লৌহজংয়ে প্রতিবন্ধী ধর্ষিত ॥ আ’লীগ নেতার হস্তক্ষেপে থানায় বসে রফা

লৌহজং উপজেলার সিংহেরহাটি গ্রামে বাকপ্রতিবন্ধী (বোবা) এক যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দুই রাত আটকে রেখে ধর্ষণের পর পুলিশ বোবা মেয়েটিকে উদ্ধার করলেও থানায় কোন মামলা হয়নি। দিনভর দেন দরবার শেষে রাতে থানা থেকে বোবা মেয়েটিকে ছাড়িয়ে নিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মনির মাস্টার। ওই নেতার তোপের মুখে পুলিশ মামলা না নিয়ে মেয়েটির জামা-কাপড় রাসায়নিক পরীক্ষা ও কোন প্রকার ডাক্তারী পরীক্ষা ছাড়াই মেয়েটিকে ছেড়ে দেয়ায় আলামত নষ্টে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে আটক রাখা বাড়ির মালিককে আটক করে ১৫৪ ধারায় আদালতে পাটানো হয়েছে। কিন্তু ধর্ষককে রাখা হয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য ধর্ষিত কিশোরীকে মঙ্গলবার তার গ্রামের বাড়ি ভোলায় পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, কনকসার ইউনিয়নের সিংহের হাটি গ্রামে কিছুদিন ধরে আটকে রেখে বাকপ্রতিবন্ধী (বোবা) এক কিশোরীকে একই গ্রামের আফজাল বেপারী ছেলে শিপন বেপারী (২৮) ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ- বাকপ্রতিবন্ধী এই কিশোরীকে সিংহের হাটি গ্রামের রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে একই গ্রামের বাসচালক করিমের ঘরে দুই দিন আটকে রেখে শিপন বেপারী ধর্ষণ করে। পরে আহত অবস্থায় কিশোরীটিকে রাস্তার পাশে ফেলে রাখে ধর্ষক। সোমবার ভোরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আহত ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে লৌহজং থানা পুলিশ।

এ নিয়ে সোমবার দিনভর দফায় দফায় পুলিশের সঙ্গে বৈঠক চলে। রাতে লৌহজং থানায় ওসির কক্ষে কনকসার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মনির হোসন মাস্টারের নেতৃত্বে অওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ ঘটনায় কোন মামলা দায়ের না করে উল্টো হুমকি-ধমকি দিয়ে ধর্ষিতাকে তার পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে স্থানীয় এক ব্যক্তির জিম্মায় দেয়া হয়।

এ ব্যাপারে বাস্মনগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও কনকসার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মনির হোসেন মাস্টার টাকা নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মেয়েটি অসহায়, তার আসল বাড়ি ভোলা জেলায়। এ জন্য পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে নিকটাত্মীয়ার জিম্মায় তাকে মায়ের কাছে ভোলা পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। মঙ্গলবার তার ভোলায় পৌঁছতে যেন কোন সমস্যা না হয় সেজন্য তাকে কিছু যাতায়াত খরচ দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। লৌহজং থানার ওসি (তদন্ত) একে এম মাসুদ খান বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার ভোরে বোবা মেয়েটিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। বাদীর অভাবে থানায় মামলা হয়নি। আইনমতে ধর্ষণের মামলায় পুলিশ বাদী হতে পারে না। তাই পুলিশও কোন মামলা করেনি।

জনকন্ঠ

Leave a Reply