নববধূ নিরাপত্তা হেফাজতে প্রেমিক পলাতক

মুন্সীগঞ্জে অপহরণ নাটকের অবসান
অপহরণ নাটকের অবসান হলেও মুন্সীগঞ্জ সদরে নববধূ সোহাগী আক্তার ঊর্মি ও প্রেমিক রাজীব শেখ এখন দুই ভুবনের বাসিন্দা। নববধূ সোহাগী আক্তার ঊর্মি রয়েছেন জেলহাজতে আর অপহরণ মামলায় আসামি প্রেমিক রাজীব পুলিশের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মহাকালী ইউনিয়নের দক্ষিণ কেওয়ার সাতানিখিল গ্রামের দুলাল শিকদারের মেয়ে সোহাগী আক্তার ঊর্মিকে গতকাল শনিবার দুপুরে জেলহাজতের নিরাপত্তা সেলে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া জেলহাজতে থাকা প্রেমিকের তিন বন্ধুর বিরুদ্ধে পুলিশ ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালতে আজ (রোববার) সকালে রিমান্ড শুনানি হবে। শনিবার দুপুরে জেল গেটে নববধূ ঊর্মি জানান, জেলে পাঠিয়েও তাদের কেউ আলাদা করতে পারবে না। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ৫ মাস আগে রাজীবের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছে। রাজীবই আমার প্রকৃত স্বামী।

বৃহস্পতিবার রাতে কয়েক বন্ধুর সহযোগিতায় নববধূ তথা প্রেমিকা সোহাগী আক্তার ঊর্মিকে তুলে নিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন একই ইউনিয়নের উত্তর কেওয়ার গ্রামের বারেক শেখের ছেলে রাজীব শেখ। এ সময় তার তিন বন্ধু সাদ্দাম শেখ, সাবি্বর হোসেন ও সবুজকে আটক করে গ্রামবাসী গণপিটুনি দেয়। এ ঘটনায় শুক্রবার দুপুরে ঊর্মির মা রাজেদা খাতুন বাদী হয়ে প্রেমিক রাজীব শেখসহ তার ছয় বন্ধুকে আসামি করে সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন।

এদিকে শুক্রবার রাতে ঊর্মি সদর থানায় নিজেই হাজির হয়ে অপহরণ নাটকের অবসান ঘটান। এ সময় তিনি স্বেচ্ছায় স্বামী রাজীবের সঙ্গে পালিয়েছেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। উল্লেখ্য, দুই মাস আগে সদর উপজেলার বজ্রযোগিনী ইউনিয়নের শুয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ভূমি কর্মকর্তা মনির মোল্লার সঙ্গে দক্ষিণ কেওয়ার সাতানিখিল গ্রামের ঊর্মির বিয়ে হয়। আনুষ্ঠানিকতা বাকি থাকায় ঊর্মি তার বাবার বাড়িতে থাকত।

সমকাল

Leave a Reply