প্যারিস বাহিনীর হাতে জিম্মি দুই থানার অর্ধ লক্ষ মানুষ

সন্ত্রাসীরা বেপরোয়া
শ্রীনগরে সন্ত্রাসী প্যারিস বাহিনীর বেপরোয়া সদস্যরা চাঁদাবাজি,হত্যা, ধর্ষন ও নির্যাতনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে চার ইউনিয়নের প্রায় পঞ্চাশ হাজার গ্রামবাসী। আর এই বাহিনীর সদস্যদের দ্বারা গুপ্ত হত্যা ও ধর্ষনের শিকার প্রবাসীর স্ত্রী সহস্কুল কলেজের ডজন ছাত্রী।

চাঞ্চল্যকর এমন ঘটনায় ঐ এলাকার নারী-পুরুষের মাঝে তীব্র আতংক বিরাজ করছে। গ্রবল প্রতাপশালী এই বাহিনীর সদস্যদের ভয়ে এলাকার মানুষ মুখ খুলতেও সাহস হাড়িয়ে ফেলেছে। অভিযোগ রয়েছে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এক নেতা শেল্টার ও বিরোধী দলের অপর এক নেতার মদদেই এই বাহিনীর সদস্যরা একের পর এক অপকর্ম চালিয়ে জনমনে অস্থিরতার সৃষ্টি করেছে।

স্থানীয় ভুক্তোভোগীরা জানিয়েছেন, হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামী সন্ত্রাসী জিয়াউল হক ওরফে প্যারিস তার বিশাল সন্ত্র‌াসী বাহিনীর সদস্যদের দ্বারা জেলার শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলাখ মানুষকে জীম্মিকরে দীর্ঘদিন যাবত বেপরোয়া চাঁদাবাজি চালিয়ে আসছেন। বিভিন্ন সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হলেও আইনের ফাক গলে বেড়িয়ে এসে পুনরায় চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সমাজ বিরোধী কাজে জড়িয়ে পড়ছেন।

নাম প্রকাশ না করার স্বর্ত্বে শ্রীনগর থানার এক পুলিশ কর্মকর্তা জানায়, সরকারী হোন্ডা চুড়ি, কিশোর রুবেল হত্যা, চাঁদা না পেয়ে অন্যের জমিদখলের উদ্দেশ্যে হামলা লুটপাট, পুলিশের অস্ত্র লুটসহ বিভিন্ন মামলার পলাতক আসামী প্যারিস বাহিনীর প্রধান জিয়াউল হক প্যারিস ও এই বাহিনীর সেকেন্ড-ইন কমান্ড কালো মানিক। কালো মানিক আন্তজেলা ডাকাত দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলেও তিনি জানান।

এলাকার সিমপাড়া, সুফিগঞ্জ, পারাগাও, তন্তর, সন্ধ্যারদিয়া, বালিটা, আটপাড়া, বেলতলী, কোলা, রক্ষিৎপাড়া, ছাতিয়ানতলী, তিনগাও পর্যন্ত এই বাহিনীর রয়েছে বিশাল নেটওয়ার্ক।

সম্প্রতি সময়ে এলাকার কৃষি জমি বিক্রয় করার জন্য কোন জমির মালিক উদ্বোগ নিলেই এই বাহিনীর সদস্যরা বিশাল অঙ্কের টাকা চাঁদা দাবি করে টাকার জন্য ভয়ভীতি প্রদশর্ন করে। আর জমি বিক্রি শেষে তাদের চাঁদার হিস্যা তুলে দিতে হয়। দাবিকৃত টাকা না দেয়ায় প্রবাস ফেরত এক যুবককে প্রকাশ্যে মারপিট করে এলাকায় ভিতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে।

এই বাহিনীর প্রধান প্যারিস ও তার সন্ত্রাসী দল বিভিন্ন সময় স্থানীয় সমাজ সেবক আবুল বাসার, যুবনেতা মামুন, সমাজ সেবক আমানুল, পাপ্পুকে প্রকাশ্যে মারপিট করে এলাকায় আতংক সৃষ্টি করে। এ ছাড়া রাজধানীর ইসলামপুরের বস্ত্রব্যাবসায়ী নুরুজ্জামান সিকদার চাঁদা না দেয়ায় এই বাহিনীর সদস্যদের হাতে নিগৃহীত হয়েও সঠিক বিচার পায়নি উল্টো প্রহসনের বিচারের মুখোমুখি হন বলে জানাগেছে।

এছাড়া গতবছর স্থানীয় সিমপাড়া মেলায় আসা নবম শ্রেনীর তরুনীকে প্রকাশ্যে অপহরন করে কালো মানিক তার বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে স্কুলের পরিত্যাক্ত রুমে ধষর্নকরে। বিষয়টি প্রচার হয়েগেলেও ধর্ষিতার পরিবার জীবন রক্ষার ভয়ে মামলা পর্যন্ত করেনি। এর দুদিন পর বেলতলি গ্রামের এক প্রবাসীর স্ত্রীকে দলবদ্ধ ভাবে রাতে ধর্ষন করে। ধর্ষনের শিকার ঐ মহিলাকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকার একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হলেও ঐ পরিবার সন্মান ও জীবন রক্ষায় বিষয়টি ঘোপন রাখেন।

অপরদিকে গত ১০ জুলাই এই বাহিনীর উঠতি এক সন্ত্রাসী দ্বারা বেলতলী জিজে উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর এক ছাত্রী উভটিজিংয়ের শিকার হয় জনতা ঐ সন্ত্রাসীকে পাকরাও করে শ্রীনগর থানার পুলিশের কাছে সোর্পদ করলেও পুলিশ ইভটেজারকে ছেড়ে দেয়।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, কোন প্রবাসী পরিবারের সদস্যরা দেশে এলেই প্যারিস বাহিনীকে চাঁদার অর্থ না দেয়া পর্যন্ত এলাকায় প্রবেশ করতে পারেন না। আর চাঁদার অর্থ না দিয়ে এলাকায় প্রবেশ করলেই রাতে এই বাহিনী স্বসস্ত্র অবস্থায় বাড়িতে গিয়ে হাজির হয় একং অস্ত্রের মুখে বাড়ির নগদ অর্থও স্বর্নালন্কার লুটকরে নিয়ে যায়। এমন ঘটনা ঘটলেও ভুক্তভোগিরা পরদিন প্রচার করেন ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে এবং ডাকাত দলের সদস্যরা অপরিচিত।

এব্যাপারে ঐসব পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন সন্ত্রাসী প্যারিস বাহিনর বিরুদ্ধে মামলা করলে বাড়ীর মানুষকে পরদিন রাতে এসেই তারা হত্যাকরবে এমন হুমকি দিয়েছে। অপরদিকে আলু মৌসুমকে সামনে রেখে আলু চাষিদের কাছ থেকেও বিশাল অঙ্কের দাবি কৃত টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এই বাহিনীর সদস্যরা।

ভুক্তভোগি এলাকার লোকজন জানিয়েছে ঢাকার কেরানীগঞ্জে র‌্যাবের ক্রোসফায়ারে নিহত সন্ত্রাসী মিয়া ভাই শাহিনের অস্ত্র ভানার এখন নিয়ন্ত্রন করছে প্যারিস বাহিনী। আর এই বাহিনীর সদস্যরাই পাঁচ বছর আগে সন্ত্রাসী মিয়া ভাই শাহিন কে সিংপাড়ার বেলতলীতে নিয়ে এসে একটি বাড়ি এুয় করে দেয়। মিয়া ভাই শাহিন র‌্যাবের ত্রুোস ফায়ারে নিহত হবার পরে তার পরিবারের ও অস্ত্র ভান্ডারের দায়িত্ব নেয় প্যারিস।

সেই বাড়িটিকে করা হয় প্যারিস বাহিনীর রংমহল। প্রতিদিন রাতে এই নির্জন বাড়িতে ঢাকার শীর্ষ সন্ত্রাসীদের জলে মদ ও জুয়ার জমজমাট আসর। সূত্রটি আরো জানায়, এলাকায় গুপ্ত হত্যাকান্ডের সাথেও প্যারিস বাহিনীর সদস্যরা জড়িত। প্রায় বছর পাচেক আগে বেলতলীর সুলতান মিয়ার বাড়ীর পার্শে ও সন্ধ্যারদিয়া যে দুটি অঙ্গাত ব্যাক্তির গলিত লাশ পাওয়া যায় এদুটি হত্যাকান্ডই এই বাহিনীর সদস্যরা ঘটিয়েছে।

বর্তমান সময়ে প্যারিস তার বাহিনীর সদস্যদের মাধ্যমে দিনের বেলা ঢাকার কেরানীগঞ্জের আগানগড় টাওয়ার মাকেটের আশপাশে ঝুটের ব্যাবসা নিয়ন্ত্রন করছে অর এখানে দিনে আবস্থান করলেও রাতে চলে আসে সিংপাড়া এলাকায়। সন্ধ্যার পরে প্রকাশ্যে এলাকায় অস্ত্রের মহড়াদিয়ে সাধারন মানুষকে আতঙ্গিত করাই এই বাহিনীর কাজ।

এব্যাপারে স্থানীয় তন্তর, আটপাড়া ও কোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সাথে কথাবলতে চাইলে তারা ভিতকন্ঠে বলেন প্যারিস অনেক ক্ষমতাবান বার বার ডিবি পুলিশও র‌্যাবের হাতে ধরা পরলেও বেড়িয়ে আসে।

জানাগেছে, সন্ত্রাসী প্যারিসের বাবার বাড়ী ছিলো ফরিদপুর একটি হত্যামামলার কারনে তিনি এলাকায় এসে আশ্রয় নেয় এবং আবাস গড়ে তোলে। বর্তমানে এই বাহিনীর নিয়ন্ত্রনে এলাকার মাদক ব্যাবসাও জমজমাট আর যা থেকে নিয়মিত বখরা নিচ্ছে পুলিশের কর্তিপয় অসৎ সদস্য। এলাকার লোকজন জানিয়েছে এই চাঁদাবাজির অর্থে সন্ত্রাসী প্যারিস ঢাকায় একাধিক বাড়ি ও গাড়ীর মালিক বনে গেছেন। অথচ তার বাবা ছিল গরুর দালাল।

আর প্যারিস প্রথম জীবনে ফেনসিডিল ও গাজার বিক্রেতা। বর্তমানে ক্ষমতাশীন ও বিরোধী দলের একাধিক নেতার সাথে প্যারিসের রয়েছে ঘনিষ্ট সর্ম্পক। স্থানীয় ভুক্তভোগি বাসিন্দারা এই বাহিনী নির্মূলে পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

বাংলাপোষ্ট২৪

Leave a Reply