পুলিশের হাতে ছাত্রলীগ নেতা প্রহৃত : প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল

মুন্সীগঞ্জে পুলিশের হাতে ছাত্রলীগ নেতা প্রহৃত হয়েছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ কর্মীরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি সদর থানা ঘেরাও করার চেষ্টা করা হয়। বুধবার দুপুর ২টার দিকে শহরের সুপার মার্কেট এলাকায় এ ঘটনার সূত্রপাত ঘটে। পরে পুলিশ এ ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

জানা গেছে, বুধবার দুপুর দেড় টার দিকে শহরের সুপার মার্কেট এলাকায় তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সদর থানার এস আই এরশাদ জেলা ছাত্রলীগের সদস্য নিবির আহমেদকে মারধর করে। খবর পেয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা নিয়ে হরগঙ্গা কলেজ ক্যাম্পাস থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমনের নেতৃত্বে প্রায় ৩০-৪০ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী সদর থানার প্রধান ফটকে গেলে সদর থানার ওসি মো. আবুল বাসার তাদের নিবৃত করার চেষ্টা চালান। এ সময় সংঘটিত ঘটনার জন্য ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের কাছে ওসি আবুল বাসার দুঃখ প্রকাশ করলে উত্তেজিত নেতাকর্মীরা শান্ত হয়।

এ প্রসঙ্গে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমন জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা নিবিরকে মারধর করলে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল বাসার জানান, মটর সাইকেল চেকিং করার সময় ছাত্রলীগ নেতা নিবিরকে তার ব্যবহৃত মটর সাইকেল থামাতে বললেও সে না থামানোর ফলে এ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছিল। পরে বিষয়টি আলোচনার ভিত্তিতে সমাধান করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক।

জাস্ট নিউজ

======================

ছাত্রলীগ নেতা প্রহৃত: নেতাকর্মীদের সদর থানা ঘেরাও এর চেষ্টা

মুন্সীগঞ্জে পুলিশের হাতে ছাত্রলীগ নেতা প্রহৃত হওয়ার ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে সদর থানা ঘেরাও করার চেষ্টা চালিয়েছে। বুধবার দুপুর সোয়া ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে দুঃখ প্রকাশ করা হলে উত্তেজিত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা শান্ত হলে থানা অভ্যন্তরে তেমন কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

জানা গেছে, বুধবার দুপুর দেড় টার দিকে মুন্সীগঞ্জ শহরের সুপার মার্কেট এলাকায় তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সদর থানার এস আই এরশাদ জেলা ছাত্রলীগের সদস্য নিবির আহমেদকে মারধর করে। এ খবর পেয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা নিয়ে হরগঙ্গা কলেজ ক্যাম্পাস থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে সদর থানা ঘেরাও করতে রওনা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, দুপুর ২টার দিকে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমনের নেতৃত্বে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী সদর থানার প্রধান ফটকে গেলে সদর থানার ওসি মো. আবুল বাসার তাদের নিবৃত করার চেষ্টা চালান। এ সময় সংঘটিত ঘটনার জন্য ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের কাছে ওসি আবুল বাসার দুঃখ প্রকাশ করলে উত্তেজিত নেতাকর্মীরা শান্ত হন।

এ প্রসঙ্গে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান সুমন জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা নিবিরকে মারধর করলে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল। পরে আলোচনার ভিত্তিতে বিষয়টির সমাধান হয়েছে।

সদর থানার ওসি মো. আবুল বাসার জানান, মটর সাইকেল চেকিং করার সময় ছাত্রলীগ নেতা নিবিরকে তার ব্যবহৃত মটর সাইকেল থামাতে বললেও সে তা না থামানোর ফলে এ অপ্রীতিকর ঘটনা সৃস্টি হয়। তিনি আরও জানান, পরে বিষয়টি আলোচনার ভিত্তিতে সমাধান করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক।

বাংলাপোষ্ট২৪ : আরিফ উল ইসলাম

Leave a Reply