লৌহজংয়ে প্রতিবন্ধি ধর্ষিত: ধর্ষকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

লৌহজংয়ে প্রতিবন্ধি ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত ধর্ষক হুমায়ুন কবির (২৮) ১৬৪ ধারায় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জাবানবন্দি দিয়েছে। লৌহজং থানার ওসি মো. আব্দুল মালেক শুক্রবার সন্ধ্যায় জানান, হুমায়ূন কবির ধর্ষণের কথা স্বীকার করে এই জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছেন তার সাথে শিপন নামের অপর আসামীকে বাক প্রতিবন্দি কিশোরীকে ধর্ষণ করে। সোমবার মুন্সীগঞ্জের সিনিয়র জুডিয়াল ম্যাজস্ট্রিেট মোয়াজ্জেম হোসেন এই জাবানবন্দি রেকর্ড করেন। তবে পুলিশ এখনও অপর ধর্ষক শিপনকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

লৌহজংয়ের কনকসার গ্রমের মজনু মোড়লের ছেলে হুমায়ুনকে রবিবার ধাওয়া করে পুলিশ গ্রেফতার করে। ধর্ষক হুমায়ুন আরও জানিয়েছে-সে প্রতিবন্ধি ওই কিশোরীকে মোটর সাইকেলে করে ঘটনার দিন রাতে তার বাড়িতে নিয়ে আসে। সেখানে শিপন বেপারীর সাথে সেও ধর্ষণ করে প্রতিবন্ধিকে।

পুলিশের নিরাপদ হেফাজাতের আবেদনের স্বাস্থ্য চিকিৎসার পর ধর্ষিতাকে ঢাকার মিরপুরের ২ নং সেকশনের সরকারি আশ্রয় কেন্দ্রে রাখা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে ধর্ষিতার মাও রয়েছেন এই আশ্রয় কেন্দ্রে। এখান থেকেই ধর্ষিতাকে কাল হাইকোর্টে হাজির করা হবে বলে ওসি জানান।

একইসাথে ধর্ষিতার ব্যবহৃত পোষাক ও কাথা রাসায়নিক পরীক্ষর জন্য সিআইডিতে প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে বিলম্ব হওয়ার কারণে স্বাস্থ্য ও পোষাক পরীক্ষা যথাযথ হবে কিনা এই নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসাপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. এহসানুল করিম।

গত পয়লা আগস্ট দৈনিক জনকণ্ঠের ১৪ পাতায় প্রকাশিত “লৌহজংয়ে প্রতিবন্ধী ধর্ষিত, আওয়ামী লীগ নেতার হস্তক্ষেপে থানায় বসে রফা” শিরোনামের প্রকাশিত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে হাই কোর্ট ২ আগস্ট রুল জারি করে এবং লৌহজং থানার দুই ওসি ও মধ্যস্থাকারী আওয়ামী লীগ নেতা মনির হোসেন মাস্টারকে আগামী ১২ আগস্ট হাই কোর্টে তলব করেন। এর পরই মামলা রুজু, ধর্ষিতাকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা, আসামী গ্রেফতারসহ পুলিশের বিশেষ তৎপরতা শুরু হয়।

অথচ লোমহর্ষক এই ঘটনায় পুলিশ কোন প্রকার মামলা নেয়নি। ধর্ষিতাকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় এক ব্যক্তির জিম্মায় ছেড়ে দিয়েছিল। হাইকোর্টের রুলের এই অন্যায়ের আইনী ব্যবস্থা শুরু হওয়ায় এলাকার মানুষ খুশি। তবে মূল আসামী শিপন গ্রেফতার না হওয়ায় ক্ষুব্ধ এলাকার লোকজন।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply