লৌহজং উপজেলায় ‘মাদক ব্যবসা’: দু’দলের সংঘর্ষে নিহত ১

‘মাদক ব্যবসা’ নিয়ে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় দু’দলের সংঘর্ষে একজন নিহত ও অন্তত ২১ জন আহত হয়েছেন। রোববার বিকালে গোয়ালীমান্দ্রা বেদে পল্লীতে এ সংঘর্ষে নিহত শহীদ সরদার ওরফে শহীদ মেম্বার (৫০) হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য। তিনি নিজেও বেদে সম্প্রদায়ের লোক।

সংঘর্ষ চলাকালে অন্তত ১৮টি ঘরে আগুন দেওয়া হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে।

আহতদের স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

শহীদ সরদারের মেয়ে নাসিমা বেগম বলেন, মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির একটু পরই রাত ৮টার দিকে তার বাবার মৃত্যু হয়।

তিনি অভিযোগ করেন, তার বাবাকে প্রতিপক্ষের লোকজন কুপিয়ে আহত করে। এরপর পুলিশ তাকে হাসতালে নিতে বিলম্ব করে। এতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে।

প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের পাকা ঘরটিও জ্বালিয়ে দিয়েছে বলে তিনি জানান।

সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম বলেন, হাসপাতালে আনতে বিলম্ব করা হয়নি, বরং দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার জন্য সহযোগিতা করা হয়েছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১৮ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

পুলিশ কর্মকর্তা আরো বলেন, বেদে পল্লীর স্থানীয় ইউপি সদস্য শহীদ দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছিলেন। তাছাড়া এলাকার বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে তাকে চাঁদাও দিতে হতো।

এ কারণে দীর্ঘদিন ধরে বেদেপল্লীতে চাপা ক্ষোভ ছিল।

তিনি বলেন, রোববার দুপুরে মো. নুরুল ইসলাম নামে বেদে পল্লীর এক লোক মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করলে শহীদ মেম্বার লোকজন নিয়ে তার ওপর হামলা চালায়।

এ সময় নুরুলের চিৎকারে বেদে পল্লীর লোকজন এগিয়ে এলে সংঘর্ষ বেধে যায়।

সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম আরো বলেন, সংঘর্ষ চলাকালে অন্তত ১৮টি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট হয়। জনতা শহীদ মেম্বারের পাকা ভবনে আগুন ধরিয়ে দেয়।

আহতদের মধ্যে আমানুল্লাহ, মো. নুরুল ইসলাম ও ইসমাইল হোসেনকে ঢাকার মিটফোর্ড মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া সাইফুল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, মো. উতান, মর্জিনা বেগম, হাবিবুর রহমান, রঞ্চিত, আল আমিন, কুলসুম ও রানাকে লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

লৌহজং থানার ওসি (তদন্ত) এ কে এম মাসুদ খান বলেন, শহীদ মেম্বার এলাকায় একজন মাদক সম্রাট হিসেবে পরিচিত। তার মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করায় শহীদ ও তার লোকজন নুরুল ইসলামের উপর হামলায় চালালে বেদেপল্লী রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

এ ব্যাাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

=====================

লৌহজংয়ে বেঁদে পল্লীতে হামলা-সংঘর্ষে ইউপি সদস্য নিহত

অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন
মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার গোয়ালীমান্দ্রা এলাকায় বেঁদে পল্লীতে হামলা ও দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত শহীদ মেম্বার (৫৫) রোববার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। রাত সাড়ে ৭ টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান বলে লৌহজং থানার ওসি (তদন্ত) এ কে এম মাসুদ খান জানিয়েছেন। এদিকে শহীদ মেম্বার নিহতের ঘটনায় গোয়ালীমান্দ্রা এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জানা গেছে, রোববার দুপুর ২ টার দিকে শহীদ মেম্বারের নেতৃত্বে একদল লোক গোয়ালীমান্দ্রা এলাকায় বেঁদে পল্লীতে হামলা চালালে বেঁদে বহরের লোকজন ও শহীদ মেম্বারের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় শহীদ মেম্বার, হাবিবুর, সম্রাট, সাইফুল, রিপন, কহিনুর, তুহিনকে ঢাকা মেডিকেল ও মিডফোর্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহতদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে বেঁদেরা শহীদ মেম্বারের বসত ঘরে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। এ সময় শহীদ মেম্বারের লোকজন বেঁদে বহরের দু’টি বসত ঘরে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। পুলিশ জানায়, দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধলে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে ১৫ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply