শ্রীনগরের বাঘড়া এখন সন্ত্রাসীদের অভয়াশ্রম

আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া বিভিন্ন গ্রুপ
শ্রীনগরের বাঘড়া এলাকা সন্ত্রাসীদের অভয়াশ্রমে পরিণত হয়েছে। জানা গেছে, নেপথ্যে কলকাঠি নাড়ছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম। ফিল্মি স্টাইলে তার নেতৃত্বাধীন শাহিন বাহিনীর একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আবারও অশান্ত হয়ে উঠেছে বাঘড়া ও তার আশপাশের এলাকা। এরই মধ্যে ওই বাহিনীর অন্যতম সক্রিয় সদস্য এক ছাত্রলীগ নেতা প্রতিপক্ষ গ্রুপের গুলিতে নিহত হয়েছে। এ বিষয়ে শ্রীনগর থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়েছে। পুলিশ ঢাকার শাহবাগ এলাকা থেকে গত বুধবার রাতে ওই মামলার আসামি তাজেল বাহিনীর প্রধান তাজেলসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। তাদের তথ্যমতে, গতকাল সকালে বাঘড়া এলাকা থেকে ২টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৪রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে শ্রীনগর থানা পুলিশ।

স্থানীয় লোকজন জানায়, এসব সন্ত্রাসীর আশ্রয়দাতারা দলীয় ছত্রছায়ায় এলাকায় বালু ভরাট, ড্রেজার ব্যবসা, সালিশ মীমাংসা ও চাঁদাবাজি আর অবৈধ অস্ত্রের জমজমাট ব্যবসাসহ বিভিন্ন এজেন্ডা নিয়ে মাঠে নেমেছে। এলাকার সবচেয়ে আলোচিত গ্রুপগুলো হলো প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম সমর্থিত শাহিন গ্রুপ, আওয়ামী লীগ নেতা পিন্টু সমর্থিত ম্যাগনেট গ্রুপ শামসু খাঁ সমর্থিত তাজেল গ্রুপ এবং অন্য অংশে আহম্মদ, মামুন গ্রুপ ও আলোচিত রবা ডাকাত গ্রুপ। প্রায়ই এখানে এসব গ্রুপের মধ্যে হরদম অস্ত্রের মহড়া চলে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তাজেল গ্রুপের মান্নান বাহিনীর হামলায় গত ৩০ জুলাই দুপুরে শাহিন গ্রুপের জাহাঙ্গীর নিহত হয়। ওইদিন দুপুর ২টার দিকে বাঘড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুর ইসলাম সমর্থিত আলোচিত ফাইভ মার্ডার মামলার আসামি কেটা সালামের ছেলে শাহিন গ্রুপ প্রধান তাকে নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মান্নান, সোহরাব ও রবা ডাকাতসহ ১০-১২ জন সন্ত্রাসী তাকে ঘিরে ফেলে তিন রাউন্ড গুলি করে এবং কুপিয়ে জখম করে। জাহাঙ্গীরের হাতে, পিঠে ও বুকে গুলি লাগে। এ সময় সন্ত্রাসীরা তাকে মৃত ভেবে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন জাহাঙ্গীরকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে পরে সে মারা যায়। বিবদমান গ্রুপগুলোর মধ্যে যেকোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কায় এলাকার নিরীহ লোকজন ঘরবাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছে। এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি রিবাজ করছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে এ অঞ্চলে দুই গ্রুপের দিনব্যাপী বন্দুকযুদ্ধে ওই এলাকায় আলোচিত ফাইভ মার্ডার সংঘটিত হয় এবং পুলিশসহ দুই শতাধিক লোক আহত হয়। পরে ওই মামলার প্রধান সাক্ষী সাবেক চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দিন মাস্টারকে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এলাকাবাসী জানায়, স্বাধীনতার পর থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত বিবদমান গ্রুপগুলোর দ্বন্দ্বের কারণে একজন ছাড়া সব নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান জংশের মাতবর, স্বরুপ আলী, মনোয়ার আলী ও শাহাবুদ্দিন মাস্টারসহ শতাধিক খুন হয়েছে। জীবিত ওই চেয়ারম্যান ফাইভ মার্ডার মামলার ফাঁসির আসামি হয়ে জেলহাজতে রয়েছেন। শ্রীনগরের অশান্ত এ জনপদে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য কয়েকদিন আগে প্রায় তিন সহস্রাধিক মানুষ স্থায়ী পুলিশ ফাঁড়ির দাবিতে ঢাকা-দোহার সড়কে মানববন্ধন করে। এদিকে গুলিবিদ্ধ ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যুতে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে অশান্ত জনপদ বাঘড়া। পুলিশের ডায়েরি থেকে জানা গেছে, বিগত সময়ে এ ইউনিয়নে বিবদমান গ্রুপগুলোর দ্বন্দ্বের কারণে একজন ছাড়া সব নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানসহ শতাধিক খুন হয়েছেন।

স্থানীয় জনগণের পাশাপাশি শ্রীনগর থানা পুলিশ অশান্ত বাঘড়া পরিস্থিতি নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। এ ব্যাপারে শ্রীনগর সার্কেল এএসপি সাইফুল ইসলাম আমার দেশ-কে বলেন, পরিস্থিতি বেশ উত্তপ্ত। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সংঘাত এড়াতে সদা প্রস্তুত আছে। এ বিষয়ে বিভিন্ন পুলিশি কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে।

আমার দেশ

Leave a Reply