অভিবাসন আইনের পরিবর্তন

রাহমান মনি
জাপানে বসবাসকারী বিদেশি নাগরিকদের কঠোর নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য আমূল পরিবর্তন করা হয়েছে জাপানের অভিবাসন আইন। মূলত জাপান সরকার এখানে বসবাসরত বিদেশি নাগরিকদের একটি স্বচ্ছ নিয়মের মধ্যে আনতে চায় যাতে করে অভিবাসনের ক্ষেত্রে সব অনিয়ম দূর করা যায়। এতে করে বিদেশি নাগরিকদের দ্বারা গঠিত অপরাধ প্রবণতা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে। বিষয়টি নিয়ে জাপানে বসবাসরত বিদেশিদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সৎভাবে যারা বসবাস করছেন তারা স্বাগত জানিয়েছেন। কেউ কেউ আবার সম্মুখ বিপদের আশঙ্কা করছেন, কেউ বা আবার জাপান সরকার আইন করলে করার কিছুই নেই, এটাকে মেনেই থাকতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন।

বিশ্বব্যাপী যখন চলছে ইনফরমেশন হাইওয়ে ও গ্লোবালাইজেশনের সেøাগান, তখন জাপান ঠিক তার উল্টোপথেই চলতে শুরু করেছে। অবশ্য এটাই প্রথম নয়। বড় বড় আসর আয়োজনকারী দেশগুলো সাধারণত আয়োজন উপলক্ষে বিশেষ ছাড় হিসেবে সেই দেশে বসবাসকারী বিদেশি অবৈধদের বৈধতা দিয়ে থাকে। কিন্তু ২০০২ সালে পার্শ্ববর্তী দেশ দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যৌথভাবে বিশ্বকাপ ফুটবল আসরের মতো বড় ধরনের আয়োজন করলেও কট্টরপন্থি জাপান বিদেশিদের কোনো ছাড় দেয়নি। কোরিয়া কিন্তু ঠিকই দিয়েছিল।

২০১১ বর্ষ শেষে হিসাব অনুযায়ী ১২,৫৩,৪০,৮৮৫ জনসংখ্যার দেশ জাপানে বিদেশিদের সংখ্যা মাত্র ২০,৭৮,৫০৮ জন। অর্থাৎ মোট জনসংখ্যার ২.৬% মাত্র। ৬,৭৪,৮৭৯ জন নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে চীন। তার পরেই রয়েছে কোরিয়ার অবস্থান। কোরিয়ান আছে ৫,৪৫,৪০১ জন। ২,১০,০৩২ জন নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে আছে ব্রাজিল। বাংলাদেশের অবস্থান ১১তম। সরকারি নথিতে বাংলাদেশিদের সংখ্যা ৯,৪১৩ জন মাত্র। যদিও প্রবাসীদের মতে এই সংখ্যা ১২/১৩ হাজার হবে। বাংলাদেশ দূতাবাসে এই সংক্রান্ত কোনো তথ্য নেই। মাত্র একদশক আগেও এই সংখ্যা ছিল প্রায় ৩ গুণ। শীর্ষে ছিল কোরিয়ানরা। মোট সংখ্যা ছিল ১৬,৮৬,৪৪৪ জন।

বিদেশিদের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিদেশিদের দ্বারা ঘটিত অপরাধের সংখ্যা যেমন বৃদ্ধি পেতে থাকে তেমনি ধরনও পাল্টে যায়। জাপানে বাংলাদেশিদের সুনাম সর্বজনবিদিত। ২/১টি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া বাংলাদেশিরা বিশ্বস্ততার সঙ্গে কঠোর পরিশ্রমী জাতি হিসেবে পরিচিত। তারপরও বিদেশিদের কঠোর নিয়ন্ত্রণ করার জন্য মিনিস্ট্রি অব জাস্টিজ ৯ জুলাই ২০১২ থেকে নতুন একটি নিয়ম চালু করেছে। আর এই নিয়মের মাধ্যমে ইমিগ্রেশন বিভাগ সরাসরি বিদেশিদের কন্ট্রোল করবে। এলাইন রেজিস্ট্রেশন কার্ডের পরিবর্তে রেসিডেন্ট কার্ড নামক বিশেষ ইমিগ্রেশন কার্ড ইস্যু করা শুরু হয়েছে। এই পদ্ধতি শুরু হবার পর থেকে অনেকেই সঠিক ধারণা না পাওয়ায় অন্ধকারের মধ্যে আছেন। কেউবা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। তবে এই আইন চালু হবার পর নতুন করে কেউ দুই নাম্বারি করার সুযোগ তো পাবেনই না বরং যাদের নামে বিভিন্ন ক্লেইম আছে তাদেরকেও জাপান থেকে নির্দিষ্ট মেয়াদে বহিষ্কার করা হবে। ৯ জুলাই থেকে ১৯ জুলাই লেখা পর্যন্ত ৪ জন বাংলাদেশিকে (পারমানেন্ট ভিসাধারী) বহিষ্কার করার খবর জানা গেছে। তবে যারা সৎভাবে বসবাস করছেন, তাদের আতঙ্কে থাকার কোনো কারণ নেই। বরং তাদের জন্য আরো সহজ করা হয়েছে। সাপ্তাহিক পাঠকদের জন্য জাপান ইমিগ্রেশন থেকে প্রচারিত মূল কপি যা টোকিও বিদেশি ভাষা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলাসহ আরো ২৫টি ভাষায় অনুবাদকৃত এবং জাপান প্রবাসীদের প্রিয় ওয়েব পোর্টাল www.deshbideshweb.com-এ প্রকাশিত ঘোষণাটি হুবহু দেয়া হলো। আশা করি জাপান প্রবাসীরাসহ জাপানে আগমনে ইচ্ছুকদের কৌতূহল কিছুটা হলেও প্রশমিত হবে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply