই জনপ্রতি ৩ টাকা হারে ঘাটের টোল আদায় করবে। জেলা পরিষদটির প্রশাসক আলহাজ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, আপিলাত ডিভিশনের এ আদেশে জেলা পরিষদের অধিকার সংরক্ষিত হয়েছে এবং এ আয়ে জেলার উন্নয়ন ও সামাজিক কর্মকা- আরও বেগবান হবে।

এদিকে, এ রায়ে মুন্সীগঞ্জ জেলার অধিবাসীদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়। তারা মনে করছে, ন্যায় অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তবে বিআইডব্লিউটিএ’র মাওয়া লঞ্চঘাটে অর্থবছরের প্রথম দিন টোল আদায় বন্ধ করলেও আবার টোল আদায় শুরু করায় বিরক্ত এ পথে যাতায়াতকারীরা। তাই এখন মাওয়াঘাটে আগের মতোই একই যাত্রীকে দু’বার টোল দিতে হবে সরকারের দুটি প্রতিষ্ঠানকে। অথচ সম্প্রতি নৌ-পরিবহনমন্ত্রী মোঃ শাজাহান খান মাওয়ায় এক অনুষ্ঠানে ঘোষণা করেছিলেন, ‘খেয়াঘাট টোলমুক্ত করা হবে।’ কিন্তু নতুন এ অর্থবছরে তা বাস্তবায়ন না করে খাস সংগ্রহের মাধ্যমে লঞ্চ টার্মিনালে ২ টাকা করে টোল আদায় করছে বিআইডব্লিউটিএ। আর স্পিডবোট ঘাটে বিআইডব্লিউটিএ আদায় করছে জনপ্রতি ৫ টাকা।

মাওয়ায় বিআইডব্লিউটিএ (নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বাংলাদেশ অভ্যন্তীরণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ) ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের জেলা পরিষদের দু’টি খেয়াঘাট একই স্থানে থাকায় দু’দফা টোল দিয়ে লঞ্চে করে নদী পার হতে হচ্ছে। বিআইডব্লিউটিএ’র টোল ২ টাকা এবং জেলা পরিষদের টোল ৩ টাকা ৫ টাকা। পয়লা জুলাই মাওয়া খেয়াঘাট ছিল সম্পূর্ণ টোলমুক্ত। কিন্তু ২ জুলাই থেকে ১৪ জুলাই ২ টাকা হারে বিআইডব্লিউটিএ’র টোল আদায় হয়। তবে আজ সোমবার থেকে যুক্ত হচ্ছে যাত্রী প্রতি আরও ৩ টাকা হারে।

এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক (বন্দর) মোঃ শফিকুল হক জানান, যাত্রীর শ্রেণী বিন্যাসে দুই ধরনের টোল আদায় করা আইনগত বৈধতা তাদের রয়েছে। ট্রলার আর সিবোটের যাত্রী সেবার মান এক নয়। সিবোটযাত্রীদের জন্য এখানে বিশেষ ধরনের একটি পল্টুন ওয়ার্কশপে নির্মাণাধীন রয়েছে। খুব শীঘ্রই এটি মাওয়ায় স্থাপন করা হবে। তা ছাড়া সিবোটের জন্য কোন নীতিমালা না থাকায় এত দিন এগুলো সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের আওতার বাইরে ছিল। কিন্তু সম্প্রতি সিবোটকে সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের নীতিমালায় নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে শতাধিক সিবোটকে সার্ভে সনদ দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব সিবোটকে মাওয়া বা দেশের যে কোথায় খেয়া পারাপারের জন্য সমুদ্র অধিদফতর থেকে সার্ভে সনদ নিতে হবে।

এদিকে, বিআইডব্লিউটিএ’র দায়ের করা পিটিশনের বিরুদ্ধে গত ১২ জুলাই জেলা পরিষদ হাইকোর্টের আপিলাত ডিভিশনের চেম্বার জজ আদালতে একটি রিট পিটিশন দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালত বিআইডব্লিউটিএ’র দায়ের করা হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ বাতিল করে জেলা পরিষদকে খেয়াঘাটের কার্যক্রম পরিচালনার আদেশ দেয়। এ আদেশের বলে রায়ের সার্টিফাইট কপি নিয়ে জেলা পরিষদ তার ইজারাদারকে টোল আদায়ের জন্য জেলা পরিষদের ঘাট বুঝিয়ে দেবেন।

ফলে যাত্রীরা আজ সোমবার থেকে বিআইডব্লিউটিএ’র ২ টাকা টোলের পাশাপাশি আরও ৩ টাকা টোল দিয়ে পদ্মা পার হবেন।

অন্যদিকে ঘাটের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এখানে যে কোন সময় সংঘর্ষের আশঙ্কা করা হচ্ছে। সরকারী দলের ২টি অঙ্গসংগঠন ঘাট তাদের নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে মরপণ চেষ্টা চালাচ্ছে বলে ঘাটসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানা যায়। বিআইডব্লিউটিএ’র ইজারাদার স্থানীয় মেদিনী ম-ল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ আশরাফ হোসেন। জেলা পরিষদের ইজারাদার একই ইউনিয়নের যুবলীগ সভাপতি মোঃ হামিদুল ইসলাম। উভয়পক্ষই মাওয়া ঘাট তাদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইছে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply