মুন্সীগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট কর্মকর্তার অনিয়ম-দুর্নীতি

মুন্সীগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালকের অনিয়ম-দুর্নীতি এখন তুঙ্গে। এখানে সব ধরনের কাজ করতে হয় টাকার বিনিময়ে। পাসপোর্ট করতে হয় দালাল ধরে। দালাল ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে পাসপোর্ট গ্রহীতারা। প্রতিদিন দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও পাসপোর্টের আবেদন জমা কিংবা ফিঙ্গার প্রিন্ট করতে পারা যায় না। শুধু আবেদন জমা দিতেই সপ্তাহ লেগে যায় গ্রহীতাদের। সকালে লাইনে দাঁড়ালে বিকাল গড়িয়ে গেলেও ভেতরেই যেতে পারেন না অনেকে। রাজধানীর কাছের এ জেলা শহরের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে- এমনই চিত্র চোখে পড়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে। মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার যশলং ইউনিয়নের বাঘিয়া গ্রামের জলফু সরদারের ছেলে রাসেল সরদার শিক্ষার্থী ভিসায় মালয়েশিয়ায় উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য বৃহস্পতিবার সকালে মুন্সীগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাইনে দাঁড়ান। দুপুর অব্দি সেই লাইনে দাঁড়িয়েই তিনি জানান, কয়েক দিন আগেও এসেছিলেন, কিন্তু কাজ করতে না পেরে ফিরে যান। জানতে পারেন, এখানে দালাল ছাড়া কোন কাজ হয় না। আবেদন পত্র জমা দিলে ফের বাইরে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হয়। দালালের হাত ধরে আবেদন জমা, ফিঙ্গার প্রিন্ট এমনকি আস্ত পাসপোর্টই হাতে পৌঁছে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে এখানে। অগত্যা এক দালালের দ্বারস্থ হলে সেই দালাল তার কাছে ১০ হাজার টাকার চাহিদার কথা জানিয়েছেন। এতে নাকি কোন দুশ্চিন্তা করতে হবে না। বাড়িতে গিয়েই আস্তঃপাসপোর্ট পৌঁছে দেয়ার অঙ্গীকার করেন ওই দালাল। তারপরও দালাল ধরার একেবারেই কোন ইচ্ছা না থাকা সত্ত্বেও বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর পর্যন্ত লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে শূন্য হাতে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে ভেবে এখন তিনি দালালের হাত ধরেই পাসপোর্ট করবেন বলে এ প্রতিনিধির কাছে স্বীকার করেন। দালালের হাত না ধরায় জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার টঙ্গিবাড়ী গ্রামের মৃত আবদুল হাই শেখের ছেলে নুরুজ্জামান ২দিন ধরে অফিসের সামনে লাইনে দাঁড়িয়েও ফিঙ্গার প্রিন্ট দেয়ার সুযোগ পাননি। ৩ হাজার টাকার জায়গায় সাত হাজার টাকা দিয়েছেন। নুরুজ্জামান, রাসেলের মতো প্রতিদিন অসংখ্য পাসপোর্ট গ্রহীতা পাসপোর্ট অফিসের কলাপসিবল গেটের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। এখানে নারী গ্রহীতাদের ভোগান্তি যেন আরও বেশি। পুরুষের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে নারীরা বরাবরই পিছিয়ে পড়েন। এক সপ্তাহেও আবেদনই জমা দিতে পারেননি চরাঞ্চলের কালীরচর গ্রামের করিমুন্নেছা। মজুরি খাটতে মধ্যপ্রাচ্যে যাওয়ার লক্ষ্যে প্রত্যন্ত গ্রামের নারী কি আদৌ পাসপোর্ট করতে পারবেন কিনা-তা নিয়ে তিনি অত্যন্ত সংশয় জানিয়েছেন।

এ সব ঘটনায় পাসপোর্ট অফিস সহকারী সিরাজ মিয়া, তরিক ও খোদ উপ-পরিচালক খোরশেদ আলম নিজেই দালালদের সঙ্গে জড়িত বলে দাবি করেছেন ভোগান্তির শিকার পাসপোর্ট আবেদনকারীরা। এদিকে মাঝে-মধ্যে পাসপোর্ট অফিসের অভ্যন্তরে দালাল চক্রের পসরা ভেঙে দিতে পুলিশের অভিযান চালানো হয়ে থাকে। অনেকেই পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলেও পরবর্তীতে বিনা সাজায় তারা ছাড়া পেয়ে ফের দালালি০ কাজে লিপ্ত হন। সূত্র মতে, প্রতিদিন ২-৩শ’ ফিঙ্গার প্রিন্ট করার আবেদন জমা হলেও কেবল ১শ’ থেকে ১শ’ ৫০টি ফিঙ্গার প্রিন্ট করানো হয়ে থাকে। শুধু ফিঙ্গার প্রিন্ট থেকে প্রতিদিন দেড় থেকে দুই লাখ টাকা উপ-পরিচালকের পকেটে আসে। দালাল ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতিদিন আয় কম করে হলেও ৩ থেকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা।

পাসপোর্ট অফিসের এহেন অনিয়মের প্রতিবাদ জানাতে গেলে উপ-পরিচালকের বিরাগভাজন হতে হয়। সমপ্রতি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আশাদুজ্জামান সুমন এ অনিয়মের প্রতিবাদ করায় সেখানে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ পর্যন্ত বাধে। হাজীদের পাসপোর্ট করা নিয়েও অনিয়মের অভিযোগ বিস্তর। এমনই এক হাজী গজারিয়া উপজেলার আলীপুরা গ্রামের আবদুল হকের (৬৫) পাসপোর্ট নিয়ে অনিয়ম করায় সেই ঘটনার প্রতিবাদ করলে পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালকের নির্দেশে কর্মকর্তারা ছাত্রলীগ সভাপতির ওপর চড়াও হলে ওই সংঘর্ষ-সংঘাতের সূত্রপাত হয়।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বেতকা ইউনিয়নের খিলপাড়া গ্রামের সাইফুল ইসলাম বলেন- পর পর ২দিন ধরে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। দালালকে টাকা দেয়ার পরও এখন ফিঙ্গার প্রিন্টের জন্য আবার আলাদা দেড় হাজার টাকা দিতে হবে। দাবি মতো ওই দেড়হাজার টাকা না দেয়ায় ফিঙ্গার প্রিন্ট দেয়া হচ্ছে না তার। এদিকে পাসপোর্ট তদন্ত প্রতিবেদনের জন্যও পুলিশকে টাকা দিতে হয়। টাকা না দিলে পুলিশ তদন্ত প্রতিবেদন মিথ্যা ও সময়মতো প্রতিবেদন দিতে গড়িমসি করে। এমনই একজন ভুক্তভোগী রোজিনা ইয়াসমিন জানান, ৩ জন পুলিশ কর্মকর্তা পার্সপোর্ট তদন্ত করার জন্য আমাদের বাড়িয়ে গিয়ে বলেন, নাম, পিতা, মাতা, গ্রাম মোবাইল নম্বর জিজ্ঞেস করে বলেন, ১ হাজার টাকা দেন। সরকার আমাদের তদন্তের জন্য কিছুই দেয় না। আপনাদের বাড়িতে আসতে যেতে ৩ জন পুলিশের ৫শ’ টাকার বেশি খরচ হয়। আবার সরকারিভাবে আমাদের প্রতি পার্সপোর্ট তদন্তের জন্য ৫০০ টাকা করে জমা দিতে হয়। টাকা না দিলে তদন্ত রিপোর্টে তিনি ভাল কিছু লিখবেন না। ফলে আমি ১ হাজার টাকা দিয়ে দিয়েছি। পরে আবার আমার নম্বরে গভীর রাতে ফোন করে হয়রানি করার অভিযোগ করেছেন তিনি।

আঞ্চলিক পাসপোর্ট উপ-পরিচালক মো. খোরশেদ আলম বলেন- এখানে দালালের কোন স্থান নেই। আমার বিরুদ্ধে আনা এমন অভিযোগ সত্য নয়। এগুলো কেবল আমার বিরুদ্ধে বিভ্রান্তি ও কুৎসা রটানো হচ্ছে।

মানবজমিন

Leave a Reply