মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে নাব্যতা সংকট: বিপর্যয়ের আশঙ্কা

কাজী দিপু: মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ডুবোচরের কারণে আবারও নাব্যতা সঙ্কট দেখা দিয়েছে।নাব্যতা সংকটের কারণে লঞ্চগুলো তাদের নিয়মিত নৌচ্যানেল পরিবর্তন করে ফেরি চ্যানেলে চলাচল করছে। এর ফলে, ঈদের মধ্যে এ নৌরুটে বিপর্যয় নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এর আগে একই চ্যানেলে লঞ্চ ও ফেরি চলাচল করায় যে কোনো সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কারকথা ঈদপূর্ব প্রস্তুতি সভায় জানিয়েছে বিআইডব্লিউটিসি।

অন্যদিকে, বিআইডব্লিউটিএ তা স্বীকার করে বলেছে, কবুতরখোলা চ্যানেলটি সরু হওয়ায় এ পথে একই সঙ্গে দুটি নৌযান লঞ্চ-ফেরি চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি লঞ্চ রুটে বিকন বাতি ও মার্কার না থাকায় লঞ্চ চলছে অধিক ঝুঁকি নিয়ে।

বিআইডব্লিউটিসির এজিএম আশিকুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, ডুবোচরের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে নাব্যতা সংকট সৃষ্টি হওয়ায় এ নৌরুটে ফেরি চলাচল আবারও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের সঙ্গে পলিমাটি জমে নৌরুটের কবুতরখোলা চ্যানেলের মুখটি সরু হয়ে পড়েছে।

এতে চ্যানেলের ওপরে অংশকে ইতোমধ্যে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হলে ফেরিগুলো চ্যানেলের নিচের অংশ দিয়ে চলাচল করছিল। কিন্তু প্রবল স্রোতের সঙ্গে পলিমাটি জমে ডুবোচরটি প্রশস্ত হওয়ায় বর্তমানে রানিং চ্যানেলটিও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

তিনি আরও জানান, চ্যানেলের মুখ দিয়ে এখন দুটি ফেরি পাশাপাশি চলাচল করতে পারছে না। স্বল্প পানিতে ফেরি চলছে ঝুঁকি নিয়ে। প্রবল স্রোতের মধ্যে চলাচল করতে গিয়ে ফেরিগুলো মাঝে-মধ্যে ডুবোচরে ধাক্কা খাচ্ছে। এতে ফেরির প্রপেলারসহ ইঞ্জিনের ক্ষতি হচ্ছে।

লঞ্চ মালিক সমিতি সূত্রে জানা যায়, লঞ্চ চলাচলের জন্য নির্ধারিত চ্যানেলটিতে নাব্যতা সংকটের কারণে পানি না থাকায় তারা লৌহজং-মাগুরখণ্ড চ্যানেলটি পরিত্যাগ করেছে। বাধ্য হয়েই তারা এখন ফেরি চ্যানেলে চলাচল করছে। এতে নৌ-দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থাকলেও ঝুঁকি নিয়েই তাদের চলাচল করতে হচ্ছে।

এছাড়া ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নির্বিঘ্নে পারাপারের জন্য চ্যানেলগুলোতে প্রয়োজনীয় মার্কার ও বিকন বাতি স্থাপনের দাবি জানিয়েছে লঞ্চ মালিক সমিতি।

বিআইডব্লিউটিএর উপপরিচালক আজগর আলী বাংলানিউজকে জানান, ঈদের আগে নাব্যতা সংকট মোকাবেলায় দু’টি ড্রেজার স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। প্রয়োজনে সেগুলো কাজে লাগানো হবে। তবে পদ্মায় অত্যাধিক স্রোত থাকায় ড্রেজারগুলো এখন মাটি কাটার কাজ করতে পারছে না বলে তিনি জানান।

তিনি আরও জানান, লঞ্চ ও ফেরির জন্য নতুন চ্যানেল আবিষ্কারের কাজ চলছে।বিআইডব্লিটিএ-এর হাইড্রোগ্রাফি জরিপ দল এখন পদ্মায় নতুন চ্যানেলের সন্ধানে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে।

বিষয়গুলো ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হযেছে বলে জানান বিআইডব্লিউটিএর উপপরিচালক আজগর আলী।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply