হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুতে জাপান প্রবাসীদের শ্রদ্ধাঞ্জলি

রাহমান মনি: আধুনিক বাংলা সাহিত্য, বাংলাদেশের নাটক ও চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি স্রষ্টা- ‘হুমায়ূন আহমেদ’র মহাপ্রয়াণে জাপান প্রবাসীরা এক শোকসভা আয়োজনের মাধ্যমে তাদের অন্তর নিংড়ানো শ্রদ্ধা জানান। ২৮শে জুলাই ২০১২ টোকিওর আকাবানে বুনকা সেন্টারের বিভিও হলে আয়োজিত শোকসভায় হুমায়ূন ভক্ত ছাড়াও সর্বস্তরের প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন প্রবাসী মিডিয়াকর্মী, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক এবং আঞ্চলিক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দগণ। কর্মদিবস সত্ত্বেও প্রবাসীরা সমবেত হন তাদের প্রিয় লেখকের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য।

সভার শুরুতে তার বিদেহী আত্মার শান্তি এবং সম্মান জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। শোক সভায় হুমায়ূন আহমেদ-এর লেখা গান গেয়ে শোনান প্রবাসীদের প্রিয় শিল্পী ফজলুল হক রতন। প্রবাসীরা তাদের বক্তব্যে হুমায়ূন আহমেদকে ক্ষণজন্মা পুরুষ আখ্যায়িত করে বলেন, অনেক সমালোচকরা হুমায়ূন আহমেদ-এর লেখা নিয়ে অনেক কথা বলেছেন। তার লেখায় গভীরতা নেই এই ধরনের সমালোচনা করেছেন। বলেছেন, তার লেখা বাজারের লেখা, বাণিজ্যিক লেখা। এমন কি হুমায়ূনের লেখা উপন্যাসকে অপন্যাস বলতেও দ্বিধাবোধ করেননি অনেকেই। আবার তারাই একদিন ঈদ সংখ্যা লেখা দেয়ার জন্য তার পেছনে ঘুরেছেন দিনের পরদিন। কারণ হুমায়ূনের লেখা ছাড়া ঈদ সংখ্যা বেমানান। হুমায়ূন আহমেদ কয়েক প্রজন্মকে বইমুখী করেছেন। দুই বাংলায়-ই তিনি সমান নন্দিত। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশের প্রকাশনা শিল্প হোঁচট খাবে। কারণ হুমায়ূন আহমেদ রুগ্‌ণ প্রকাশনা শিল্পকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন।

শোকসভায় উপস্থিত প্রবাসীদের বিভিন্ন মন্তব্য এবং স্বাক্ষর সংবলিত একটি শোকবই সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধি রাহমান মনির হাতে তুলে দেয়া হয় হুমায়ূন আহমেদ-এর পরিবারের কাছে পৌঁছানোয় জন্য। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন কামরুল আহসান জুয়েল। পবিত্র রমজানের তাৎপর্যে সান্ধ্যকালীন এই শোকসভায় ইফতারির ব্যবস্থা রাখা হয়।

মানবজমিন

Leave a Reply