মাওয়ায় ফেরি সার্ভিস হুমকির মুখে

নাব্য সঙ্কট
মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ডুবোচরের কারণে আবারও নাব্য সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ঈদের মধ্যে এ নৌরুটে বিপর্যয় নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। নাব্য সঙ্কটের কারণে লঞ্চগুলো তাদের নৌ চ্যানেল প্রত্যাহার করে এখন চলাচল করছে ফেরি চ্যানেলে। একই চ্যানেলে লঞ্চ ও ফেরি চলাচল করায় যে কোন সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কার কথা ঈদ পূর্ব প্রস্তুতি সভাকে জানিয়েছে বিআইডব্লিউটিসি। আর বিআইডব্লিউটিএ তা স্বীকার করে বলেছে কবুতরখোলা চ্যানেলটি সরু হওয়ায় এ পথে একই সঙ্গে দুটি নৌযান বা লঞ্চ-ফেরি চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি লঞ্চ রুটে বিকন বাতি ও মার্কার না থাকায় লঞ্চ চলছে অধিক ঝুঁকি নিয়ে।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া অফিসের এজিএম আশিকুজ্জামান জানান, ডুবোচরের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে নাব্য সঙ্কট সৃষ্টি হওয়ায় এ নৌরুটে ফেরি চলাচল আবারও মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের সঙ্গে পলি জমে নৌরুটের কবুতরখোলা চ্যানেলের মুখটি সরু হয়ে পড়লে চ্যানেলের ওপরে অংশ ইতোমধ্যে তা পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হলে ফেরিগুলো চ্যানেলের নিচের অংশ দিয়ে চলাচল করছিল। কিন্তু প্রচ- স্রোতের সঙ্গে পলি মাটি জমে ডুবোচরটি প্রশস্ত হওয়ায় বর্তমানে রানিং চ্যানেলটিও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। চ্যানেলের মুখ দিয়ে এখন দুটি ফেরি পাশাপাশি চলাচল করতে পারছে না। স্বল্প পানিতে ফেরি চলছে ঝুঁকি নিয়ে। প্রচ- স্রোতে চলাচল করতে গিয়ে ফেরিগুলো মাঝে মধ্যেই ডুবোচরে ধাক্কা খাচ্ছে। এতে ফেরির প্রপেলারসহ ইঞ্জিনের মারাত্মক ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। তাছাড়া বর্তমানে লঞ্চ-ফেরি একই চ্যানেলে চলাচল করায় যে কোন সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিশেষ করে রাতেরবেলায় লঞ্চ ফেরি একই চ্যানেলে মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে চলছে। যদিও লঞ্চ ফেরি একই চ্যানেলে চলাচলের কথা নয় কিন্তু নাব্য সঙ্কটের কারণে এখন লঞ্চ-ফেরি একই চ্যানেলে চলাচল করছে।

লঞ্চ মালিক সূত্রে জানা যায়, লঞ্চ চলাচলের জন্য নির্ধারিত চ্যানেলটিতে নাব্য সঙ্কটের কারণে পানি না থাকায় তারা লৌহজং-মাগুরখন্ড চ্যানেলটি পরিত্যাগ করেছে। বাধ্য হয়েই তারা এখন ফেরি চ্যানেলে চলাচল করছে। এতে নৌ দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থাকলেও ঝুঁকি নিয়েই তাদের চলাচল করতে হচ্ছে। কবুতরখোলা চ্যানেলের মুখে পলি জমে চ্যানেলটি এতোই সরু হয়ে পড়েছে যে, চ্যানেল দিয়ে লঞ্চ-ফেরি একে অপরকে অতিক্রম করতে পারছে না। তাছাড়া লঞ্চ রুটে বিকন বাতি না থাকায় রাতের আঁধারে আন্দাজ করে লঞ্চ চলছে ঝুঁকি নিয়ে। এতে মাঝে মধ্যেই ডুবোচরে আটকে যাচ্ছে লঞ্চ। দিনের আলোতে চ্যানেলে থেকে চলাচল করতে গিয়ে মার্কারের অভাবেও লঞ্চগুলো ডুবোচরে আটকে যাচ্ছে। ঈদে যাত্রীদের নির্বিঘেœ পারাপারের জন্য চ্যানেলগুলোতে প্রয়োজনীয় মার্কার ও বিকন বাতি স্থাপনের দাবি জানিয়েছে লঞ্চ মালিক কর্তৃপক্ষ।
বিআইডব্লিউটিএর উপ পরিচালক (বানৌস) আজগর আলী জানিয়েছেন, কবুতরখোলা চ্যানেলে মুখে অব্যাহতভাবে পলি পড়ে চ্যানেলের মুখটি ছোট হয়ে পড়েছে। তাছাড়া ডুবোচরের কারণে চ্যানেলে দেখা দিয়েছে নাব্য সঙ্কট। তাই এ চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচল এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। তবে ঈদের পূর্বে যে কোন ধরনের নাব্য সঙ্কট মোকাবেলায় দু’টি ড্রেজার স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। প্রয়োজনে সেগুলো কাজে লাগানো হবে। তবে পদ্মায় অত্যধিক স্রোত থাকায় ড্রেজারগুলো এখন মাটি কাটার কাজ করতে পারছে না বলেও তিনি স্বীকার করেন। লঞ্চ চ্যানেলের অনেকাংশে নাব্য সঙ্কটের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, লঞ্চ ও ফেরির জন্য নতুন চ্যানেল আবিষ্কারের কাজ চলছে। বিআইডব্লিইএর হাইড্রোগ্রাফি জরিপ দল এখন পদ্মায় নতুন চ্যানেলের সন্ধানে মাঠ পর্যায়ের কাজ করছে। জরিপ শেষে বুঝা যাবে নতুন কোন চ্যানেল আবিষ্কার হয় কি-না। তিনি বলেন লঞ্চ রুটের বিকন বাতিটি ফেরি রুটে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাছাড়া নদীর মাঝে বিকন বাতির যে স্ট্যান্ডটি ছিল সেটিও স্রোতের টানে নদীতে মিশে গেছে। বিষয়গুলো উর্ধতন কর্তৃপক্ষতে জানানো হযেছে বলে তিনি দাবি করেন।

এদিকে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপদে বাড়ি পৌঁছতে মাওয়া পদ্মা সেতু রেস্ট হাউসে জেলা প্রশাসক মোঃ আজিজুল আলমের সভাপতিত্বে এক ঈদ পূর্ব প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভা থেকে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের বিদ্যমান সমস্যা জরুরীভাবে সমাধানের জন্য বিআইডব্লিউটিএ ও বিআইডব্লিউটিসিকে তাগিদ দেয়া হয়েছে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply