সিনহা মুন্সীগঞ্জে অবাঞ্ছিত কুশপুত্তলিকা দাহ

মোজাম্মেল হোসেন সজল, আরিফ হোসেন ও ইমতিয়াজ বাবুল সিরাজদিখান থেকে: মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে বিএনপির দুই নেতাকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়ার প্রতিবাদে সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহার কুশপুত্তলিকা দাহ ও তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল কুদ্দুস ধীরন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. আবদুল্লাহকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়ার প্রতিবাদে গতকাল শুক্রবার সকালে ১৪টি ইউনিয়নের নেতা-কর্মীরা ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের নিমতলা চৌরাস্তায় প্রতিবাদ-বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করেন। সকাল ১০টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এ সমাবেশ চলাকালে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে তীব্র যানজট দেখা দেয়। সিরাজদিখান-ঢাকা সড়কের যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়। বালুরচর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি শামসুল ইসলামের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বালুরচর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আমিনউদ্দিন, লতুব্দি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নূরু মিয়া, সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আজিজুল হক খান, রুহুল আমিন, রসুনিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আবদুল খালেক সিকদার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সিদ্দিক মোল্লা, উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী কামরুজ্জামান লিপু প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, মিজানুর রহমান সিনহার অবৈধ হস্তক্ষেপ মেনে নেয়া যায়। শ্রীনগর-সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ-১) নির্বাচনী এলাকার অভিভাবক বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু। তারা তীব্র নিন্দা ও ঘৃণা জানিয়ে বলেন, মিজান সিনহা, জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মল্লিক সম্পূর্ণ অবৈধ ও অগণতান্ত্রিকভাবে ওই দুই নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে। এক পর্যায়ে দলীয় নেতা-কর্মীরা মিজান সিনহার কুশপুত্তলিকা দাহ করে এবং ওই অঞ্চলে তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন। এ সময় বিপুলসংখ্যক দলীয় নেতাকর্মী-সমর্থক উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৩১শে জুলাই দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে শহরস্থ থানারপুল এলাকার দলীয় কার্যালয়ে জেলা বিএনপির এক জরুরি সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠানে কার্যকরী কমিটির সদস্যরা তাদের দু’জনকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়ার সিন্ধান্ত নেয়। এছাড়া আবদুল কুদ্দুস ধীরন জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও শেখ মো. আবদুল্লাহ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ছিলেন। তাদের সকল সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এ সময় জরুরি সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুন রহমান সিনহা, জেলা বিএনপির সভাপতি বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক আবদুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মলিক প্রমুখ।

এর আগে গত ১৭ই জুলাই সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড স্থগিত ঘোষণা করা করে উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে কারন ৭ দিনের মধ্যে দর্শানোর নোটিস দেয়া হয়। জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মল্লিকের স্বাক্ষরিত কারণ দর্শানোর নোটিসে বলা হয়, ২০০৯ সালের ২০শে নভেম্বর আবদুল কুদ্দুস ধীরন উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও শেখ মো. আবদুল্লাহ সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে স্থানীয় বিএনপির কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। তারা সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষণ্ন করে গত ২৯শে জুন জেলা বিএনপির মতামত উপেক্ষা করে অগণতান্ত্রিকভাবে বর্ধিত সভা করেন। এতে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নসহ দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও উপ-দলে বিভক্ত করেছে।

অপরদিকে বিকাল তিনটার সময় মিজানুর রহমান সিনহা লৌহজংয়ে ইফতার পার্টিতে যাওয়ার পথে বিএনপির উত্তেজিত ওই নেতা-কর্মীরা নিমতলা বাসস্ট্যান্ডে তার গাড়ি অবরোধ করে জুতা নিক্ষেপ করে। বাধার মুখে মিজানুর রহমান সিনহা তার গাড়ি ভিন্ন পথে ঘুরিয়ে নিতে বাধ্য হন। মিজানুর রহমান সিনহা বলেন উত্তেজনা ছিল তবে গাড়ির উপর কোন আক্রমণ হয়নি। সংঘর্ষে বহিষ্কৃৃত গ্রুপের বাসাইল ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি মাসুম (২৫) ও সিনহা গ্রুপের শ্রমিক দলের আহবায়ক মনির হোসেন (৪০) আহত হন।

মানবজমিন

===============

মিজানুর রহমান সিনহাকে অবাঞ্চিত ঘোষনা ও কুশপুত্তলিকা দাহ

সিরাজদিখান বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বহিস্কারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ
আরিফ হোসেন: সিরাজদিখান বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বহিস্কারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করেছে উপজেলা বিএনপির নেতা কর্মীরা। শুক্রবার সকালে সিরাজদিখান উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়নের নেতা কর্মীরা ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের নিমতলা বাসষ্ট্যান্ডে প্রতিবাদ সমাবেশে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহাকে সিরাজদিখান বিএনপিতে অবাঞ্চিত ঘোষনা করে। এসময় মিজানুর রহমান সিনহার কুশপুত্তলিকায় জুতার মালা পরিয়ে দাহ করা হয়। পরে নেতা কর্মীরা ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল ও অবরোধ করার চেষ্টা করলে তা পুলিশি বাধায় পন্ড হয়ে যায়।

গত ৩১ জুলাই দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে জেলা বিএনপির এক জরুরী সভায় সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরণ ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মোঃ আব্দুল্লাহকে বহিস্কার করা হয়। তাদেরকে জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সহ সভাপতির পদ থেকেও অব্যহতি দেওয়া হয়। সমাবেশে বক্তারা বিএনপির ক্রান্তি লগ্নে এমন হঠকারী সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা জানান। তারা বলেন এমন সিদ্ধান্ত বিএনপির গঠন তন্ত্রের ৫(গ) ধারার পরিপন্থী।ঃ বালুরচর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সামশুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি কাজী মোস্তাক আহমেদ শ্যামল,্ এ্যাডভোকেট হারুন অর রশিদ, যুগ্ন সম্পাদক রুহুল আমিন,হায়দার আলী, দপ্তর সম্পাদক এম এ কাইয়ূম, সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সিদ্দিক মোল্লা, ছাত্রদলের আহবায়ক অহিদুল ইসলাম, কৃষক দলের আহবায়ক হাজী শহআলম, ইউপি চেয়ারম্যান খালেক শিকদার,মামুন ও এমরান হোসেন প্রমূখ।


================

সিরাজদিখানে অবাঞ্চিত সিনহা

দলের দুই নেতাকে অব্যাহতি দেয়ার প্রতিবাদে জেলার সিরাজদিখানে সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী, বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহাকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হয়েছে। সিরাজদিখান উপজেলা সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. আবদুল্লাহকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়া প্রতিবাদে আয়োজিত এক বিক্ষোভ সমাবেশে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

শুক্রবার সকাল ১০ টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ঢাকা মাওয়া মহাসড়কের নিমতলা চৌরাস্তায় এ বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করলে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু এ অব্যাহতির প্রতিবাদে তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, মিজানুর রহমান সিনহা, জেলা বিএনপি’র সভাপতি আবদুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মল্লিক সম্পূর্ণ অবৈধ ও অগণতান্ত্রিকভাবে ওই দুই নেতাকে দল থেকে বহিস্কার করেছে।

এক পর্যায়ে দলীয় নেতাকর্মীরা সিনহার কুশপুত্তলিকা দাহ করে এবং ওই অঞ্চলে তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন। এ সময় বিপুল সংখ্যক দলীয় নেতাকর্মী-সমর্থক উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গেলো ৩১ জুলাই দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে থানারপুল দলীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সভায় সিরাজদিখান উপজেলা সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. আবদুল্লাহকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

জাস্টনিউজ
=====================

বিএনপির কোষাধ্যক্ষকে সিরাজদিখানে অবাঞ্ছিত ঘোষণা, কুশপুতুল দাহ

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহাকে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছেন স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা।

সিরাজদিখান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন বিএনপির নেতাকর্মীরা মিজানুর রহমান সিনহাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তার কুশপুতুলে অগ্নিসংযোগ করেন।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের নিমতলা এলাকায় অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় মিজানুর রহমানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা ও তার কুশপুতুল দাহ করা হয়।

জেলা বিএনপির কার্যকরী সভায় সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরণ ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. আবদুল্লাহকে অগণতান্ত্রিক পন্থায় দল থেকে অব্যাহতি দেওয়ার প্রতিবাদে এ সভার আয়োজন করা হয়।

উপজেলার বালুরচর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মো. শামছুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন-সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক, দপ্তর সম্পাদক এম এ কাইয়ুম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সিদ্দিক মোল্লা, বাসাইল ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হারুনুর রশীদ, রশুনিয়া বিএনপির সভাপতি আব্দুল খালেক সিকদার, উপজেলা ছাত্রদল সভাপতি ওয়াহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, দলীয়শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে গত ৩১ জুলাই শহরের থানারপুল এলাকার দলীয় কার্যালয়ে জেলা বিএনপির কার্যকরী কমিটির এক সভায় আব্দুল কুদ্দুস ধীরণ ও শেখ মো. আব্দুল্লাহকে দলের সব পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply