ঈদে ঘরমুখো মানুষের বিড়ম্বনার আশঙ্কা

বন্ধ হয়ে যেতে পারে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট
চ্যানেলের মুখে ডুবো চরের জেগে উঠায় মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট ফেরি চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। উজান থেকে স্রোতের সাথে পলি মাটি নেমে এসে চ্যানেলেটি ক্রমশ চলাচল অনোপযোগী করে তুলছে। তাই ফেরি চলাচল করছে ঝুকি নিয়ে। ভরা বর্ষায় এই সমস্যা সমাধানের ‘জরুরী পদক্ষেপর জন্য বিআইডব্লিউটিসি বার্তা পাঠিয়েছে বিআইডব্লিউটিএর উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে বরাবর। দ্রুত ডেজিং শুরু করা না হলে গুরুত্বপূর্ণ এই নৌরুট বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

বিআইডব্লিউটিসি মাওয়া অফিসের ম্যানেজার মেরিন আব্দুল সোবহান জানান, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের সাথে পলি মাটি জমে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের কবুতরখোলা চ্যানেলের মুখে পলি জমে একটি ডুবো চরের সৃষ্টি হয়েছে। ডুবো চরটি আস্তে আস্তে বড় হচ্ছে। এটিকে নিবির পর্যবেক্ষন করছে বিআইডব্লিউটিসি। ডুবো চরে ফেরি আটকে যাওয়া থেকে রক্ষা পেতে শুক্রবার সেখানে বয়া স্থাপন করা হয়েছে। যে হারে পলি জমছে তাতে ঈদের পূর্বে নৌরুটের কবুতর খোলা চ্যানেলের এ মুখটি বন্ধ হবার আশঙ্কা রয়েছে। বিষয়টি বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) উর্ধতন কর্মকর্তাদের জরুরী বার্তায় অবগত করা হয়েছে। হাইড্রোগ্রাফি জরিপের মাধ্যমে চরটির গতি-প্রকৃতি নির্ণয় করে প্রয়োজনী ব্যবস্থ্যা না নিলে যে কোন সময় মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের একমাত্র এই চ্যানেল বন্ধ হয়ে গিয়ে যাত্রীদের উপ চরম দুর্ভোগ নেমে আসতে পারে।

এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএর সহকারী পরিচালক (নৌ.স.উপ) এসএম আগজর আলী জানান, নৌরুটের ওই চ্যানেলের মুখে মাঠ পর্যায়ের হাইড্রগ্রাফি জড়িপ এতোমধ্যে শেষ হয়েছে। আগামী রোববার/সোমবার নাগাদ চার্ট পাওয়া গেলে বুঝা যাবে ডুবো চরটি কি পরিমাণ জায়গা জুড়ে বিস্তৃত হয়েছে। সেখানে কি পরিমাণ পানি রয়েছে । বিস্তারিত জানার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ফেরি গুলো যাতে ডুবো চরে আটকে না যায় তার জন্য আপাততঃ নদী পথ চিহ্নিত করতে ড্রাম বয়া স্থাপন করা হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply